শিরোনাম
প্রকাশ : শুক্রবার, ১৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ১২ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ২৩:২৩

৪৮টি অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ

দখলমুক্ত হচ্ছে ময়ূর নদ

নিজস্ব প্রতিবেদক, খুলনা

দখলমুক্ত হচ্ছে ময়ূর নদ

খুলনায় ময়ূর নদসহ ২৬টি খালে তেরো দিনের মতো অবৈধ দখল উচ্ছেদ কার্যক্রম চলমান রয়েছে। ইতিমধ্যে ময়ূর নদে থাকা ৬৩টি অবৈধ স্থাপনার ৪৮টি অপসারণ করা হয়েছে। নগরীর দরগা রোড, প্রান্তিকা ও নিরালা আবাসিক এলাকায় আরও তিনটি বহুতল ভবনের উচ্ছেদ কার্যক্রম শুরু হয়েছে। আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে ময়ূর নদে পুরোপুরি দখল মুক্ত করা সম্ভব হবে বলে জানিয়েছেন কর্মকর্তারা। জানা যায়, দখল-বেদখলে পানি নিষ্কাশনের নদী ও খালগুলো সংকুচিত হওয়ায় পানি প্রবাহ ব্যাহত হয়। এতে সামান্য বৃষ্টিতে নগরজুড়ে সৃষ্টি হয় ভয়াবহ জলাবদ্ধতা। এ কারণে গত ১ সেপ্টেম্বর দখলদার উচ্ছেদে প্রশাসনিক কার্যক্রম শুরু হয়েছে। উচ্ছেদ কার্যক্রমে গঠিত চারটি কমিটি ময়ূর নদ ও ২৬টি খালের জরিপ চালিয়ে ৪৬০ জন দখলদারের তালিকা করেছে। নদী ও খাল দখল করে গড়ে ওঠা অবৈধ স্থাপনার সংখ্যা ৩৮২টি।

সরেজমিনে দেখা গেছে, নদী-খালের জায়গা দখল করে গড়ে ওঠা অবৈধ স্থাপনা স্কেভেটর দিয়ে গুঁড়িয়ে দেওয়া হচ্ছে। এ ছাড়া অবৈধ টিনশেড বাড়ি, ব্যবসা-প্রতিষ্ঠান ও সেমি পাকা ঘর ভেঙে দেওয়া হয়েছে। সিটি করপোরেশনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মাসুম বিল্লাহ জানান, নগরবাসীর সুবিধার্থে নদী ও খালের অবৈধ দখলমুক্ত করতে প্রশাসন, রাজনীতিবিদ ও সুশীল সমাজের সবাই একমত। এ কারণে উচ্ছেদ অভিযানে কোনো ধরনের প্রতিবন্ধকতা নেই। তবে দখলকৃত জায়গা নিয়ে আপত্তি থাকলে কাগজপত্র যাচাই-বাছাই করা হচ্ছে।

এদিকে সিটি মেয়র তালুকদার আবদুল খালেক বলেছেন, জরিপের আওতায় যতগুলো অবৈধ স্থাপনা আছে, সব ভাঙা হবে। জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ হেলাল হোসেন বলেন, খুলনাকে জলাবদ্ধমুক্ত করতে এবার কঠোর অবস্থানে রয়েছে প্রশাসন। দখলদাররা অনেক সময় জনপ্রতিনিধিদের ভুল বুঝিয়ে উচ্ছেদ অভিযানে বাধা সৃষ্টি করে। এ কারণে সকল পর্যায়ের কর্মকর্তাদের নিয়ে এবার সমন্বিত কমিটি করা হয়েছে।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর