Bangladesh Pratidin

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ৮ ডিসেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : ২০ অক্টোবর, ২০১৬ ১২:২৭
আইন, নৈতিক মূল্যবোধ ও রাষ্ট্রের কর্তব্য
আহসান হাবীব
আইন, নৈতিক মূল্যবোধ ও রাষ্ট্রের কর্তব্য
আহসান হাবীব

আইন, আদালত কিংবা পুলিশ কোনো সভ্য সমাজের প্রথম প্রতিরক্ষা লাইন না। এর মাধ্যমে সামাজিক অবক্ষয় রোধ করাও সম্ভব না।

এটা একটা সমাজের সামাজিক শৃংখলা রক্ষার সর্বশেষ হাতিয়ার হতে পারে। কোন একটি সমাজের সামাজিক শৃংখলা নির্ভর করে ঐ সমাজের মানুষের মধ্যে সামাজিক রীতিনীতি, ঐতিহ্য ও নৈতিক মূল্যবোধের চর্চার ব্যাপ্তির উপর। এটা আমাদের দুর্ভাগ্য যে, কোন ধরনের সামাজিক অসঙ্গতি প্রতিরোধে আমরা প্রথমেই পুলিশ কিংবা আইন-আদালতের দ্বারস্থ হই। সাম্প্রতিক সময়ে জঙ্গিবাদ আমাদের সমাজের মাথা ব্যাথার কারণ। একটা ছেলে জঙ্গি হয়েছে, আপনি তাকে চিহ্নিত করে মেরে ফেললেন। কিছুদিন পরে অন্য কোন স্থানে দেখলেন আরও কয়েকজন যুবক জঙ্গিবাদী কার্যক্রমের সাথে যুক্ত। আবার তাদের মেরে ফেললেন। এটা সমস্যার সমাধান না। যুবকরা কোন ধরনের পারিপার্শ্বিক পরিস্থিতিতে এ ধরনের জঙ্গিবাদের সাথে যুক্ত হচ্ছে, সেটা চিহ্নিত করে প্রতিকারের ব্যবস্থা গ্রহণ জরুরী। কিন্তু এই আসল কাজটাতেই আমাদের কর্তাব্যক্তিদের যত অনীহা।

এ পর্যন্ত জঙ্গী হামলায় অনেকে নিহত হয়েছে। তারচেয়েও বেশি সংখ্যক মানুষ নিহত হচ্ছে প্রতিদিন। সপ্তাহখানেক আবদ্ধ থাকার পর কোন কক্ষে প্রবেশে যে অস্বস্থিকর, গুমোট ও শ্বাসরুদ্ধকর অবস্থার মুখোমুখি হতে হয়। এখনকার প্রতিটি সকালকেই আমার এমন মনে হয়। চারদিকে শুধু হত্যা, খুন, গুম, ধর্ষণের খবর। এগুলো পৃথিবীর শুরু থেকেই ছিল। কিন্তু বর্তমান অবস্থা অন্যান্য স্বাভাবিক অবস্থা থেকে ভিন্ন। মা-বাবা হত্যা করছে সন্তানকে, সন্তানের হাতে খুন হচ্ছে বাবা-মা। ভাই-বোন একজনের হাতে আরেকজন নিরাপদ না। ঠুনকো কারণে সবচেয়ে নিকটের বন্ধু বা সহপাঠীকে হত্যা করা হচ্ছে। ধর্ষণ এ সমাজের নিত্য-নৈমত্তিক ঘটনা। এরসাথে যুক্ত হয়েছে ধর্ষণ পরবর্তী হত্যাকাণ্ড। এরচেয়েও আসল কথা হচ্ছে খুন হয়ে যাচ্ছে মানুষের মানস, মূল্যবোধ ও নৈতিকতা।

মূল্যবোধের শিক্ষা ও চর্চা একটা ধারাবাহিক প্রক্রিয়া। যদি একজন মানুষের মধ্যে মূল্যবোধ না থাকে তাহলে তার পক্ষে এটা মূল্যায়ন করা অসম্ভব যে, কোনটা সঠিক আর কোনটা ভুল। জন্মের পর থেকে একজন শিশুকে আমরা যে ধরনের একাকিত্বের মধ্যে ফেলে দেই, সেখান থেকেই তার মধ্যে এক ধরনের স্বার্থপরতার তৈরী হতে শুরু করে। নৈতিক মূল্যবোধ বলতে কোন মানুষের মনে ভালবাসা, দয়া, সততা, অপরকে শ্রদ্ধা, সহযোগিতা, ক্ষমা ও ধৈর্য্যের অস্তিত্বকে বোঝা হয়। এধরনের মূল্যবোধ তৈরী করার জন্য একজন মানুষকে খুব ছোটকাল থেকে গ্রুপ ভিত্তিক কাজের সাথে যুক্ত থাকা দরকার। যে সামাজিকীকরণ প্রক্রিয়ার মধ্য দিয়ে একজন মানুষ এই মূল্যবোধগুলো শিখবে তার চারটি বাহন রয়েছে। যেগুলো হলো- পরিবার, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, সমবয়সী বা বন্ধু-বান্ধবী এবং গণমাধ্যম।

আধুনিকায়ন, নগরায়ন, শিল্পায়ন প্রভৃতি কারণে পরিবারগুলো একক পরিবারে রুপান্তরিত হচ্ছে। যেখানে একজন শিশু জন্মের পর থেকেই একাকিত্বের মুখোমুখি হতে হয়। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো যেভাবে একজন শিশুর উপর পাঠ্য-বইয়ের বোঝা, এ প্লাস পাওয়ার মানসিক চাপ তৈরী করে দিচ্ছে সেখানে মূল্যবোধ শিক্ষা ও চর্চার সময় কোথায়! স্কুল, কোচিং আর গৃহশিক্ষকের চাপে সমবয়সীদের সাথে সময় কাটানোও সম্ভব হচ্ছে না। আমাদের মানস গঠনে সহায়ক ভূমিকা পালন করবে এমন গণমাধ্যম খুঁজে পাওয়াও অনেক কঠিন। এমন পরিপ্রেক্ষিতে ব্যক্তি উদ্যোগে এই ধরনের মূল্যবোধের অবক্ষয় থেকে প্রজন্মকে বের করে আনা কঠিন।

আপনার শিশু যখন মোবাইলে গেম খেলে, তখন আপনি অন্য কাজ করেন। আপনার ইচ্ছা হয় তাকে মাঠে নিয়ে যাবেন। কিন্তু মাঠ কিনে দেয়ার সামর্থ্যতো অনেকের নেই। এটা রাষ্ট্রের কাজ। আপনি হয়ত আপনার শিশুকে পার্কে নিয়ে যেতে পারেন, কিন্তু সেখানে আপনার নিজের কাজ বন্ধ রাখতে হবে। উন্নতবিশ্বে বাচ্চাদের খেলার জন্য বাসা থেকে দূরে আলাদা পার্ক ও খেলার মাঠ আছে। পাশাপাশি সেখানে নিয়ে যাওয়ার জন্য নিরাপদ পরিবহন ব্যবস্থাও রয়েছে। বাবা-মা তার সন্তানকে খেলার জন্য ছেড়ে দিয়ে নিশ্চিন্ত থাকতে পারে। এই নিরাপদ পরিবহন ও ব্যক্তিগত নিরাপত্তার দায়িত্ব সন্তানের অভিভাবকরা নিতে পারবে না। এই দায়িত্ব রাষ্ট্রের। যথাযথ সুযোগের অভাবে একজন অপরাধের দিকে পা বাড়াবে আর রাষ্ট্র তাকে ধরে মেরে ফেলবে, এ জন্য জনগন ট্যাক্স দেয় না। একজন মানুষ যেন সুস্থ-স্বাভাবিক পরিবেশে বেড়ে উঠতে পারে সে পরিবেশ নিশ্চিত করার জন্যই জনগন ট্যাক্স দেয়।

শিশুর বিনোদনের দরকার আছে। সে কার্টুন দেখবে, খেলবে, নাটক দেখবে, গল্পের বই পড়বে। কিন্তু এই সবকিছু আপনি নিশ্চিত করতে পারবেন না। তার প্রয়োজন পূরণে মানসম্মত বই, কার্টুন, নাটক-সিনেমা কোথায়! আপনি চাচ্ছেন আপনার সন্তান ভালো মানুষ হোক। এ জন্য তাকে ভালো স্কুলে ভর্তি করে দিয়েছেন, ভালো টিচার দিয়েছেন, মাস শেষে ঠিকঠাক খরচ দিচ্ছেন। কিন্তু সে কি করবে, কোনদিকে যাবে, সে কি খুনি হবে নাকি মাদকাশক্ত হবে, সে পর্নোগ্রাফীতে আশক্ত হবে নাকি জঙ্গি হবে, সে ভালো মানুষ হবে নাকি ধর্ষক হবে এটা পুরোপুরি আপনার হাতে নাই। তার ভবিষ্যত পুরোপুরি আপনার হাতে নির্ভর করে না। এই সমাজ যে ব্যবস্থা করে রেখেছে তাতে সে যা হবার তাই হবে। তার মনের মধ্যে মানবিক মূল্যবোধ তৈরীতে আপনি ব্যক্তি পর্যায়ে চেষ্টা করতে পারেন কিন্তু সামগ্রিক পরিবর্তন ছাড়া বর্তমান অবস্থার পরিবর্তন কঠিন। সামগ্রিক পরিবর্তনের ভ্যানগার্ডতো রাষ্ট্রই। রাষ্ট্র উদ্যোক্তা হোক, মানুষ সহায়ক হবে।


লেখক: শিক্ষক, সমাজবিজ্ঞান ও নৃবিজ্ঞান বিভাগ, গ্রিন ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশ।

 

বিডি-প্রতিদিন/ ২০ অক্টোবর, ২০১৬/ আফরোজ

আপনার মন্তব্য

সর্বশেষ খবর
up-arrow