২ সেপ্টেম্বর, ২০২১ ১৮:২০

বন্যা-ভাঙ্গন-বৃষ্টিতে নাকাল যমুনা পাড়ের মানুষ

সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি

বন্যা-ভাঙ্গন-বৃষ্টিতে নাকাল যমুনা পাড়ের মানুষ

বন্যার পানি বসতবাড়িতে থাকায় দুর্ভোগের শেষ নেই বন্যা কবলিতদের। বন্যা-বৃষ্টি-ভাঙ্গনে একেবারে নাকাল হয়ে পড়েছেন তারা। বন্যায় ঘরের টিন-বেড়া আসবাবপত্র নষ্টসহ ঘরের মাটি সরে যাওয়ায় ক্ষতির শিকার হয়েছেন তারা। তীব্র স্রোতের কারণে যমুনা অরক্ষিত অংশে ভাঙ্গন অব্যাহত থাকায় শতশত পরিবার নিঃস্ব হয়ে পড়ছে। 

চৌহালী, শাহজাদপুর ও এনায়েতপুরের বিভিন্ন পয়েন্টে ভাঙ্গন অব্যাহত থাকায় নির্ঘুম রাত কাটছে নদী তীরবর্তী মানুষের। দুর্যোগের মধ্যে আয় রোজগার না থাকায় এসব মানুষের মধ্যে চরম খাদ্য, ওষুধ ও শুকনো খাবারের সংকট দেখা দিয়েছে। দেখা দিয়েছে পানিবাহিত ডায়রিয়া ও হাত পায়ে ঘাসহ নানা রোগ। অনেক বসতভিটার চারপাশে পানি থাকায় শিশু-বয়োবৃদ্ধদের নিয়ে বন্দী জীবযাপন করছে মানুষ।

এছাড়াও যারা এখনো বাঁধের উপর আশ্রিত রয়েছে বৃষ্টি তাদের জীবনকে দুর্বিসহ করে তুলেছে। পলিথিন মুড়ে দিয়ে অনেকে রাত জেগে থাকছে। যেন কষ্টের শেষ নেই তাদের। সরকারিভাবে যে ১০ কেজি চাল সহায়তা দেয়া হয়েছে, তা এখনো অনেক পরিবার পায়নি। তাদের মধ্যে চরম অসন্তোষ বিরাজ করছে।  

চর মালসাপাড়া মহল্লার সোলায়মান হোসেন ও শিল্পী খাতুন জানান, বন্যায় ঘরবাড়ি প্রায় ৫ ফুট পানিতে তলিয়ে গেছে। ঘরের নিম্নাংশের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। শুধু আমার নয় আমার এলাকার শতাধিক মানুষের বসতবাড়ির একই অবস্থা।

বিডি প্রতিদিন/আবু জাফর

এই বিভাগের আরও খবর