শিরোনাম
প্রকাশ : ১২ এপ্রিল, ২০২১ ১৫:৪৩
আপডেট : ১২ এপ্রিল, ২০২১ ১৬:০০
প্রিন্ট করুন printer

ঈদ সামনে রেখে সিলেটে তৎপর চোরাকারবারি সিন্ডিকেট

ভারত থেকে চোরাই পথে আসছে কাপড়, কসমেটিক্স, জুতাসহ বিভিন্ন সামগ্রী

শাহ্ দিদার আলম নবেল, সিলেট

ঈদ সামনে রেখে সিলেটে তৎপর চোরাকারবারি সিন্ডিকেট

ঈদবাজারকে টার্গেট করে সিলেট সীমান্ত দিয়ে বেড়েছে চোরাকারবারিদের তৎপরতা। সীমান্ত পেরিয়ে ভারত থেকে অবৈধভাবে আসছে শাড়ি, থ্রি-পিসসহ বিভিন্ন জাতের কাপড়, জুতা ও কসমেটিক্স। চোরাকারবারি সিন্ডিকেটের তৎপরতা বাড়ায় আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীও বাড়িয়েছে তাদের নজরদারি। সিলেট নগরী ও সীমান্তবর্তী উপজেলাগুলোতে বাড়ানো হয়েছে গোয়েন্দা তৎপরতা। ইতিমধ্যেই ভারত থেকে আসা কাপড়, জুতা ও কসমেটিক্সের তিনটি চালান আটক করেছে তারা। যার মূল্য প্রায় কোটি টাকা বলে জানিয়েছে পুলিশ।

প্রতি বছর রমজান মাস আসতেই সিলেট সীমান্ত দিয়ে বেড়ে যায় চোরাকারবারিদের তৎপরতা। ঈদের বাজারকে টার্গেট করে তারা ভারত থেকে বিভিন্ন জাতের কাপড়, জুতা ও কসমেটিক্স সিলেটে নিয়ে আসে। চোরাকারবারি সিন্ডিকেটের সদস্যরা প্রথমে এসব পণ্য সীমান্তবর্তী ভারতের কোনো গ্রামে এনে জড়ো করেন। পরে সুযোগ বুঝে রাতের আঁধারে সীমান্ত পার করে সিলেট নগরী ও নগরীর আশপাশ এলাকায় নিরাপদ স্থানে গুদামজাত করেন। এরপর নগরীর মার্কেট ও দোকানগুলোতে স্যাম্পল দেখিয়ে অর্ডার সংগ্রহ করেন। সীমান্ত থেকে নগরীতে নিয়ে আসার সময় মাঝে মধ্যে দুই-চারটি চালান আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর হাতে ধরা পড়লেও বেশির ভাগ চালান থেকে যায় অধরা।

সূত্র জানায়, ঈদের সময় সিলেটের বাজারে ভারতীয় কাপড় ও কসমেটিক্সের চাহিদা বেড়ে যায় বলে ওই সময় চোরাকারবারি সিন্ডিকেটের তৎপরতা বৃদ্ধি পায়। তারা শুল্ক ফাঁকি দিয়ে ভারত থেকে চোরাই পথে পণ্য এনে সিলেটের বিভিন্ন মার্কেটে বিক্রি করেন। এভাবে চোরাই পথে এনে সিলেটের দক্ষিণ সুরমার চকের বাজারে গুদামজাত করে রাখা হয়েছিল প্রায় অর্ধ কোটি টাকার শাড়ি, থ্রি-পিস ও কসমেটিক্স। গত ৮ এপ্রিল গোপন সংবাদের ভিত্তিতে পুলিশ চকের বাজারের আবদুল হান্নানের মালিকানাধীন গুদামে অভিযান চালায়। ওই গুদাম থেকে বিপুল পরিমাণ কাপড় ও কসমেটিক্স উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় গুদামের মালিক আবদুল হান্নানকে আসামি করে দক্ষিণ সুরমা থানায় মামলা করে পুলিশ।
গতকাল সকাল সাড়ে ৬টায় সিলেট নগরীর সওদাগরটুলা থেকে ভারতীয় জুতা ও মেহেদির বিশাল একটি চালান আটক করে পুলিশ। জৈন্তাপুর সীমান্ত এলাকা থেকে নগরীর ভিতরে নিয়ে আসার পর খবর পেয়ে কোতোয়ালি থানাধীন সোবহানীঘাট থানা পুলিশ অভিযান চালিয়ে জুতার চালানসহ এক চোরাকারবারিকে আটক করে। আটককৃত ব্যক্তির নাম মো. আবদুল্লাহ (২৬)। তিনি সিলেট মহানগরীর জালালাবাদ থানাধীন টুকেরবাজার এলাকার হায়দরপুর গ্রামের মৃত আবু তাহেরের ছেলে।

সিলেট মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার (গণমাধ্যম) বি এম আশরাফ উল্যাহ জানান, জব্দকৃত মালামালের মূল্য আনুমানিক কয়েক লাখ টাকা হবে। চোরাকারবারিদের ব্যাপারে মহানগর পুলিশ সতর্ক রয়েছে বলে জানান তিনি। সিলেট জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. লুৎফর রহমান জানান, ঈদকে টার্গেট করে চোরাকারবারিদের তৎপরতা রোধে পুলিশ গোয়েন্দা নজরদারি বাড়িয়েছে। কোথাও চোরাচালানের খবর পেলে অভিযান চালানো হচ্ছে।

এই বিভাগের আরও খবর