শিরোনাম
প্রকাশ : শুক্রবার, ৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০ টা
আপলোড : ৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ২২:৫১

হজ মহব্বতে ইলাহির উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত

মুফতি আমজাদ হোসাইন

হজ মহব্বতে ইলাহির উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত

পবিত্র জিলহজ মাস প্রতি বছর আমাদের আল্লাহর রাহে আত্মত্যাগের কথা নতুন করে স্মরণ করিয়ে দেয়। বিশেষত মহান রাব্বুল আলামিন হজকে করে দিলেন ইসলামের পঞ্চ স্তম্ভের মধ্যে অন্যতম। কোরবানিকে করে দিলেন বান্দার ওপর ওয়াজিব। এ দুয়ের মাধ্যমে বান্দা মহব্বতে ইলাহীর উজ্জ্বল এক দৃষ্টান্ত প্রকাশ করে। আর পবিত্র হজ আল্লাহ-প্রেমের উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত স্থাপন করার মতোই একটি বড় আমল। আল্লাহতায়ালা তাঁর প্রায় সব আম্বিয়ায়ে কেরামের প্রতি এমন কিছু দায়িত্ব অপরিহার্য করে দিয়েছিলেন, এমন কঠিন পরীক্ষায় তাদের ফেলেছিলেন, যা অন্য কারও প্রতি অপরিহার্য ছিল না, অন্য কারও পক্ষে সে দায়িত্ব পালন করা, কিংবা সে পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হওয়ার কথা চিন্তাই করা যায় না। তবে আম্বিয়ায়ে কেরাম সম্পূর্ণ নিবেদিতপ্রাণ হয়ে, গভীর আল্লাহ-প্রেমের পরিচয় দিয়ে, কঠিন ত্যাগ স্বীকার করে (চরম মুজাহাদার মাধ্যমে) সে মহান দায়িত্ব পুঙ্খানুপুঙ্খরূপে পালন করেছেন। সব বাধা-বন্ধন উপেক্ষা করে, আল্লাহর হুকুমকে প্রাধান্য দিয়ে, সর্বাধিক প্রিয় জিনিসকে আল্লাহর রাহে উৎসর্গ করে সেই সুকঠিন পরীক্ষায় কৃতিত্বের সঙ্গে উত্তীর্ণ হয়েছিলেন। লাভ করেছিলেন মহান পরোয়ারদিগারের সন্তুষ্টি, নৈকট্য ও ভালোবাসা। মুসলিম মিল্লাতের পিতা হজরত ইবরাহীম (আ.) এমনতর অনেক দায়িত্ব ও পরীক্ষার সম্মুখীন হয়েছিলেন তার নববী জীবনে। প্রত্যেকটি পরীক্ষায়ই তিনি কৃতিত্বের সঙ্গে উত্তীর্ণ হওয়ার মহান মর্যাদা লাভ করেছেন। কেননা, হজরত ইবরাহীম (আ.) তো ছিলেন আল্লাহর মহব্বতে পাগলপারা। নিজেকে সম্পর্ণরূপে বিলিয়ে দিতে না পারলে সে যে কিছুতেই শান্তি পায় না। বরং এক অব্যক্ত বেদনা, অস্থিরতা আর অস্বস্তি, তাকে জ্বালিয়ে পুড়িয়ে মারে। পুত্র ইসমাঈল (আ.)ও পিতার থেকে কোনো অংশেই কম ছিলেন না। তাই তো তারা উভয়েই নিজেদের আল্লাহর রাহে উৎসর্গ করতে সামান্যতম কুণ্ঠাবোধ করেননি। হজরত ইবরাহীম ও হজরত ইসমাঈল (আ.) এর মনের কোরবানিটি মহান রব্বুল আলামিনের দরবারে খুবই পছন্দনীয় হয়েছে বিধায়, কোরবানিকে কেয়ামত পর্যন্ত বান্দার ওপর যাদের তৌফিক আছে তাদের ওপর ওয়াজিব করে দিয়েছেন।

প্রিয় পাঠক! পশু কোরবানি নতুন কোনো বিধান নয়, বরং এই বিধান হজরত আদম (আ.)-এর পুত্রদয় হাবিল ও কাবিলের কোরবানি থেকে শুরু হয়েছে। তবে আমাদের বর্তমান কোরবানির বিধান হজরত ইবরাহীম ও হজরত ইসমাঈল (আ.) থেকে শুরু হয়েছে। উদ্দেশ্য শুধুই আল্লাহর নৈকট্যতা অর্জন করা। বোঝা গেল কোরবানির মাধ্যমে একজন বান্দা আল্লাহর নৈকট্যতা হাসিল করতে পারে। তবে ইসলামের মৌলিক বিধানাবলির ওপর অবশ্যই জীবন পরিচালনা করতে হবে। ইবরাহীম (আ.) হজরত ইসমাইল (আ.) এবং হাজেরা (আ.) এই প্রেমিকত্রয়ের মাঝে রচিত প্রেমে আমরা উল্লিখিত বিষয়টির অনুপম দৃষ্টান্ত দেখতে পাই। হজরত ইবরাহীম (আ.) আল্লাহ প্রেমের তাড়নায়ই নবজাত শিশুপুত্র ইসমাঈল এবং সদ্য সন্তান প্রসবকারী স্ত্রী হজরত হাজেরা (আ.) কে জনমানবহীন মক্কার মরুবিয়াবানে একাকী রেখে গিয়েছিলেন। তদ্রূপ হজরত হাজেরা (আ.) আল্লাহ প্রেমকে প্রাধান্য দিয়ে মনুষ্য বসবাসের অযোগ্য সাফা-মারওয়া পাহাড়ের মাঝখানে প্রতিকূল পরিবেশে শিশুপুত্র নিয়ে অবস্থান করতে সন্তুষ্টচিত্তে রাজি হয়েছিলেন। এই প্রাণপ্রিয় শিশুপুত্র যখন কৈশোরে পৌঁছে তখন মহান স্রষ্টা হজরত ইবরাহীম (আ.)-কে স্বপ্নের মাধ্যমে নির্দেশ দেন তাকে কোরবানি করতে। স্বপ্নাদেশ পালন সম্পর্কে, পিতা-পুত্রের মতামত জানতে চাইলে কিশোর ইসমাঈল আল্লাহর রাহে সন্তুষ্টচিত্তে নিজেকে উৎসর্গ করতে প্রস্তুত হয়ে যান তাত্ক্ষণিকভাবে। উপেক্ষা করেন সব ইবলিসি প্ররোচনা-প্রপাগাণ্ডা। নাড়িছেঁড়া ধন ইসমাঈল (আ.)-কে আল্লাহর রাহে কোরবান হতে হাসিমুখে বিদায় জানান মহীয়সী মা হজরত হাজেরা (আ.)। সত্যিই, পিতা, মাতা ও পুত্রের উল্লিখিত সাহসী কর্মকাণ্ডগুলো তাদের আল্লাহ প্রেমে উন্মত্ততার বাস্তব নিদর্শন বহন করে। এর মাধ্যমে তারা তাদের নিঃস্বার্থ প্রেমের পরাকাষ্ঠা প্রদর্শনে সম্পূর্ণ কৃতকার্য হয়েছিলেন। আল্লাহর চোখে তাদের উক্ত ত্যাগী কর্মকাণ্ড অত্যন্ত প্রিয় হয়ে উঠল। শুধু কি তাই! তাদের এ আত্মোত্স্বর্গময়ী কর্ম আল্লাহর কাছে এত ভালো লাগল, এত পছন্দনীয় হলো যে, আল্লাহতায়ালা শেষ পর্যন্ত উম্মতে মুহাম্মদির সামর্থ্যবান ব্যক্তিদের ওপরও হজ ও কোরবানি অপরিহার্য করে দিলেন। প্রকৃতই, প্রভু-প্রেম ব্যতীত বান্দার এক মুহূর্তও এ পৃথিবীতে টিকে থাকা সম্ভব নয়। অনেক মানুষ আল্লাহর কাছে সব কিছু অর্পণ করে ইবাদতের মাধ্যমে পৌঁছে যায় আল্লাহ প্রেমের গহিন গভীরে। এখানেই মানুষের দাস এবং আল্লাহর ইবাদতের মাঝে ব্যবধান। মহান রাব্বুল আলামিন আমাদের সবকে হজ ও কোরবানির মাধ্যমে আল্লাহতায়ালার নৈকট্যতা হাসিল করার তৌফিক দান করুন।  আমিন।

     লেখক : মুহাদ্দিস, মুফাসসির ও খতিব বারিধারা ঢাকা।


আপনার মন্তব্য