শিরোনাম
প্রকাশ : বুধবার, ২৯ জানুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ টা
আপলোড : ২৯ জানুয়ারি, ২০২০ ০২:১৩

সাধারণ মানুষের ভোগান্তি

সারা দেশে জন্ম-মৃত্যু নিবন্ধনও সংশোধন বন্ধ রয়েছে

নিজস্ব প্রতিবেদক

সারা দেশে জন্ম-মৃত্যু নিবন্ধনও সংশোধন বন্ধ রয়েছে

জন্ম-মৃত্যু নিবন্ধন সনদ পাওয়া যাচ্ছে না। এমনকি সংশোধনও করা যাচ্ছে না। দুই সপ্তাহ ধরে সারা দেশে এ অচলাবস্থা সৃষ্টি হয়েছে। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, সার্ভারে কাজ চলছে এ কারণে সাময়িকভাবে জন্ম-মৃত্যু নিবন্ধন সনদ বা সংশোধনের কাজ বন্ধ রয়েছে। আগামী ২০ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত রেজিস্ট্রেশন অধিদফতরের এ সংক্রান্ত সব কার্যক্রম বন্ধ থাকবে।

জানা গেছে, দুই সপ্তাহ ধরে রাজধানী ঢাকাসহ সারা দেশে বিভিন্ন বিভাগীয় শহর, জেলা, উপজেলায় সাধারণ মানুষ জন্ম-মৃত্যু রেজিস্ট্রেশনের জন্য কিংবা নিজের পূর্বের সনদের ভুল সংশোধন করতে গিয়ে চরম হয়রানিতে পড়ছেন।

সংশ্লিষ্ট অফিসগুলোতে প্রতিদিন সকাল থেকে বিকাল পর্যন্ত ভুক্তভোগী মানুষজনের দীর্ঘ লাইন পড়লেও তারা নতুন সনদ বা সংশোধনকৃত সনদ পাচ্ছেন না।

রাজধানীর উত্তরা এলাকার কয়েকজন ভুক্তভোগী জানিয়েছেন, পূর্বে নেওয়া জন্ম সনদে সামান্য নামের কিংবা জন্ম তারিখের ভুল সংশোধন করতে গিয়ে তারা বিপাকে পড়েছেন। জরুরি প্রয়োজনে সংশোধন করার দরকার হলেও সংশ্লিষ্ট অফিস থেকে আবেদনকারীদের বলা হচ্ছে, এখন সংশোধন করা যাবে না। কিন্তু কী কারণে সেটি করা যাবে না তার কোনো ব্যাখ্যা অফিসগুলোর কর্মকর্তারা দিতে পারছেন না।

জন্ম ও মৃত্যু নিবন্ধন রেজিস্ট্রারের কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, বর্তমানে যে সার্ভারে সারা দেশের নাগরিকদের তথ্য রয়েছে সেটি অন্য একটি সার্ভারে ট্রান্সফার করা হচ্ছে। সারা দেশের প্রায় সাড়ে ১৭ কোটি ডাটাবেজ রয়েছে। এ ডাটাবেজ অন্য সার্ভারে নিয়ে যেতে সময় লাগছে। জানুয়ারি মাসের দ্বিতীয় সপ্তাহে এক সার্ভারের তথ্য নতুন আরেকটি সার্ভারে নেওয়ার কাজ শুরু হয়েছে। এগুলো সম্পূর্ণ করতে আরও তিন সপ্তাহ সময় লাগবে।

ভুক্তভোগীরা অভিযোগ করেছেন, জনগণের জরুরি প্রয়োজনে বিশেষ করে অনেকের পাসপোর্টের কাজে জন্ম নিবন্ধন সনদের তথ্য প্রয়োজন হয়। অনেক সময় দেখা যায়, ভুল হওয়ার কারণে তথ্য সংশোধন করতে হয়। কিন্তু এখন করা যাচ্ছে না। জন্ম-মৃত্যু সনদের মতো অতিগুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয় চার-পাঁচ সপ্তাহে সংশোধন করা যাবে না- সে বিষয়ে নিবন্ধন রেজিস্ট্রারের কার্যালয় থেকে সংবাদপত্রে বিজ্ঞপ্তি দেওয়া উচিত ছিল। রেজিস্ট্রার দফতর থেকে সংশ্লিষ্টরা বলছেন, এ বিষয়ে তাদের ওয়েবসাইটে আগেই ঘোষণা দেওয়া হয়েছে।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর