Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : মঙ্গলবার, ১৪ মে, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৩ মে, ২০১৯ ২৩:১৪

জবাবদিহি শুধু সরকারের নয়, বিরোধীদেরও থাকতে হবে

বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী বীরউত্তম

জবাবদিহি শুধু সরকারের নয়, বিরোধীদেরও থাকতে হবে

চোখে অস্ত্রোপচার করেছি তাও দুই সপ্তাহ। বলতেই হবে অসাধারণ চমৎকার অস্ত্রোপচার। কোনো রকম পারিপার্শ্বিক উপসর্গ নেই, কোনো অতিরিক্ত কষ্ট নেই। চোখে ওষুধ দিতে দিতে জেরবার- এই যা কষ্ট। তাছাড়া অন্যকিছুতে কোনো অসুবিধা নেই। মাহে রমজানে তারাবি এবং নামাজ নষ্ট হোক এটা আমার কাম্য ছিল না। অস্ত্রোপচারের পর প্রথম শুনেছিলাম নিচে তাকানো যাবে না, মাথা নিচু করা যাবে না, গোসল করা যাবে না অথবা চোখে পানি লাগানো যাবে না। যে কারণে নামাজ পড়তে অজু করা নিয়ে সমস্যা। কিন্তু তবু চালিয়ে গেছি। ৫-৬ দিন আগে শুনলাম, অপারেশনের দিনও গোসল করতে অথবা চোখে পানি লাগাতে কোনো আপত্তি নেই। আপত্তি হলো পানির বিশুদ্ধতা নিয়ে। জীবাণুযুক্ত পানিতে যত আপত্তি, জীবাণুমুক্ত পানিতে নয়।। অধ্যাপক জাফর খালেদের আরপি ডা. সাইফুল ইসলামের পরামর্শ পানি ফুটিয়ে ঠা-া করে গোসল করতে কোনো আপত্তি নেই। ১৫ দিন পেরিয়ে গেছে। দু-এক দিন হলো মাথায় পানি দিয়েছি। তবে সেজদা দিয়ে নামাজ পড়া, মাথা নিচু করা নিয়ে যে সাবধান বাণী উচ্চারণ করেছিলেন সে ব্যাপারে এক মারাত্মক অভিজ্ঞতা অর্জন করেছি। চেয়ারে বসে না বুঝে অনেক ঝুকে সেজদা দিয়ে ২-৩ বার নামাজ পড়ার পরই দেখলাম দারুণ যন্ত্রণা, মাথা ছিঁড়ে যাচ্ছে চোখ বেরিয়ে যেতে চাচ্ছে। দুই দিন ভীষণ কষ্ট করেছি। তারপর কোনো রকমে আল্লাহর অশেষ দয়ায় আস্তে আস্তে কষ্ট কমেছে। এখন অনেকটাই ভালো।

দেশের সুনাম হোক দেশের লোকজন উৎসাহবোধ করুক এটা সব সময় চেয়ে এসেছি, এখনো কায়মনে চাই। ৮-১০ বছর আগে জ-িসে আক্রান্ত হয়ে যখন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে ছিলাম কতজন বলেছিলেন, ‘মরবেন নাকি, এখনো এখানে? সিঙ্গাপুর অথবা থাইল্যান্ড চলে যান। নিজে বাঁচলে বাপের নাম।’ হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ যেদিন দেখতে গিয়েছিলেন তার প্রথম কথা ছিল, ‘বঙ্গবীর আর এক মুহূর্ত নয়, বাঁচতে চাইলে সিঙ্গাপুর চলে যান।’ কিন্তু আমি যেতে পারিনি। এক. মন সায় দেয়নি, দুই. সিঙ্গাপুর গিয়ে চিকিৎসা করার সামর্থ্য ছিল না। অধ্যাপক এ বি এম আবদুল্লাহ চিকিৎসা করেছিলেন। এক মাস পর হাসপাতাল থেকে বাড়ি ফিরেছিলাম। অনেক বছর হয়ে গেল ভালোই আছি। বিলোরুবিন আগে যা ছিল তাই আছে ১.২। নিজের দেশ নিজেদের চিকিৎসক বড় ভালো লেগেছে। চোখের ছানিতে বহুদিন একটা মানসিক চাপ ছিল, অস্ত্রোপচার হয়ে যাওয়ায় সে চাপটা আর নেই, কেটে গেছে।

কয়েক পর্ব না লেখায় পাঠকরা বেশ উতালা হয়েছিলেন। তাই তারা যাতে চিন্তায় না পড়েন সে জন্য লিখছি। গতকাল ছিল বাবার ২০তম মৃত্যুবার্ষিকী। পবিত্র মাহে রমজানে কবরের পাশে মসজিদে ইফতার করেছি। গ্রামের লোকজনের সঙ্গে ইফতারে শরিক হয়ে খুবই ভালো লেগেছে। সন্তান হিসেবে বাবাকে পেয়েছিলাম অনেক দিন। আমার ৫০-৫২ বছরে বাবা চলে গেছেন। দীর্ঘ সময় বাবা-মা পাওয়া এক সৌভাগ্যবান সন্তান আমি। জীবনকালে কত কষ্ট করেছেন। বাবা অপাত্র থাকতেই দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় হঠাৎ করে দাদু আলাউদ্দিন সিদ্দিকী মারা যান। তার মৃত্যু আমাদের পরিবারকে এলোমেলো করে দেয়। সব থাকতেও চলেনি। আর্থিক কষ্ট না থাকলেও সচ্ছলতা ছিল না। জমিতে ফসল ফলাতে না পারলে জমিদারের তুন্দুলনাস্তি, আমাদেরও তেমন ছিল। মিলাদ শেষে ঘরে ফিরতে মনে হচ্ছিল এই তো সেদিন বাবাকে রেখে এলাম ছাতিহাটির পারিবারিক কবরে। দেখতে দেখতে ২০ বছর হয়ে গেল। মনটা ভালো লাগছিল না। সারা জীবন ছিলাম দেশের পাগল, নেতার পাগল। এখন যখন দেশের খুব একটা সম্ভাবনা দেখি না তখন মনটা বিষিয়ে যায়, খারাপ লাগে। আশা ছিল দেশে একটা সুস্থ সুন্দর মানুষের কাছে গ্রহণযোগ্য নির্বাচন হবে। সে আশায় ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্বে ঐক্যফ্রন্টে কৃষক শ্রমিক জনতা লীগ নিয়ে যোগ দিয়েছিলাম। তেমন কিছুই করতে পারলাম না। তবু কোথাও কোনোখানে ফাঁকি দিতে চেষ্টা করিনি। ঐক্যফ্রন্ট গঠিত হয়েছিল ১৩ অক্টোবর, কৃষক শ্রমিক জনতা লীগ তাতে যোগ দেয় ৫ নভেম্বর। একটা অবাধ সুন্দর নির্বাচন হোক এই ছিল আমার আশা, দলের প্রত্যাশা। ঐক্যফ্রন্টের ডাকা সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের সভায় গিয়েছিলাম। সেখানে শুধু দেশনেত্রী খালেদা আর তারেক রহমান। সেই উত্তাল জনসমুদ্রে বলেছিলাম, আমি বিএনপি করতে আসিনি, ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্বে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সভায় এসেছি। আপনারা কিছু সময়ের জন্য বিএনপি ভুলে যান। জাতির মুক্তির লক্ষ্যে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট হওয়ার চেষ্টা করুন। বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি আজ আর কোনো দল-গোষ্ঠী বা ব্যক্তির দাবি নয়। খালেদা জিয়ার মুক্তি এক জাতীয় দাবিতে পরিণত হয়েছে। তাকে যে ঠুনকো মামলায় সাজা দেওয়া হয়েছে দেশের মানুষ তা গ্রহণ করেনি। সরকারি আইন আদালতে তার শাস্তি হলেও জনতার আদালতে নিঃশর্ত মুক্তি পাবেন। তাই আপনারা জনতার আদালতে যান, জনতাকে উদ্বুদ্ধ করুন। কেউ শুনেছে, কেউ শুনেনি। তারপর গিয়েছিলাম, রাজশাহীর ঐতিহাসিক মাদ্রাসা মাঠে। রাজশাহীর ইতিহাসে কখনো অত লোক একত্র হয়েছিল কিনা বলতে পারব না। সেখানে দৃঢ় কণ্ঠে বলেছিলাম, গণতন্ত্রের জন্য, মা-বোনের সম্মান-সম্ভ্রমের জন্য সর্বোপরি সাধারণ মানুষের জানমালের গ্যারান্টি দিতে দেশ স্বাধীন হয়েছে, স্বাধীনতার নেতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। আমি যেমন তাকে নেতা মেনে মুক্তিযুদ্ধ করেছি, তেমনি বীরউত্তম জিয়াউর রহমানও করেছেন। তাই কিছু স্বার্থান্বেষী তাদের স্বার্থ চরিতার্থ করতে বঙ্গবন্ধু আর জিয়াউর রহমানকে নিয়ে যে দ্বন্দ্বের সৃষ্টি করেছে আমি আপ্রাণ চেষ্টা করব সে দ্বন্দ্ব গুচিয়ে দিতে। আল্লাহ আমাকে তৌফিক দিলে সে দ্বন্দ্ব আমরা গুচিয়ে দেব। মাঠভর্তি বিএনপি সমর্থকরা আমার সে বক্তব্যকে সমর্থন জানিয়ে ছিল। ফেরার পথে আওয়ামী লীগের অফিসের সামনে কয়েকজন আমায় গালাগাল করলে কেন তাদের গালি সেদিনও বুঝিনি, আজও বুঝি না। একজনের মুখে শুনেছিলাম। তার অভিযোগ ছিল, ‘আপনি বঙ্গবন্ধু আর জিয়াউর রহমানকে সমান করলেন?’ সমান না বড় কিংবা ছোট করার কোনো ইচ্ছে আমার নেই। যা সত্য তা বলতে এবং করতে পছন্দ করি। আমি বলেছিলাম, বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে আমি যেমন যুদ্ধ করেছি, বীরউত্তম জিয়াউর রহমানও ঠিক তেমনি করেছেন। মুক্তিযুদ্ধে আমাদের প্রকৃত নেতা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান- এ কথা বললে কোথায় সমান বা কেউ বড়-ছোট হয় আমি বুঝতে পারিনি। এরপর এলো নির্বাচন। এমন নির্বাচন পৃথিবী দেখেনি। এতে নির্বাচনের ক্ষতি হয়েছে, প্রাচীন রাজনৈতিক দল হিসেবে আওয়ামী লীগ এবং তার নেতা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন। ভোটের পবিত্রতা নষ্ট হয়েছে। জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট নির্বাচনী প্রহসনের সঙ্গে সঙ্গে তা প্রত্যাখ্যান করে এবং আবার নির্বাচন দাবি করেছিল- এটাই ছিল যথার্থ। মানুষও ভেবেছিল নির্বাচনের নামে যা হয়েছে তাতে দাঙ্গা হাঙ্গামা না করে আবার নির্বাচনের জন্য একটা প্রস্তুতি নেওয়াই ভালো। ৩০ ডিসেম্বর অসুস্থ নির্বাচনে বেশ কিছু মানুষের জীবনহানি ঘটেছে। সুবর্ণচরসহ কয়েক জায়গায় মা-বোনেরা সম্ভ্রম হারায়। জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের পক্ষ থেকে আমরা মাইজদীকোর্ট এবং হারাগাছে ঠিকই গেছি। কিন্তু সব জায়গায় যাইনি, যেতে পারিনি। যেটা জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের বিরাট ব্যর্থতা বা দুর্বলতা। নির্বাচন-পরবর্তী পাঁচ মাস রাজনৈতিক বন্ধ্যত্ব কেমন যেন এক গুমোট ভাবের সৃষ্টি করেছে। শুধু সরকার দেশবাসীর কাছে দায়বদ্ধ জবাবদিহি করবে আমরা করব না, বিরোধী দল করবে না তা হতে পারে না। জনগণ দেশের মালিক। তাদের কাছে আমরা সবাই দায়বদ্ধ। সবাইকে জবাবদিহি করতে হবে। এর কোনো বিকল্প নেই। কিন্তু মনে হয় আমরা সেদিকে তেমন কোনো খেয়াল করছি না। খেয়াল খুশিমতো যা খুশি তাই করছি। নির্বাচন প্রত্যাখ্যান করার কিছুদিনের মধ্যে গণফোরামের নেতা সুলতান মোহাম্মদ মনসুর শপথ নেওয়ার পাঁয়তারা করলে তাকে বহিষ্কারের হুমকি দেওয়া হলে তিনি সেটা উপেক্ষা করেই এক সময় শপথ নেন। কোনো প্রতিরোধ করা হলো না। এরপর আরেকজন মোকাব্বির খান, তাকে বহিষ্কারের কথা বলা হলো। তিনি পিছিয়ে গেলেন। কদিন পর আবার এগিয়ে এসে শপথ নিলে আমাদের নেতা সংবিধান প্রণেতা ড. কামাল হোসেন তাকে গেট আউট করলেন। তার কদিন পর গণফোরামের বিশেষ কাউন্সিলে মোকাব্বির আমাদের নেতার পাশে বসে মুচকি হাসলেন। মানুষ বিরক্ত, মানুষের মনে প্রশ্ন। আরেক দিকে বিএনপির এক নেতা সংসদ সদস্য হিসেবে শপথ নিলে বিএনপি তাকে বহিষ্কার করে। পরদিন আরও চারজন শপথ নিলে তাদের স্বাগত জানানো হয়। অথচ দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর শপথ নিলেন না। সাধারণ মানুষ এক মহা বিভ্রান্তিতে পড়ে গেল। রাস্তাঘাটে মুখ দেখানো যায় না- প্রশ্নের পর প্রশ্ন। কোনো উত্তর নেই। ফ্রন্ট যেখানে বলেছে, ৩০ তারিখের ভোট ২৯ তারিখেই হয়ে গেছে, যেখানে সংসদ অবৈধ, সেখানে ফ্রন্টের সদস্যরা বৈধ হয় কী করে? ভাত খেতে থালা থেকে ভাত পড়ার মতো ৮ জনকে আমরা রাখতে পারলাম না। সরকারি দল যদি দয়া করে ৮০ জনকে পাস করিয়ে দিত তাহলে এই নির্বাচনকে আমরা কী বলতাম? ২০১৪ সালের নির্বাচন যেটা ছিল দায়সারা, এবার তো তারও চেয়ে সীমাহীন দায়সারা। সেটাও বহাল তবিয়তে তার সময়কাল পার করছে। ২০১৮ সালের ৩০ ডিসেম্বরের নির্বাচনও কি তাহলে পার করবে? মানুষকে এভাবে আমরা মূল্যহীন অমানুষ করে ছাড়ব? নানা প্রশ্নে জর্জড়িত হয়ে শেষ পর্যন্ত ৯ মে এক বর্ধিত সভায় কৃষক শ্রমিক জনতা লীগ জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের শীর্ষ নেতাদের সামনে কয়েকটি অসংগতি তুলে ধরেছে। আগামী ৯ জুনের মধ্যে সেসব অসংগতি দূর না হলে কৃষক শ্রমিক জনতা লীগ ফ্রন্ট থেকে তাকে প্রত্যাহার করে নেবে। এ নিয়ে নানা মনির নানা মত। তারপরও আমরা দেশবাসীর কাছে স্বচ্ছ ও পরিষ্কার থাকতে আমাদের কথা নেতৃবৃন্দের সামনে তুলে ধরেছি। দেখা যাক, কথা দিয়ে কথা রাখার রাজনীতিতে আমরা আবার ফিরে যেতে পারি কিনা।

লেখক : রাজনীতিক।

www.ksjleague.com


আপনার মন্তব্য