শিরোনাম
প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ২ এপ্রিল, ২০২০ ০০:০০ টা
আপলোড : ১ এপ্রিল, ২০২০ ২৩:১৬

ভাইরাস ডায়রি ২

তসলিমা নাসরিন

ভাইরাস ডায়রি ২

মার্চ ২৯

আমরা কি আবার আমাদের সেই আগের জীবন ফিরে পাবো? পাবো না। পৃথিবী কি আগের মতোই আবার...? না। কিছুই আর আগের মতো নেই। পৃথিবী বদলে গেছে, আমাদেরও বদলে দিয়েছে। কিন্তু এইভাবে লকডাউন করে কতদিন কাটাতে পারবো আমরা? বেশি দিন নয়। এইভাবে হাত ধুয়ে ধুয়ে, মাস্ক পরে পরে, মানুষকে কমপক্ষে সাড়ে তিন ফুট দূরে রেখে রেখে কত দিন ভাইরাসের নাগাল থেকে দূরে থাকতে পারবো? বেশি দিন নয়। করোনা আমাদের সবাইকেই একদিন না একদিন ধরবেই। কারও রেহাই নেই। করোনার কবল থেকে কেউ বেঁচে ফিরবে, কেউ ফিরবে না।

আমরা সবাই অপেক্ষা করছি ভ্যাক্সিনের। তাই না? বিজ্ঞানীরা বলেছেন ভাক্সিন আসতে ১৮ মাস লাগবে। আমরা কি ভেবে নিচ্ছি ১৮ মাস পর ৭০০ কোটি লোক ভ্যাক্সিন পেয়ে যাবো? মোটেও না। প্রডাকশানে সময় নেবে। ধরা যাক ৭০ লাখ ভ্যাক্সিন একদিনে তৈরি হলো। তাহলে ৭০০ কোটি লোকের জন্য ভ্যাক্সিন বানাতে ১০০০ দিন লাগবে। ১০০০ দিন মানে কিন্তু প্রায় ৩ বছর। তো এখন থেকে ১৮ মাসকে যোগ করে সেটি দাঁড়ায় ৪ বছর। যতদিন না ভ্যাক্সিন পাচ্ছি, আমরা কেউ কি ভাইরাসকে পাশ কাটিয়ে যেতে পারবো? আমার মনে হয় না। অনেক বিজ্ঞানীও মনে করেন না। তাঁরা মনে করেন পৃথিবীর সবাই এই ভাইরাসে আক্রান্ত হবে, কেউ কেউ মনে করেন, সবাই না হলেও ৮০ ভাগ মানুষ আক্রান্ত হবে।

সোজা কথা মৃত্যু আসছে। আমরা যারা রিস্ক গ্রুপের তাদের কাছে খুব দ্রুত আসছে। মৃত্যু নিয়ে হাহাকার না করে বরং যে কটা দিন পাচ্ছি, তাকে কাজে লাগানো বুদ্ধিমানের কাজ। প্রতিটি দিনকে যেন ভেবে নিই এ আমার শেষ দিন।

 

মার্চ ৩০

মাঝে মাঝে মনে হয় আমি হয়তো ঘুমিয়ে আছি, পৃথিবীতে যা ঘটছে, তা ঘটছে আমার স্বপ্নের মধ্যে। ঘুম ভাঙলেই দেখবো সবকিছু আগের মতোই আছে।

মার্চ ৩১

১৯২৬ সালে হরিয়ানার মিওয়াট অঞ্চলে মোহাম্মদ ইলিয়াস নামের এক লোক তাবলিগ জামাত শুরু করেছিল। ভারতে পৃথিবীর সবচেয়ে বড় মাদ্রাসা দেওবন্দের জন্ম। ইসলামের প্রচারে প্রসারে ভারতের ভূমিকা বিরাট।

তাবলিগ জামাত এখন পৃথিবীতে এত ছড়িয়ে গেছে যে ১৫০টা দেশ থেকে প্রায় কয়েক কোটি লোক এতে অংশ নেয়। ফেব্রুয়ারির ২৭ তারিখে ৪ দিনব্যাপী তাবলিগ জামাতের সম্মেলন হলো মালয়েশিয়ায়। ১৬০০০ লোক অংশগ্রহণ করেছিল। ১৫০০ ছিল বিদেশি। ভারত, পাকিস্তান আর বাংলাদেশের লোক তো ছিলই, চীন থেকে, দক্ষিণ কোরিয়া থেকে আসা লোকও ছিল। মালয়েশিয়ার দুই তৃতীয়াংশ করোনা রোগীর ভাইরাস এসেছে ওই তাবলিগ জামাত থেকে। এই খবরগুলো চারদিকে প্রচার হওয়ার পরও তাবলিগ জামাত দিল্লিতে সম্মেলন করার অনুমতি পেয়ে যায় কী করে জানি না। এখন দিল্লিতে নানান দেশের তাবলিগি গুলো ভাইরাস ছড়িয়েছে। কত হাজার লোককে যে ওরা সংক্রামিত করেছে তার কোনও হিসেব আছে? তারা কি জানে না করোনার কারণে সারা বিশ্বের মানুষ গণহারে মারা পড়ছে? তাদের কি জমায়েত বন্ধ করা উচিত ছিল না? সামান্য বোধশক্তি কি তাদের নেই? তবলিগিরা জেনে বুঝে ভাইরাস ছড়ায়নি। কিন্তু অজ্ঞানতার অন্ধকারে লোকগুলো এমন ডুবে আছে যে বিশ্বময় যে মহামারি লেগেছে, তা নিয়ে এতটুকু দুশ্চিন্তা নেই। এ সময় তাদের ধর্মীয় সভা করাটা ছিল মানবতার জন্য হুমকি।

সৌদি আরবকে স্যালুট দিই। কাবা বন্ধ করে দিতে এতটুকু দ্বিধা করেনি। উমরাহ বন্ধ করেছে। নবীর রওজা শরিফ দর্শন বন্ধ করেছে, মসজিদ বন্ধ করেছে। ভারতে এখনও অনেক মসজিদ খোলা। লোকেরা নামাজ পড়তে মসজিদে ভিড় করে। লকডাউন মানছে না, সোশ্যাল ডিস্ট্যান্সিং মানছে না। ভারতের একটুখানি সৌদি আরবের মতো হওয়া দরকার।

উজবেকিস্তান, কাজাকস্তান, তাজিকিস্তানÑ এই দেশগুলোয় কিন্তু তাবলিগ জামাত নিষিদ্ধ। তাবলিগ হাদিস কোরান যেভাবে বলে, সেভাবে চলে। ১৪০০ বছর আগে মানুষ যেভাবে জীবনযাপন করত, সেভাবে জীবনযাপন করে। আক্ষরিক অর্থেই মৌলবাদী। যে দেশ আধুনিক হতে চায়, সে দেশ মৌলবাদী আন্দোলনকে প্রশ্রয় দেয় না। আল কায়দার মতো সন্ত্রাসী দল তাবলিগের আইডি ব্যবহার করে সন্ত্রাসের উদ্দেশে এক দেশ থেকে আরেক দেশে ভ্রমণ করেছে। তারা কি সমাজের কোনও উপকার করছে? প্রগতির বিরুদ্ধে গিয়ে সমাজকে পেছনে টেনে রাখলে উপকার নয়, অপকার হয় মানুষের। যত্র তত্র ভাইরাস ছড়িয়ে কত নিরীহ মানুষের মৃত্যুর কারণ হয়েছে। কী ভয়ংকর অপকারই না ওরা করলো মানবজাতির!

কখনো ধর্ম পালনের ভ্রান্তি মানুষকে স্বার্থপর, নিষ্ঠুর, হিংসুক বানায়, খুব বোকাও বানায়। না হয় বুঝলাম ওরা বোকা। সরকার কী করে শুরু থেকে বিমান যাত্রা চালু রেখেছিল, সেই সব দেশেও দিব্যি বিমান যাওয়া আসা করেছে যেসব দেশে ভাইরাস দাবানলের মতো ছড়িয়ে পড়েছে। সময়মতো উচিত কাজটি করা হয়নি বলে শত শত তাজা জীবন আজ অকালে ঝরে পড়ছে।

এপ্রিল ১

এই যে লকডাউনে রয়েছি গোটা দেশ, কী লাভ যদি দেশের বাইরে থেকে নিশ্চিন্তে ভাইরাস বাহক দেশে চলে আসে, গোটা দেশে ঘুরে বেড়ায়, হাজার হাজার মানুষের সংস্পর্শে আসে! লকডাউন শেষ পর্যন্ত কোনও কাজেই লাগলো না। মালয়েশিয়ার তবলিগ জামাতে অংশ নিয়ে বাংলাদেশের মানুষ তো ফিরে গেছে দেশে, তাদের কি কোয়ারান্টাইন করা হয়েছিল? নিশ্চয়ই হয়নি।

খুব দুঃখজনক এই যে, ধর্মান্ধ লোকেরা কিছুতেই নিজেদের সওয়াব, স্বার্থ, নিজেদের আখের গোছানো ছাড়া পৃথিবীর সমস্যা, মানব জাতির হাহাকারের দিকে ফিরে তাকায় না। ইহজগত নিয়ে তারা ভাবে না, তারা পরকাল এবং অলৌকিকতা নিয়ে ঘোরের মধ্যে থাকে, আর জান্নাতবাসী হওয়ার জন্য যা কিছু করা দরকার বলে মনে করে তা যে করে হোক করে, বিধর্মীকে বা কাফেরকে খুন করে হলেও করে। তারা যুক্তিবাদী লোকদের আনা গণতন্ত্র ভোগ করে, সংগ্রাম করে অর্জন করা বাক স্বাধীনতা ভোগ করে, স্বাস্থ্যসেবা চিকিৎসা ভোগ করে, উদারতা মানবতা ইত্যাদি সভ্য সমাজের গুণগুলি ভোগ করে আর ক্রমাগতই মানুষের মগজধোলাই করে চলে অনুদারতা, অযুক্তি, অবিজ্ঞান দিয়ে। এভাবেই চলছে, কোনও সরকার ওদের বাধা দেয় না।

দিল্লির ধর্মীয় সভা থেকে প্রচুর লোক শরীরে ভাইরাস নিয়ে ফিরে গেছে ভারতের সর্বত্র, কাশ্মীর থেকে কন্যাকুমারী। তারা আত্মীয়স্বজন বন্ধু পরিচিত সবার মধ্যে ছড়িয়েছে এই ভাইরাস। হিন্দু ধর্মান্ধরা গোমূত্র পানের পার্টি করছে, গোমূত্র পান করে করোনা থেকে মুক্তি পেতে চাইছে, সারা গায়ে গোবর লেপে বসে আছে করোনা কাছে আসতে পারবে না এই বিশ্বাস নিয়ে। তথাকথিত ধার্মিকদের যুক্তিবুদ্ধিহীনতা অসহ্য হয়ে ওঠে, বিশেষ করে এই মহামারির সময়।

লক্ষ করছি গণতান্ত্রিক দেশগুলোয় করোনাভাইরাস তেমনভাবে রোধ করা সম্ভব হচ্ছে না। আমেরিকাও ঠিকঠাক লকডাউন করতে পারছে না। আমেরিকায় ভয়ঙ্করভাবে আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে। চীন কিন্তু ঠিকঠাক পেরেছিল। অগণতান্ত্রিক দেশেই তাহলে সম্ভব হচ্ছে মহামারি রোধ করা। চীনে তো সম্ভব হতো না মড়ক চলাকালীন তাবলিগ জামাতের মতো কোনও ধর্মীয় সভা করা! সৌদি আরবেও সম্ভব হতো না। শুধু এই ভারতীয় উপমহাদেশই সব সম্ভবের দেশ।

                লেখক : নির্বাসিত লেখিকা।


আপনার মন্তব্য