শিরোনাম
প্রকাশ : ১৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ১৮:৪৬

শিক্ষক দিবস ঘোষণার দাবি স্থায়ী কমিটিতে তোলা হবে: বাদশা

নিজস্ব প্রতিবেদক, রাজশাহী:

শিক্ষক দিবস ঘোষণার দাবি স্থায়ী কমিটিতে তোলা হবে: বাদশা

আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলা প্রত্যাহারের দাবি এবং সার্জেন্ট জহুরুল হক হত্যার প্রতিবাদে ১৪৪ ধারা ভেঙে ১৯৬৯ সালের ১৮ ফেব্রুয়ারি রাস্তায় নেমেছিলেন রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) শিক্ষার্থীরা। তাদের ওপর পাকিস্তানি সেনারা গুলি করার প্রস্তুতি নিলে ছুটে আসেন বিশ্ববিদ্যালয়ের তৎকালীন প্রক্টর ড. শামসুজ্জোহা। পরে গুলিবিদ্ধ ড. জোহাকে বেয়োনেট দিয়ে খুঁচিয়ে খুঁচিয়ে নৃশংসভাবে হত্যা করা হয়।

এই দিনটিকে জাতীয় শিক্ষক দিবস হিসেবে ঘোষণার দাবি দীর্ঘদিনের। এ দাবি এবার শিক্ষা মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটিতে উঠছে। কমিটির সদস্য ও রাজশাহী-২ (সদর) আসনের এমপি ফজলে হোসেন বাদশা বিষয়টি স্থায়ী কমিটিতে তোলার কথা জানিয়েছেন। তিনি বলেছেন, এ দাবির সঙ্গে তিনিও একমত।

শহীদ ড. শামসুজ্জোহার ৫১তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে মঙ্গলবার বেলা ১১টার দিকে তার সমাধিতে শ্রদ্ধাঞ্জলি অর্পণ শেষে সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন ফজলে হোসেন বাদশা। তিনি বলেন, দীর্ঘদিন ধরে আজকের এই দিনটি জাতীয়ভাবে শিক্ষক দিবস ঘোষণা দাবি জানানো হচ্ছে। এটি নিয়ে পার্লামেন্টে কথা বলেছি। কিন্তু আজও স্বীকৃতি মিলেনি। আমরা চাই, এই দিনটিকে জাতীয় শিক্ষক ও শিক্ষা দিবস হিসেবে ঘোষণা করা হোক। আমি যেহেতু এখন শিক্ষামন্ত্রণালয়ের স্থায়ী কমিটিতে আছি, বিষয়টি দ্রুতই কমিটিতে তোলা হবে।

বর্তমানে শিক্ষা প্রশাসনে দুর্নীতির ছায়া পড়েছে উল্লেখ করে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র সংসদের (রাকসু) সাবেক এই ভিপি বলেন, আমাদের প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, ২০৪০ সালে বাংলাদেশ উন্নত বিশ্বের অংশীদারি হবে। কিন্তু সেজন্য অপরিহার্য হচ্ছে মানসম্মত শিক্ষা নিশ্চিত করা। কিন্তু আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়, কলেজ এবং মাধ্যমিক স্কুলগুলোর বর্তমান অবস্থা নিয়ে আমরা উদ্বিগ্ন। শিক্ষা প্রশাসনে দুর্নীতির ছায়া পড়েছে। এখান থেকে রক্ষা করতে না পারলে আমরা উন্নত বিশ্বের অংশ হতে পারবো না।

এক দার্শনিকের উদ্ধৃতি দিয়ে বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক ফজলে হোসেন বাদশা বলেন, কেউ যদি এক বছরের পরিকল্পনা করতে চায়, তবে সে যেন ধান চাষ করে। কেউ যদি ১০ বছরের পরিকল্পনা করে তবে সে যেন গাছ লাগায় এবং কেউ যদি ১০০ বছরের পরিকল্পনা করতে চায় তবে সে যেন তার সন্তানদের সু-শিক্ষায় শিক্ষিত করে। তাই আমাদের সন্তানদেরও সেই সু-শিক্ষায় শিক্ষিত করতে হবে।  

এর আগে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসন ভবনের সামনে শহীদ ড. শামসুজ্জোহার সমাধিতে শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন করেন ফজলে হোসেন বাদশা। পরে ওয়ার্কাস পার্টির পক্ষ থেকে দলীয় নেতাকর্মীদের নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটকের সামনে ড. জ্জোহার স্মৃতিস্তম্বে পুষ্পস্তবক অর্পণ করা হয়। পরে ওয়ার্কাস পার্টির রাজশাহী মহানগর সভাপতি লিয়াকত আলী লিকু দলীয় নেতাকর্মীদের শপথ বাক্য পাঠ করান।

বিডি প্রতিদিন/হিমেল


আপনার মন্তব্য