শিরোনাম
প্রকাশ : বুধবার, ২৫ মার্চ, ২০২০ ০০:০০ টা
আপলোড : ২৫ মার্চ, ২০২০ ০০:০০

করোনাভাইরাসের জবানবন্দি

ড. মোহাম্মদ আবদুল মজিদ

করোনাভাইরাসের জবানবন্দি

আমি করোনাভাইরাস! আমাকে সবাই  নিদুভাইরাস শ্রেণির করোনাভাইরদা পরিবারভুক্ত করোনাভাইরিনা উপগোত্রের একটি সংক্রমণ ভাইরাস প্রজাতি বলে জানে। ল্যাটিন শব্দ করোনা থেকে আমার নাম রাখা হয়েছে যার অর্থ মুকুট। কারণ ইলেকট্রন অণুবীক্ষণ যন্ত্রে আমাকে দেখতে অনেকটা মুকুটের মতো। প্রথম দিকে মুরগির মধ্যে সংক্রামক ব্রঙ্কাইটিস ভাইরাস হিসেবে, পরে সাধারণ সর্দি-কাশিতে আক্রান্ত রোগীদের মধ্যে আমাকে পাওয়া  যায়। আজকাল ভাইরাস, ভাইরাল শব্দগুলো বেশ মুখে মুখে শোনা যায়। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমের কাছে ভাইরাস সম্প্রদায়ের তাই অশেষ কৃতজ্ঞতা। মুরগি মিলন, কানকাটা রমজানের মতো নানান নামে আমাকে শনাক্ত করা হয়, সর্বশেষ ২০১৯ সালে ‘নভেল করোনাভাইরাস’-এর ভিত্তিতে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা সদয় হয়ে আমার নামজারি করেছে ‘কভিড নাইন্টিন’ হিসেবে। ডিজিটাল যুগে ডাকনামকেও সাংকেতিককরণের সংস্কৃতি শুরু হয়েছে (যেমন থার্ড জেনারেশন- থ্রি জি, অ্যাকসেস টু ইনফরমেশনÑ এটুআই ইত্যাদি)।

এ মুহূর্তে বিশ্বের প্রায় ২০০ দেশে আমার উপস্থিতির পরিপ্রেক্ষিতে, আপনাদের এই স্ব^নামধন্য সমাজে আমার প্রাদুর্ভাব নিয়ে যেভাবে আমার চৌদ্দগুষ্টি উদ্ধারের চেষ্টা চলছে, যেভাবে আমি বিশ্বব্যাপী মহাভাবনার কারণ হয়ে দাঁড়াচ্ছি সে পরিপ্রেক্ষিতে আমার এ বিবৃতি। তবে বলে রাখা ভালো, ‘রিমান্ডে’ নিয়ে কোনো বিশেষ ধারায় আমাকে এ জবানবন্দি দিতে বাধ্য করা হয়নি। স্বেচ্ছায় সজ্ঞানে এ বক্তব্য দিতে আমি বরং নিজেকে দায়িত্বশীল মনে করেছি।

আপনারা জানেন, আমি আরএনএ ভাইরাসের মধ্যে সিনিয়র ও ক্রিটিকাল এবং এ মুহূর্তে ফেসবুক ও গুগল গংদের গণনায় বহুল উচ্চারিত। আমার দুই ফার্স্ট কাজিনÑ সার্স আর মার্স আমার জুনিয়র। ওরা আঞ্চলিক। আমার মতো বিশ্বব্যাপী আতঙ্ক সৃষ্টি ও আক্রমণ শানাতে পারেনি। পৃথিবীর প্রায় সব দেশ সফর আমার কর্মপরিকল্পনায় আছে। আমি সত্যিই দুঃখিত, আমার ভয়ে নাকি দেশে দেশে অনেক আয়োজন ‘পুনর্বিন্যাস’, সভা সম্মেলন সংক্ষিপ্ত, বড় বড়দের বিদেশ ভ্রমণ বাতিল, বর্ডার সিল, বিমান চলাচল বন্ধ হচ্ছে। আমার অপ্রতিরোধ্য অগ্রযাত্রা নাকি বিশ্ব অর্থনীতির জন্য অশনিসংকেত। আপনারা হয়তো জানেন না, এটা নিয়ে আমাদের মধ্যে ইতিমধ্যে গোপন দরকষাকষিও শুরু হয়েছে। এত দিন যারা বাণিজ্যযুদ্ধে ছিলেন তারা এখন আমার উৎস নিয়ে পরস্পর  দোষারোপে মেতে উঠছেন, যে আঞ্চলিক ফোরাম কমায় ছিলেন তারা এখন ভিডিও শীর্ষ সম্মেলনে, মুখ দেখাদেখি বন্ধ এমন অনেকে এখন পরস্পর সমর্থনের জিকির তুলছেন। কোনো কোনো  দেশে দুর্দান্ত আন্দোলন মাঠেই মারা যেতে চলেছে। আমার আশঙ্কা, অনেকে তাদের অব্যাহত অদক্ষতা, অপারগতা, অযোগ্যতা ও দুর্নীতি এমনকি ঋণ খেলাপের দায়ভার অজুহাত উপলক্ষ হিসেবে আমার ওপর চাপিয়ে পার পেয়ে যেতে চাইবেন, আমি নাকি এমন একটা ইস্যু হতে পেরেছি যা মাথাব্যথার মোক্ষম অনেক ব্যাপারস্যাপার থেকে অনেকের দৃষ্টি সরানোর সমূহ সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে। আমাকে মোকাবিলার নামে, আমার আবির্ভাবে জরুরি অবস্থা ঘোষণা ও প্রচুর আয়ব্যয়ের ব্যবস্থা করা হচ্ছে। আন্তর্জাতিক সংস্থা ও চিন্তা চৌবাচ্চারা ব্রেইন স্টর্মিংয়ের কাজ পেতে যাচ্ছে। আমি অধিকাংশের জন্য সর্বনাশ হলেও কতিপয়ের পৌষ মাস হতে চলেছি। এই কয়দিন আগে আপনারা দেখেছেন আমার দূরসম্পর্কের ভাই-ভাতিজা ডেঙ্গু ও চিকুনগুনিয়া এমনকি আপনাদের নিকট নিত্যব্যঞ্জন পিয়াজের কারণে কীভাবে আপনাদের পকেটের মানি লন্ডারড হয়েছে। শোনা যাচ্ছে চীনে চালু বিদেশি বন্ড ও কোম্পানির কাগজ (স্টক) ম্যানিপুলেট হয়ে এখন সব চীনার হাতে চলে গেছে। আমি বিলক্ষণ দেখতে পাচ্ছি আমার জন্য আপনাদের স্বাস্থ্য খাতে যতটা না ঝুঁকি তৈরি হবে তার চাইতে বড় বিপর্যয় ঘটবে ছোট ও মাঝারি খাতের আয়ব্যয়, ব্যবসা-বাণিজ্য, বিনিয়োগ উৎপাদন, পর্যটন, পরিসম্পদ অবকাঠামো নির্মাণ তথা সামষ্টিক আর্থিক খাতে। এসবের উপলক্ষ নাকি আমি। তাই আমার প্রথম মিনতি সবার কাছে  আমাকে অহেতুক ভয়ের হেতুতে পরিণত করবেন না, আপনাদের নিজেদের নির্দেশনামতো চলা, মেলামেশা, স্বভাব সংস্কারে সচেতন সতর্ক থাকলেই আমার অপ্রতিরোধ্য অগ্রযাত্রা প্রতিরোধ করা সম্ভব হবে, আমি খুশিমনে মিলিয়ে যাব। আমি ভুল বোঝাবুঝির শিকার হচ্ছি। আমার দুঃখ অন্য অনেক ব্যাপারের মতো আপনারা আমার আগমনের কারণ (কজ) বা উপলক্ষ জানা এবং তা থেকে শিক্ষা নেওয়া, অনুশোচনা, আত্মশুদ্ধি, উপলব্ধির পরিবর্তে শুধু অবস্থা-ব্যবস্থা নিয়ে, প্রতিক্রিয়া বা ফলাফল (ইফেক্ট) নিয়ে মাতামাতি করেন। দুঃখ এই, ইতিহাস থেকে কেউ শিক্ষা নিতে চায় না। অনেকে শিক্ষা নেওয়া দূরের কথা  ইতিহাসকে নিজের মতো বানিয়ে নিতেও কসুর করেন না। আপনারা আশা করি ইতিমধ্যে লক্ষ্য করেছেন, প্রায় শতবর্ষ পরপর, যেমন আমার পরদাদার দাদা প্লেগ ১৭২০ সালে, দাদার দাদা কলেরা ১৮২০ সালে, দাদার তালতো ভাই স্প্যানিশ ফ্লু ১৯২০ সালে এবং এবার ২০২০ সালে আমি করোনা জোরেশোরে আবির্ভূত হয়েছি। প্লেগ, কলেরা ও স্প্যানিশ ফ্লুতে লাখ লাখ লোকের প্রাণহানির রেকর্ড আছে। ভয় পাবেন না, কোনো কোনো ক্রিকেটারের মতো কারও রেকর্ড ভাঙার ইচ্ছা আমার নেই, তা ছাড়া সবকিছুর মধ্যে পলিটিক্স ঢুকিয়ে ভেদবুদ্ধির আশ্রয় নিয়ে ক্ষয়ক্ষতির ও সেবা সরবরাহে ধোঁয়াশে তথ্য পরিসংখ্যান পরিবেশনে পারঙ্গমতা বিশ্বব্যাপী প্রসারিত হচ্ছে। মিডিয়া ও সামাজিক মাধ্যমের অগ্রগামী ভূমিকার কথা বলা বহুল্য।

মহামারী আসলে অনেক বাড়াবাড়ির প্রতিফল। প্রকৃতির প্রতিশোধ। এটা অনস্বীকার্য যে, যে কোনো ক্ষেত্রে বাড়াবাড়ি  ভিন্নতর পরিস্থিতির উদ্ভব  ঘটায়। যেমন মাত্রা অতিক্রম  করলেই সাহস হঠকারিতায়, আত্মোৎসর্গ আত্মহত্যায়, প্রতিযোগিতা  হিংসায়, স্বৈরাচার অতিক্ষমতাবানে পরিণত  হতে পারে। অবস্থাবিশেষ সমালোচনা পরচর্চায়, প্রশংসা চাটুবাদে, তেজ ক্রোধে, দেশপ্রেম  দেশদ্রোহিতায় এবং অতিধর্মপ্রীতি  ধর্মান্ধতার  স্তরে  নেমে  আসতে  পারে। খাদ্য স্বভাব ও উপায় উপকরণ থেকে শুরু করে মৌলিক অধিকার অস্বীকৃতি, সুশাসন নির্বাসন, পারস্পরিক দোষারোপে জবাবদিহিবিহিনতায়, পরিবেশ দূষণ- দুষ্কর্মে সদাচার, সহমর্মিতার, সত্যম শিবম সুন্দরের  সআবস্থানের সুযোগ যখন হয় তিরোহিত, প্রতিবিধানে জাগতিক বা বাহ্যিক বিচারব্যবস্থা হয় অপারগ, তখন তার মতো প্রতিশোধ প্রতিবিধানের একটা পথ বেছে নেয় প্রকৃতি। আমিও তেমন এক প্রকার উপায় বা উপলক্ষ। তাবৎ ঐশী গ্রন্থে সৃষ্টিকর্তা স্মরণ করিয়ে দিয়েছেন যখন যে জনপদ, সম্প্রদায় নানানভাবে বাড়াবাড়ি করেছে স্বভাবে, বুদ্ধি ও বিচার বিবেচনায় তখন তাদের ওপর নিপতিত হয়েছে অশেষ দুর্ভোগ। উদ্ধত উ™£ান্ত অনেক জনপদকে উল্টিয়ে দেওয়ার উপমা টেনে, ফল ফসল ও জীবনের অশেষ ক্ষয়ক্ষতির দ্বারা অনুশোচনার উপলব্ধিকে করা হয়েছে জাগ্রত। সুতরাং আমাকে নয়, আমাদের সৃষ্টিকর্তাকে ভয় করা প্রয়োজন। অনুশোচনা, অনুতাপ থেকে মার্জনা প্রার্থনা, প্রকৃতির সম্পদ অপব্যবহার, সুযোগের অপপ্রয়োগ, অন্যের অধিকার  হরণের মতো আত্মবিধ্বংসী প্রবণতা থেকে ফিরে আসার অয়োময় প্রতিজ্ঞা আজকের একান্ত প্রত্যাশা।

আপনারা জানেন, প্রিভেনশন ইজ বেটার দ্যান কিউর। নিরাময়ের চাইতে প্রতিরোধই শ্রেয়। সুতরাং আতঙ্কিত না হয়ে আমাকে মোকাবিলায় সচেতনতাকে, পরামর্শমতো নিয়ন্ত্রিতভাবে চলাচলে আপনি নিজে যেমন সুরক্ষা পাবেন অন্যকেও তেমন বিপদমুক্ত রাখতে পারবেন। সময়ের প্রয়োজনে আমার সংক্রমণ পদ্ধতিটি জটিলতর হতেই হয়েছে। আমি সহজ হলে তো এত দিনে আমাকে বুড়ো আঙ্গুল দেখাতে পারতেন। আমার প্রতিষেধক ভ্যাকসিন যিনি বা যারা আবিষ্কার করবেন তাদের নোবেল পুরস্কার পাওয়ার সম্ভাবনার জন্য অগ্রিম অভিনন্দন ও শুভ কামনা রইল।

পরিশেষে আপনাদের জন্য কিছু দাওয়াই দিয়ে যেতে চাই। মনে রাখবেন, করোনায় আক্রান্ত হওয়ার প্রাথমিক লক্ষণ : জ্বর, অবসাদ, শুষ্ক কাশি, শ্বাসকষ্ট, গলাব্যথা, কিছু রোগীর ক্ষেত্রে উপরোক্ত সব উপসর্গ দেখা গেলেও জ্বর থাকে না। আক্রান্তদের নির্দিষ্ট চিকিৎসা বা প্রতিষেধক নেই। তবে আক্রান্ত হলেও আপনি সেরে উঠতে পারেন। শুধু শ্বাসতন্ত্রের মাধ্যমে বাহিত হয়ে মারাত্মক সংক্রমণ তৈরি হলে কারও মৃত্যু হতে পারে। আপনি আক্রান্ত কিনা নিজেই নিজের পরীক্ষা করতে পারেনÑ লম্বা একটা শ্বাস নিয়ে তা ১০ সেকেন্ড ধরে রাখুন। যদি এই সময়ের মাঝে আপনার কাশি ও বুকে ব্যথা অনুভব না হয় তা হলে আপনি করোনামুক্ত ও সুস্থ আছেন। সব কর্তৃপক্ষের উচিত সম্ভাব্য সবাইকে শনাক্তকরণের পরীক্ষা পদ্ধতি প্রক্রিয়া সহজসাধ্য বা নাগালের মধ্যে আনা। মনে রাখবেন, বাতাসে নয়, মাটিতে অবস্থান করে বলেই করোনা বাতাসে ছড়ায় না। কোনো ধাতব তলে বা বস্তুতে করোনা পড়লে প্রায় ১২ ঘণ্টা জীবিত থাকতে পারে। তাই সাবান দিয়ে হাত ধুলেই যথেষ্ট হবে। কাপড়ে করোনা প্রায় ৯ ঘণ্টা জীবিত থাকতে পারে। তাই কাপড় ধুয়ে নিলে বা রোদে ২ ঘণ্টা থাকলে এটি মারা যাবে। হাতে বা ত্বকে করোনা  ১০ মিনিটের মতো জীবিত থাকতে পারে। তাই অ্যালকোহল-মিশ্রিত জীবাণুনাশক, সাবান হাতে মেখে নিলেই জীবাণুটি মারা যাবে। করোনা গরম আবহাওয়ায় বাঁচে না। ২৭০ সেলসিয়াস তাপমাত্রা এটিকে মারতে পারে। কাজেই ভালো না লাগলেও এখন বেশি বেশি গরম পানি পান করবেন, আইসক্রিম থেকে দূরত্ব বজায় রাখবেন। লবণমিশ্রিত গরম পানি দিয়ে গড়গড়া করলে গলার মিউকাস পরিষ্কার হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে টনসিলের জীবাণুসহ করোনাও দূর হবে, ফুসফুস সংক্রমিত হবে না। আক্রান্ত হয়েছেন জানলে অন্তত ১৫ মিনিট পরপর পানি পান করুন। মানে খাদ্যনালি ভেজা রাখুন। ভাইরাসটি কোনোভাবে মুখের ভিতর এলে তা পানির সঙ্গে পাকস্থলিতে চলে যাবে; যা পাকস্থলির অ্যাসিডে সহজেই মরে যাবে। আর নাকে-মুখে আঙ্গুল বা হাত দেওয়ার অভ্যাস পরিত্যাগ করতে হবে। কারণ, মানবশরীরে জীবাণু প্রবেশের সদর দরজা হলো নাক-মুখ-চোখ!

 

লেখক : সরকারের সাবেক সচিব, এনবিআরের সাবেক চেয়ারম্যান।


আপনার মন্তব্য