Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ১৫ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৫ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ০২:০৭

ঘুরতে গিয়ে লাশ চার বন্ধু আটক

নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি

ঘুরতে গিয়ে লাশ চার বন্ধু আটক

নারায়ণগঞ্জের পাগলায় ভালোবাসা দিবসে ঘুরতে গিয়ে বুড়িগঙ্গায় ডুবে লাশ হলো রকিবুল ইসলাম শান্ত নামের এসএসসি পরীক্ষার্থী। গতকাল ট্রলারে বুড়িগঙ্গা নদী পার হওয়ার সময় পড়ে গিয়ে নিখোঁজ ছিল শান্ত। পরে পাগলা কোস্টগার্ড স্টেশনের ডুবুরি দল তল্লাশি চালিয়ে সন্ধ্যা ৬টায় শান্তর লাশ উদ্ধার করে। এ ছাড়া কেরানীগঞ্জ নৌ-পুলিশ শান্তর চার বন্ধুকে আটক করেছে। আটককৃতদের মধ্যে তিনজন শান্তর সহপাঠী ও এসএসসি পরীক্ষার্থী। নিহত শান্ত পাগলায় নয়ামাটির মিলন ডাক্তারের বাড়ির ভাড়াটিয়া শফিকুল ইসলাম রতনের ছেলে। সে এ বছর পাগলা উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এসএসসি পরীক্ষা দিচ্ছিল।

আটককৃতরা হলো— ফতুল্লার পাগলা নয়ামাটির আবুল বাশারের ছেলে এসএসসি পরীক্ষার্থী রুবেল, একই এলাকার হাকিম হাওলাদারের ছেলে এসএসসি পরীক্ষার্থী সজিব, আমির হোসেনের ছেলে এসএসসি পরীক্ষার্থী মেহেদী হাসান শুভ ও একই এলাকার মোখলেছের ছেলে ওয়ার্কশপের শ্রমিক রাব্বি।

আটককৃতদের বরাত দিয়ে কেরানীগঞ্জ নৌ পুলিশ ফাঁড়ির এসআই ফরহাদ আলম জানান, শান্ত তার চার বন্ধুর সঙ্গে পাগলার বাড়ি থেকে বুড়িগঙ্গা নদী পার হয়ে কেরানীগঞ্জের পানগাঁও এলাকায় ভালোবাসা দিবস উপলক্ষে ঘুরতে যায়। সেখানে আনন্দ ফুর্তি শেষে বাড়ি ফেরার পথে একটি ট্রলারে বিকাল সাড়ে ৪টায় বুড়িগঙ্গা নদী পার হওয়ার সময় মাঝ নদীতে শান্ত ট্রলার থেকে পড়ে পানিতে ডুবে যায়। তবে নিহতের মায়ের অভিযোগে চারজনকে আটক করা হয়েছে। ঘটনাটি তদন্ত চলছে এবং ময়নাতদন্ত রিপোর্টে মৃত্যুর প্রকৃত কারণ জানা যাবে।

শান্তর মা আসমা বেগম বলেন, শান্তকে পরিকল্পিতভাবে ধাক্কা দিয়ে পানিতে ফেলে হত্যা করেছে তার বন্ধুরা। আমি এর বিচার চাই।

এদিকে বিকালে বুড়িগঙ্গায় এসএসসি পরীক্ষার্থী নিখোঁজের খবর পেয়ে কোস্টগার্ড পাগলা স্টেশনের কর্মকর্তা মাসুদ রানার নেতৃত্বে একটি টিম ঘটনাস্থলে এসে তল্লাশি চালিয়ে সন্ধ্যা ৬টার দিকে শান্তর লাশ উদ্ধার করে।

একই দিনে বুধবার রাত সাড়ে ৮টায় ফতুল্লার নন্দলালপুরে বেকারির গলি থেকে একটি শিশুর রক্তাক্ত লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।

ফতুল্লা মডেল থানার ওসি কামাল উদ্দিন জানান, ধারণা করা হচ্ছে শিশুটিকে নির্যাতন করে শ্বাসরোধে হত্যার পর মৃতদেহটি নন্দলালপুর বেকারি গলিতে ফেলে গেছে দুর্বৃত্তরা। শিশুটির গায়ে সোয়েটার পরানো ছিল। একই সঙ্গে লুঙ্গি দিয়ে শিশুটিকে পেঁচানো অবস্থায় পাওয়া যায়। শিশুটির নাক, মুখ ও কান দিয়ে রক্ত বের হতে দেখা গেছে। লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য নারায়ণগঞ্জ ১০০ শয্যাবিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।


আপনার মন্তব্য