শিরোনাম
মঙ্গলবার, ২ নভেম্বর, ২০২১ ০০:০০ টা

দুই প্রতিবন্ধী মেয়ের চিকিৎসা খরচ চালাতে নিঃস্ব পরিবার

চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি

চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার গোমস্তাপুর উপজেলার রহনপুর পৌরএলাকার নূনগোলা মহল্লার আবদুল লতিফ দুই প্রতিবন্ধী মেয়ের চিকিৎসা খরচ চালাতে গিয়ে নিঃস্ব হয়ে পড়েছেন। বর্তমানে তিনি মেয়েদের চিকিৎসার জন্য সরকারসহ বিত্তবানদের সহায়তা কামনা করেছেন। জানা গেছে, আবদুল লতিফের দুই প্রতিবন্ধী মেয়ে মরিয়ম (৩৫) ও ফাতেমা (২৫) তারা দুজনই এখন শারীরিক প্রতিবন্ধী। তাদের হাঁটা চলারও নেই কোনো শক্তি। এর ভিতর বাসা বেঁধেছে নানা ধরনের রোগও। এই দুই মেয়ের চিকিৎসা করাতে গিয়ে এরই মধ্যে জায়গা-জমি বিক্রি করে প্রায় নিঃস্ব তাদের পরিবার। একটি বাড়ি ছিল, কিন্তু ব্যাংক থেকে ঋণ নিয়ে ফেরত দিতে না পারায় একমাত্র বাড়িটিও এখন ব্যাংকের কবজায়। এরই মধ্যে সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয় ও প্রধানমন্ত্রীর দফতরে চিকিৎসার সাহায্যের অনুদান চেয়ে আবেদনও করছেন তিনি। আবদুল লতিফ জানান, তার মেয়ে মরিয়মের বয়স যখন ১৩ বছর তখন ৫ম শ্রেণিতে পড়ালেখা করত। অন্যদের মতো সে স্বাভাবিকভাবে জীবনযাপন করছিল। কিন্তু হঠাৎ সে স্কুলে যাওয়ার পথে রাস্তায় পড়ে যায়, তখন থেকেই সে আর হাঁটাচলা করতে পারে না। পরে সে প্যারালাইসিসে আক্রান্ত হয়ে পড়েছে। দেশের বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসা করানো হলেও সে একটুও ভালো হয়নি। কিন্তু অনেক টাকা খরচ হয়ে গেছে।

আর অন্য মেয়ে ফাতিমার বয়স যখন ১৫ বছর তখন তারও একই অবস্থা হয়। তাদের ভালো করতে বেশ কয়েকটি ব্যাংকে ঋণ নিয়ে এখন তা পরিশোধ করতে না পারায় বেশ কয়েকটি মামলায় জড়িয়েছেন তিনি। বর্তমানে রেলস্টেশনে শ্রমিকের কাজ করে জীবন নির্বাহ করছেন। আগে তিনি মাছের ব্যবসা করলেও বর্তমানে পুঁজির অভাবে শ্রমিকের কাজই বেছে নিয়েছেন। এদিকে রহনপুর পৌর মেয়র মতিউর রহমান খান বলেন, মরিয়ম-ফাতেমাদের পরিবারটি আগে ভালোই ছিল। তার বাবা আবদুল লতিফ মাছের ব্যবসা করত কিন্তু হঠাৎ মেয়েদের চিকিৎসার খরচ চালাতে গিয়ে পরিবারটি সর্বস্বান্ত হয়ে পড়েছে। এ ব্যাপারে গোমস্তাপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. মিজানুর রহমান জানান, বিষয়টির খোঁজ নিয়ে তাদের চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হবে।

সর্বশেষ খবর