Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : শনিবার, ৯ নভেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ৮ নভেম্বর, ২০১৯ ২৩:১৮

পঞ্চগড়ে সড়কে গেল নবদম্পতিসহ ৭ প্রাণ

পঞ্চগড় প্রতিনিধি

পঞ্চগড়ে সড়কে গেল নবদম্পতিসহ ৭ প্রাণ

পঞ্চগড়ে ইজিবাইক ও যাত্রীবাহী বাসের ভয়াবহ মুখোমুখি সংঘর্ষে নবদম্পতিসহ সাতজন নিহত হয়েছেন। গতকাল দুপুর দেড়টার দিকে সদর উপজেলার মাগুরমারী এলাকায় পঞ্চগড়-তেঁতুলিয়া মহাসড়কে এই দুর্ঘটনায় ঘটনাস্থলেই পাঁচজন নিহত হন। আর দুজনকে গুরুতর অবস্থায় পঞ্চগড় সদর হাসপাতালে নেওয়ার পথে একজন এবং চিকিৎসাধীন অবস্থায় আরেকজন নিহত হয়েছেন। নিহতরা হলেন  তেঁতুলিয়ার মাঝিপাড়ার নবদম্পতি লাবু ইসলাম (২৭) এবং তার স্ত্রী মুক্তি। তারা দুজনে আত্মীয়র বাড়ি বেড়াতে যাচ্ছিলেন। অন্যরা হলেন সদর উপজেলার সাহেব জোত গ্রামের আকবর আলী (৭০) ও তার স্ত্রী নুরিমা বেগম (৫৭), রায়পাড়ার মাফুর ইসলাম (৪৫), তেঁতুলিয়া মাঝিপাড়ার ফরহাদ হোসেন (৪৫),  চেকরমারীর রফিকুল ইসলাম (২৮) ও সুরিভিটার নারগিস আক্তার (৪৫)। পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, পঞ্চগড় শহর থেকে যাত্রীবাহী বাস তেঁতুলিয়া যাচ্ছিল। সদর উপজেলার মাগুরমারী এলাকায় যাত্রী বোঝাই ইজিবাইককে চাপা দিলে দুমড়ে-মুচড়ে তা বাসের নিচে চলে যায়। ঘটনার পর স্থানীয়রা মহাসড়ক বন্ধ করে দেয় এবং ক্ষুব্ধ হয়ে পঞ্চগড় সদর হাসপাতালের অ্যাম্বুলেন্স ভাঙচুর করে। প্রত্যক্ষদর্শীদের অভিযোগ হাইওয়ে পুলিশ ধাওয়া করায় ইজিবাইকটি উল্টো দিকে মোড় নিলে বাসটির সঙ্গে মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এ সময় নবদম্পতিসহ পাঁচজন ঘটনাস্থলেই নিহত হন। দুজনকে গুরুতর অবস্থায় পঞ্চগড় আধুনিক সদর হাসপাতালে নেওয়ার পথে একজন মারা যান। পরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান আরেকজন। বিক্ষুব্ধ জনতাকে নিয়ন্ত্রণে রাখতে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়। তেঁতুলিয়া উপজেলার শ্রমিক নেতা মুক্তারুল হক মুকু জানান, ঘটনাস্থলে প্রতিনিয়ত ভজনপুর হাইওয়ে পুলিশ মোটরযান আটকে কাগজপত্র দেখে। ইজিবাইকটির কাগজপত্র দেখার জন্য থামাতে বললে চালক উল্টো দিকে মোড় নেয়। এ সময় বাসটির সঙ্গে মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এ ব্যাপারে পুলিশ সুপার মোহাম্মদ ইউসুফ আলী বলেন, হাইওয়ে পুলিশের ধাওয়ার বিষয়টি সত্যি নয়। স্থানীয়রা আবেগবসত এমন অভিযোগ করেছেন। তারপরও ঘটনা খতিয়ে দেখা হবে। জেলা প্রশাসক সাবিনা ইয়াসমিন জানান, এ ঘটনায় মামলা দায়েরের প্রক্রিয়া চলছে। স্থানীয়দের অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে একটি তদন্ত কমিটি গঠনের আশ্বাস দেন তিনি।

গাইবান্ধায় লেগুনা চালক নিহত, আহত ১৫ : গাইবান্ধা প্রতিনিধি জানান, জেলার পলাশবাড়ীতে ঢাকা-রংপুর মহাসড়কের মহেশপুরে যাত্রীবাহী বাসের ধাক্কায় একটি লেগুনা ছিটকে খাদে পড়ে যায়। আর বাসটি সড়কের কাছে উল্টে পড়ে। এতে লেগুনাচালক আরিফ মিয়া (১৯) নিহত ও বাসের অন্তত ১৫ যাত্রী আহত হয়েছেন। নিহত আরিফ মিয়া সাদুল্লাপুরের ধাপেরহাট ইউনিয়নের তিলকপাড়া গ্রামের সঞ্জু মিয়ার ছেলে। গোবিন্দগঞ্জ হাইওয়ে থানার ওসি আবদুল কাদের জিলানী জানান, আরিফ ধাপেরহাট থেকে লেগুনা নিয়ে পলাশবাড়ী যাচ্ছিলেন। পথে ওই এলাকায় রংপুরগামী হানিফ এন্টারপ্রাইজের যাত্রীবাহী  কোচ লেগুনাটিকে ধাক্কা দেয়। এতে লেগুনাটি ছিটকে মহাসড়কের পাশে খাদে ও বাসটি সড়কের কাছে উল্টে পড়ে। ঘটনাস্থলেই চালক আরিফ মারা যান। লাশ উদ্ধার করে স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। ঘাতক বাসটি আটক করা হলেও তার চালক এবং সহকারী পালিয়ে গেছেন। এ নিয়ে থানায় মামলা হয়েছে।

হাতীবান্ধায় মোটরসাইকেল আরোহী নিহত : লালমনিরহাট প্রতিনিধি জানান, হাতীবান্ধায় ট্রাকচাপায় খায়রুল ইসলাম (৩৫) এক মোটরসাইকেল আরোহী নিহত হয়েছেন। বৃহস্পতিবার  দিনগত রাত সাড়ে ১০টার দিকে বুড়িমারী মহাসড়কের সিংগিমারী শস্যগুদাম এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। নিহত খায়রুল পাটগ্রাম উপজেলার জোংড়া ইউনিয়নের মোমিনপুর গ্রামের আমির আলীর ছেলে। স্থানীয়রা জানান, রংপুর থেকে মোটরসাইকেলে বাড়ি ফিরছিলেন খায়রুল ইসলাম। এ সময় সিংগিমারী শস্যগুদাম এলাকায় পৌঁছলে বিপরীত দিক থেকে আসা লালমনিরহাটগামী পণ্যবোঝাই একটি ট্রাক তাকে চাপা দেয়। ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়।

কেরানীগঞ্জে পিতা-পুত্র নিহত : নিজস্ব প্রতিবেদক জানান, ঢাকার কেরানীগঞ্জের রুহিতপুরে গতকাল বেলা ২টায় ট্রাকের ধাক্কায় মোটরসাইকেলে থাকা আসাদুল হক ইপু (৪০) ও তার ৬ বছরের ছেলে সোহানের মৃত্যু হয়েছে। একই ঘটনায় আহত হয়েছেন সোহানের মা রেশমা (৩০)। রাজধানীর সায়েদাবাদ করাতিটোলায় ইপুর বাসা। তিনি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে চাকরি করতেন।  ঢামেক সূত্র জানায়, আসাদুল হক ইপু তার স্ত্রী-সন্তানকে নিয়ে নবাবগঞ্জের বাগমারা গ্রামের বাড়িতে যাচ্ছিলেন। পথে রোহিতপুর কুড়াহাটি পৌঁছামাত্র একটি ট্রাক তাদের মোটরসাইকেলটিকে পেছন থেকে ধাক্কা দেয়। তখন তারা তিনজনই ছিটকে পড়েন। দুর্ঘটনায় ইপু ও শিশুসন্তান সোহানের মাথায় গুরুতর আঘাত লাগে। তাদের উদ্ধার করে পথচারীরা ঢাকা মেডিকেলে নিয়ে গেলে বিকাল সোয়া ৩টার দিকে কর্তব্য চিকিৎসক বাবা-ছেলেকে মৃত ঘোষণা করেন। কেরানীগঞ্জ মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা শাকের মোহাম্মদ জুবায়ের জানান, ঘটনার পরপরই ট্রাকটি জব্দ করা হয়েছে। তবে চালক পালিয়ে গেছেন। এদিকে গতকাল দুপুরে রাজধানীর শাহজাহানপুরে পুলিশের গাড়ির ধাক্কায় আবদুস ছাত্তার (৫০) ও শহর আলী (৪৮) নামে দুই রিকশাচালক আহত হয়েছেন। পরে তাদের ঢামেক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পুলিশের দাবি বলাকা পরিবহনের একটি বাস তাদের গাড়িকে ধাক্কা দিলে তা রিকশায় গিয়ে আঘাত লাগে। জানা যায়, ওই দুই রিকশাচালক শাহজাহানপুর পীরজঙ্গি মাজারের সামনে যাত্রীর জন্য অপেক্ষায় ছিলেন। এমন সময় পুলিশের একটি গাড়ি তাদের ওপর তুলে দেয়।          


আপনার মন্তব্য