শিরোনাম
প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ৮ এপ্রিল, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ৭ এপ্রিল, ২০২১ ২৩:১৫

সিলেটে শিশুকে তুলে নিয়ে ধর্ষণ, আটক ২

পাথরের আঘাতে নানার মৃত্যু

নিজস্ব প্রতিবেদক, সিলেট

Google News

সিলেটের বিয়ানীবাজারে গণধর্ষণের শিকার হয়েছে পঞ্চম শ্রেণির এক ছাত্রী। রাতে বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে দুর্বৃত্তরা ধর্ষণ করেছে তাকে। এ ঘটনায় অভিযুক্ত দুজনকে আটক করে পুলিশে দিয়েছে জনতা। গত মঙ্গলবার রাতে বিয়ানীবাজার উপজেলার লাউতা ইউনিয়নের বাহাদুরপুর টিকরপাড়ায় এ ঘটনা ঘটে।

আটককৃতরা হলো- বাহাদুরপুর দক্ষিণ টিকরপাড়া গ্রামের মৃত ছাইদ আলীর ছেলে ফয়ছল আহমদ পেটলা ও উত্তর গাঙপাড়ের মৃত আবদুল খালিকের ছেলে মিশুক আহমদ। গতকাল এ ঘটনায় বিয়ানীবাজার থানায় মামলা হয়েছে।  জানা যায়, গত মঙ্গলবার রাত ৯টার দিকে ঘরের উঠানে নলকূপ থেকে পানি নিতে বের হয় ১২ বছর বয়সী পঞ্চম শ্রেণির ওই ছাত্রী। পরে পাশের একটি নির্জন জায়গায় নিয়ে তারা পালাক্রমে ধর্ষণ করে শিশুটিকে ফেলে রেখে যায়। পরিবারের লোকজন তাকে অজ্ঞান অবস্থায় উদ্ধার করে। এদিকে সিলেটের কানাইঘাটে নাতির ছোড়া পাথরে মারা গেছেন নানা। এ ঘটনায় পুলিশ অভিযুক্ত নাতি আবদুল কাদিরকে আটক করেছে। মঙ্গলবার রাত ১১টার দিকে উপজেলার লক্ষীপ্রসাদ পূর্ব ইউনিয়নের এরালিগুল গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। নিহত আবদুল মালিক ওরফে মলিক মিয়া (৭৩) ওই গ্রামের বাসিন্দা। জানা যায়, এরালিগুলি খাছাড়িপাড়ার মৃত মরতুজ আলীর ছেলে আবদুল কাদির (৩২) স্ত্রী নিয়ে তার নানির দ্বিতীয় স্বামী আবদুল মালিক ওরফে মল্লিক মিয়ার বাড়িতে থাকতেন। সম্প্রতি নানা ও নাতির মধ্যে মনোমালিন্য দেখা দেয়। এর জের ধরে মঙ্গলবার রাতে স্থানীয় বাজার থেকে ফেরার পথে গ্রামের মসজিদের সামনে আবদুল কাদির তার নানাকে লক্ষ্য করে পাথর ছুড়ে মারে।

পাথরটি মল্লিক মিয়ার বুকে আঘাত করলে তিনি ঘটনাস্থলেই মারা যান। পরে আবদুল কাদিরকে আটক করে স্থানীয় লোকজন পুলিশের হাতে তুলে দেন।

কানাইঘাট থানার এসআই মজিবুর রহমান জানান, নিহতের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য সিলেট ওসমানী মেডিকেলের মর্গে পাঠানো হয়েছে। আবদুল কাদিরকে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

এই বিভাগের আরও খবর