শিরোনাম
প্রকাশ : ২ ডিসেম্বর, ২০২০ ১৪:১৩
প্রিন্ট করুন printer

ফরিদপুর পৌরসভা নির্বাচন; হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ের আভাস

কামরুজ্জামান সোহেল, ফরিদপুর:

ফরিদপুর পৌরসভা নির্বাচন; হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ের আভাস
সংগৃহীত ছবি

দীর্ঘ ৯ বছর পর আগামী ১০ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে ফরিদপুর পৌরসভা নির্বাচন। অন্যবারের তুলনায় এবারের নির্বাচনে যোগ হয়েছে ভিন্ন মাত্রা। ৯টি ওয়ার্ড নিয়ে গঠিত পৌরসভার সর্বশেষ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হলেও এবার ২৭টি ওয়ার্ড নিয়ে বর্ধিত পৌরসভার নির্বাচন হতে যাচ্ছে। ফরিদপুর পৌরসভাকে সিটি করর্পোরেশনে উন্নীত করতে ৯টি ওয়ার্ড থেকে ২৭টি ওয়ার্ডে উন্নিত করা হয়। কিন্তু সিটি করর্পোরেশন না হওয়াতে এবার বর্ধিত পৌরসভা হিসাবেই নির্বাচন হতে যাচ্ছে। 

সিটি করপোরেশন ঘোষণা না করে পৌরসভা নির্বাচন করায় গত বুধবার হাইকোর্টে মামলা দায়ের করেন বর্ধিত পৌরসভার জনৈক ভোটার আতিয়ার রহমান। তার আবেদনের প্রেক্ষিতে হাইকোর্ট ৬ মাসের জন্য ভোট স্থগিত ঘোষণা করে। পরবর্তীতে ১ ডিসেম্বর মঙ্গলবার নির্বাচন কমিশন হাইকোর্টের চেম্বার জজ আদালতে নির্বাচন স্থগিতের বিরুদ্ধে আপিল করে। সে আপিলে হাইকোর্টের চেম্বার জজ আদালত হাইকোর্টের দেয়া নির্বাচন স্থগিতের আদেশটি ৮ সপ্তাহের জন্য স্থগিত ঘোষনা করে। ফলে ১০ ডিসেম্বর নির্বাচন অনুষ্ঠানের বিষয়ে আর কোন বাঁধা নেই। 

নির্বাচনের তফশিল ঘোষণার পর থেকেই প্রচারনায় মাঠে নামেন মেয়র ও কাউন্সিলর প্রার্থীরা। মেয়র পদে আওয়ামী লীগ, বিএনপি, ইসলামী শাষনতন্ত্র আন্দোলন ও স্বতন্ত্র চারপ্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। আর কাউন্সিলর পদে ১৯৪ জন প্রার্থী ও সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর পদে ৫২ জন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। মেয়র পদে আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়ন পেয়েছেন জেলা আওয়ামী লীগের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক, সদর উপজেলার সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান অমিতাব বোস, বিএনপি থেকে মনোনয়ন পেয়েছেন মহিলা দলের কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক, সাবেক মন্ত্রী চৌধুরী কামাল ইবনে ইউসুফের মেয়ে নায়াব ইউসুফ আহমেদ, স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসাবে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছিলেন শহর আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি, বর্তমান মেয়র শেখ মাহতাব আলী মেথু এবং ইসলামী শাষনতন্ত্র আন্দোলনের হাফেজ আব্দুস সালাম। তবে, আওয়ামী লীগ প্রার্থীর সমর্থনে বর্তমান মেয়র ও স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী শেখ মাহতাব আলী মেথু নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ানোর ঘোষণা দিয়েছেন। ফলে মেয়র পদে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই হবে আওয়ামী লীগ ও বিএনপি প্রার্থীর মাঝে। নির্বাচনের প্রচার-প্রচারনা ছাপিয়ে ভোটারদের মাঝে একটি বিষয় বেশ আলোচনা চলছে, আর তা হলো, ভোট সুষ্ঠু হবে কিনা। এবারই প্রথম ফরিদপুর পৌরসভা নির্বাচনে ইভিএমএ ভোট গ্রহণ করা হবে। 

প্রতিক বরাদ্দের পর থেকেই প্রার্থীরা মাঠে নেমে ভোট প্রার্থনায় ব্যস্ত সময় পার করছেন। সকাল থেকে গভীর রাত পর্যন্ত প্রার্থীরা চালিয়ে যাচ্ছেন প্রচার-প্রচারণা। গোটা এলাকায় এখন ছেয়ে গেছে পোষ্টারে। মেয়র, কাউন্সিলর ও সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর প্রার্থীদের প্রচারনায় জমজমাট এখন পৌর এলাকা। প্রার্থীরা ভোটারদের মন জয় করতে নানা প্রতিশ্রুতি নিয়ে ছুটে যাচ্ছেন ভোটারদের দ্বারে দ্বারে। সময় কম থাকায় প্রার্থীরা রাত-দিন প্রচারণায় ব্যস্ত সময় পার করছেন। এবারের নির্বাচনে সৎ ও যোগ্য ব্যক্তিকে ভোট দিয়ে নির্বাচিত করতে চান সচেতন ভোটারেরা। 

২৭টি ওয়ার্ড নিয়ে গঠিত ফরিদপুর পৌরসভায় সর্বশেষ হালনাগাদ তালিকা অনুযায়ী মোট ভোটার সংখ্যা হচ্ছে ১ লাখ ৪৮ হাজার ৩শ ১৩ জন। এদের মধ্যে পুরুষ ভোটারের সংখ্যা ৭১ হাজার ৭শ ৮৬ জন এবং মহিলা ভোটারের সংখ্যা ৭৬ হাজার ৫শ ৭১ জন। 
 

বিডি প্রতিদিন/হিমেল


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর