শিরোনাম
রবিবার, ১৮ ডিসেম্বর, ২০২২ ০০:০০ টা

শৈত্যপ্রবাহ

গরিবদের পাশে দাঁড়াতে হবে

দেরিতে হলেও এ বছর শীত এসেছে এবং শুরুতেই মৃদু শৈত্যপ্রবাহ অনুভূত হচ্ছে চুয়াডাঙ্গা ও রাজশাহীসহ বিভিন্ন জেলায়। বঙ্গোপসাগরে লঘুচাপ থাকায় এ বছর শীতের প্রভাব দেরিতে অনুভূত হয়েছে। লঘুচাপ কমে যাওয়ায় উত্তরাঞ্চলসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে মৃদু শৈত্যপ্রবাহে জনজীবন স্তব্ধ হয়ে পড়ছে। বৃহস্পতিবার ও শুক্রবার টানা দুই দিন দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড হয়েছে চুয়াডাঙ্গায়। দেশের উত্তরাঞ্চলেও দেখা দিয়েছে তীব্র শীত। ঘন কুয়াশায় ঢাকা থাকছে প্রকৃতি। শুক্রবার সকাল ৯টায় জেলার তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয় ৯ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস। আগের দিন বৃহস্পতিবার তাপমাত্রা ছিল ১১ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস। তাপমাত্রা কম এবং উত্তরের হিমেল হাওয়ার প্রভাবে চুয়াডাঙ্গা ও আশপাশ অঞ্চলে বেশি শীত অনুভূত   হচ্ছে। সকালের দিকে সূর্যের দেখা মিলছে দেরিতে। ফলে ভোগান্তিতে পড়ছেন এ অঞ্চলের নিম্ন আয়ের মানুষ। শুক্রবার পৌষের প্রথম দিনে ঈশ্বরদীতে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড হয়েছে ১০ দশমিক ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস, যা এ বছর শীত মৌসুমের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা। আগের দিন বৃহস্পতিবার ঈশ্বরদীর সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ১২ দশমিক ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস। ঘন কুয়াশার চাদরে ঢাকা পড়েছে রংপুর। সেই সঙ্গে বইছে উত্তরের হিমেল হাওয়া। শীতে বিপাকে পড়েছেন দিনমজুররা। শীতে গরম কাপড়ের অভাবে কষ্ট পাচ্ছে গরিব মানুষ। শীতের প্রকোপে নিউমোনিয়াসহ শীতজনিত রোগের বিস্তার ঘটছে। বৃদ্ধ ও শিশুদের জন্য তীব্র শীত অস্বস্তি ডেকে আনছে। শীতে প্রতিবছর বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান, রাজনৈতিক দল এবং নেতাদের পক্ষ থেকে শীতবস্ত্র বিতরণ শুরু হয়।  অন্য বছর এ সময় তাদের তৎপরতা বেশি লক্ষ্য করা গেলেও এ বছর শীত দেরিতে আসায় তোড়জোড় কম।  আবহাওয়া বিশেষজ্ঞদের মতে, আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে তাপমাত্রা আরও কমবে। বাড়বে গরিব মানুষের কষ্ট। তার আগে শীতবস্ত্র বিতরণ হলে শীতার্তদের দুর্ভোগ কিছুটা হলেও কমবে।

 

এই রকম আরও টপিক

সর্বশেষ খবর