শিরোনাম
প্রকাশ : মঙ্গলবার, ৭ জানুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ টা
আপলোড : ৬ জানুয়ারি, ২০২০ ২৩:৩৩

তৃতীয় মেয়াদে সরকারের ১ বছর পূর্তি

দৃশ্যমান উন্নয়ন হলেও পিছু ছাড়েনি অনিয়ম-দুর্নীতি

মানিক মুনতাসির

দৃশ্যমান উন্নয়ন হলেও পিছু ছাড়েনি অনিয়ম-দুর্নীতি

দুর্নীতির বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স-একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে এটি ছিল আওয়ামী লীগের নির্বাচনী ইশতেহারের অন্যতম প্রতিশ্রুতি। তৃতীয় মেয়াদে সরকার গঠনের পর প্রথম বছরের মাঝামাঝি এসে মোটাদাগে দুর্নীতি ও ক্যাসিনোর বিরুদ্ধে অভিযান চালিয়ে সেই প্রতিশ্রুতি রক্ষার কথা জানিয়ে দিয়েছে শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন আওয়ামী লীগ সরকার। নির্বাচনী ইশতেহারে আরও প্রতিশ্রুতি ছিল আইনের শাসন ও মানবাধিকারের সুরক্ষা; সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ ও মাদক নির্মূল; স্থানীয় সরকারকে শক্তিশালীকরণ; অবকাঠামোগত ব্যাপক উন্নয়ন; প্রতিটি গ্রামকে আধুনিক নগরসুবিধার আওতায় নিয়ে আসা; নারীর ক্ষমতায়ন; দারিদ্র্য বিমোচন ও বৈষম্য হ্রাস; কৃষি, খাদ্য ও পুষ্টি নিশ্চিত করে খাদ্যনিরাপত্তা অর্জনের।

এর সঙ্গে গত দুই মেয়াদে দেওয়া অন্য প্রতিশ্রুতিগুলো ধারাবাহিকভাবে রক্ষা করাও ছিল সরকারের তৃতীয় মেয়াদের অন্যতম প্রতিশ্রুতি। এসব প্রতিশ্রুতির অনেক ক্ষেত্রে সরকার সাফল্যের মুখ দেখেছে। আবার কিছু ক্ষেত্রে সরকারের ব্যর্থতা ছিল চোখে পড়ার মতো। বিশেষ করে এই মেয়াদের প্রথম বছরে পিয়াজের মূল্য বৃদ্ধিতে সরকার ছিল বিব্রত। কোরবানির চামড়ার ন্যায্য মূল্য নিশ্চিত করতে না পারায় আলোচনা-সমালোচনা ছিল। তবে আশার কথা হচ্ছে, আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন মহাজোট সরকারের প্রথম মেয়াদে দেওয়া নির্বাচনী প্রতিশ্রুতির অনেকগুলো বৃহৎ প্রকল্পের বাস্তবায়নে দৃশ্যমান অগ্রগতি হয়েছে। পদ্মা সেতুর সার্বিক অগ্রগতি ৭৩ শতাংশ, ঢাকার প্রথম মেট্রোরেল প্রকল্পের অগ্রগতি ৪০ শতাংশ, কর্ণফুলী টানেলের অগ্রগতি ৪৯ শতাংশ, রামপাল বিদ্যুৎ কেন্দ্রের ৪১ দশমিক ২১ শতাংশ, পায়রা গভীর সমুদ্রবন্দরের ৫৬ দশমিক ৬৪ শতাংশ, পদ্মা সেতুতে রেল সংযোগ প্রকল্পের ১৭ দশমিক ১৫ শতাংশ, মাতারবাড়ী বিদ্যুৎ প্রকল্পের ২৬ দশমিক ৭২ শতাংশ এবং দোহাজারী-ঘুমধুম পর্যন্ত রেল সংযোগ প্রকল্পের অগ্রগতি হয়েছে ২৯ শতাংশ। অন্যদিকে ‘আমার গ্রাম-আমার শহর’ গড়ার যে প্রতিশ্রুতি সেটি এখন পর্যন্ত দৃশ্যমান নয়। একইভাবে প্রথম বছরের শেষ দিকে এসে ব্যবসা-বাণিজ্যে এক ধরনের মন্দা দেখা গেছে। ব্যাংক খাতে এখনো সুশাসন প্রতিষ্ঠা করা যায়নি। সামষ্টিক অর্থনীতিতে স্থিতিশীলতা ধরে রাখার ক্ষেত্রেও সরকার কিছুটা পিছিয়ে। তবে কর্মসংস্থানের ক্ষেত্রে সরকারের প্রতিশ্রুতি উল্লেখ করার মতো। যদিও প্রতি ঘরে ঘরে চাকরি এখনো নিশ্চিত করা যায়নি। অন্যদিকে সরকার তার বর্তমান মেয়াদের প্রথম বছরে দারিদ্র্য বিমোচনে সফলতা পেলেও বৈষম্য কমানোর ক্ষেত্রে এখনো পিছিয়ে। স্থানীয় সরকারে নিয়মিত নির্বাচন দিয়ে সেটিকে সচল ও সক্রিয় রাখার ধারাবাহিকতা রক্ষা করার চেষ্টা অব্যাহত আছে। দক্ষ, সেবামুখী ও জবাবদিহিমূলক প্রশাসনের কাক্সিক্ষত লক্ষ্যে পৌঁছতে না পারলেও সরকারের চেষ্টা অব্যাহত আছে। সব মিলিয়ে আওয়ামী লীগ সরকারের তৃতীয় মেয়াদের প্রথম বছর কেটেছে ভালো-মন্দে। এদিকে বিশেষজ্ঞরা বলছেন, নির্বাচনী ইশতেহারের প্রধান দিকগুলোর মধ্যে ছিল দুর্নীতির বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স নীতি গ্রহণ। কিন্তু গত এক বছরে দেশের বিভিন্ন খাতে অনিয়ম-দুর্নীতি কমেনি। বরং কোনো কোনো ক্ষেত্রে তা বেড়েছে। প্রশাসনেও কাজের গতি খুব একটা বাড়েনি। বলা যায় প্রশাসনের কর্মকর্তারা রুটিনওয়ার্ক করে বছর কাটিয়েছেন। তবে ক্যাসিনোবিরোধী অভিযান সর্বস্তরের মানুষের কাছে প্রশংসা কুড়িয়েছে। কেননা এই দুর্নীতিবিরোধী অভিযানে নিজ দলের সহযোগী সংগঠনের একাধিক শীর্ষ নেতাকে পর্যন্ত রেহাই দেওয়া হয়নি। ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ পৌঁছে দেওয়ার ক্ষেত্রেও সরকার অনেকটা সফল হয়েছে। নির্বাচনী অঙ্গীকার অনুযায়ী প্রতিটি পরিবারে একজনকে চাকরি দেওয়ার কথা থাকলেও কর্মসংস্থান সৃষ্টিতে সরকার খুব একটা সফলতা দেখাতে পারেনি গত এক বছরে। বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর খসড়া হিসাবমতে, গত এক বছরে প্রায় ২৬ লাখ মানুষ কর্মক্ষম হলেও সরকারি-বেসরকারিভাবে কর্মসংস্থান হয়েছে মাত্র ১০ লাখ মানুষের। স্থায়ী কর্মসংস্থানে খুব একটা আশানুরূপ প্রবৃদ্ধি না হলেও অস্থায়ী কর্মসংস্থান, বিকল্প কর্মসংস্থান এবং কর্মমুখী শিক্ষার প্রসারের মাধ্যমে কর্মক্ষম মানুষ আর শ্রমশক্তিকে কাজে লাগানোর চেষ্টা করেছে সরকার। একইভাবে প্রবাসী আয়, আমদানি, স্থানীয় বিনিয়োগ, বিশেষ করে সরকারি বিনিয়োগ, মূল্যস্ফীতির চাপ নিয়ন্ত্রণ, বাজেট বাস্তবায়ন, রাজস্ব আদায়সহ সব কটি সূচকে টানা কয়েক বছর ঈর্ষণীয় সাফল্য দেখিয়েছে বাংলাদেশ। কিন্তু চলতি বছরের শেষ দিকে এসে একমাত্র প্রবাসী আয় ছাড়া সামষ্টিক অর্থনীতির সবগুলো সূচকই নেতিবাচক ধারায় চলে গেছে। আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা ও মানবাধিকার সুরক্ষাকে সর্বাধিক গুরুত্ব প্রদানের প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল আওয়ামী লীগ। সে অনুযায়ী আলোচিত কয়েকটি হত্যাকান্ড ও জঙ্গি হামলা মামলার রায় ঘোষণা করা হয়েছে। উল্লেখ্য, ২০১৮ সালের ৩০ ডিসেম্বর নির্বাচনে জয়ের মধ্য দিয়ে টানা তৃতীয়বারের মতো সরকার গঠন করে আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন জোট সরকার। বিদায়ী বছরের ৭ জানুয়ারি শপথ নেন নতুন সংসদ সদস্যরা। এ হিসেবে ৩০ ডিসেম্বর নির্বাচনের এবং আজ ৭ জানুয়ারি সরকারের বর্ষপূর্তি হতে যাচ্ছে। আর এ উপলক্ষে ৭ জানুয়ারি জাতির উদ্দেশে ভাষণে বিস্তারিত তুলে ধরবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

মেগা প্রকল্প : নির্বাচনী অঙ্গীকারের মধ্যে অন্যতম ছিল দেশকে উন্নয়নের শীর্ষে নিয়ে যাওয়া। সে অনুযায়ী স্বপ্নের পদ্মা সেতু প্রকল্প মাথাচাড়া দিয়ে উঠেছে পদ্মার বুক চিরে। ইতিমধ্যে এই প্রকল্পের ৭৩ শতাংশ কাজ শেষ হয়েছে। রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের অগ্রগতি সাড়ে ১৮ শতাংশ। মেট্রোরেল লাইন-৬-এর কাজ এগিয়েছে ৪০ শতাংশ। এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ের কাজ প্রায় অর্ধেক এগিয়েছে। কর্ণফুলী টানেলের কাজের ব্যাপক অগ্রগতি সাধিত হয়েছে গত এক বছরে। এ ছাড়া সরকারের আলোচিত উন্নয়ন প্রকল্পগুলোর মধ্যে রামপাল বিদ্যুৎ কেন্দ্রের ৪১ দশমিক ২১ শতাংশ, পায়রা গভীর সমুদ্রবন্দরের ৫৬ দশমিক ৬৪ শতাংশ, পদ্মা সেতুতে রেল সংযোগ প্রকল্পের ১৭ দশমিক ১৫ শতাংশ, মাতারবাড়ী বিদ্যুৎ প্রকল্পের ২৬ দশমিক ৭২ শতাংশ এবং দোহাজারী-ঘুমধুম পর্যন্ত রেল সংযোগ প্রকল্পের অগ্রগতি হয়েছে ২৯ শতাংশ।

দুর্নীতি ও ক্যাসিনোবিরোধী অভিযান : তৃতীয় মেয়াদে সরকার গঠনের আগে আওয়ামী লীগের নির্বাচিত ইশতেহারে দুর্নীতিবিরোধী কঠোর অবস্থানের বার্তা দেওয়া হয়েছিল। ঘোষণা দেওয়া হয়েছিল নির্বাচিত হলে দুর্নীতির বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্সের (শূন্য সহনীয়) নীতি গ্রহণ করা হবে। বছরের মাঝামাঝিতে হলেও তা ক্যাসিনোবিরোধী অভিযানের মাধ্যমে সে প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়ন করেছে আওয়ামী লীগ সরকার। কেননা এ অভিযানে নিজ দলের সহযোগী সংগঠনের শীর্ষ নেতাদেরও ছাড় দেওয়া হয়নি।

আলোচিত সড়ক পরিবহন আইনের বাস্তবায়ন : দুই বছর আগে নিরাপদ সড়কের দাবিতে শিক্ষার্থীদের আন্দোলনে দেশের মানুষের প্রত্যাশা ছিল একটি যুগোপযোগী সড়ক আইন প্রণয়ন ও বাস্তবায়ন। এরপর পরিবহন শ্রমিকদের আন্দোলনসহ নানা প্রতিবন্ধকতা পেরিয়ে আইনটি সংসদে পাস হলেও বাস্তবায়ন বিলম্বিত হচ্ছিল। শত প্রতিবন্ধকতা উপেক্ষা করে সে কঠোর আইন বিদায়ী বছরে বাস্তবায়ন শুরু করা হয়েছে। এই আইনের পুরোপুরি বাস্তবায়ন করতে পারলে সড়কে শৃঙ্খলা ফিরে আসার পাশাশি সড়ক দুর্ঘটনার সংখ্যাও কমে আসবে বলে আশা করা হচ্ছে।

হোলি আর্টিজানের ঘটনায় সাত জঙ্গির ফাঁসির আদেশ : জঙ্গি ও সন্ত্রাস দমনকে অগ্রাধিকার দেওয়াও ছিল একটি নির্বাচনী অঙ্গীকার। সে অঙ্গীকার রক্ষায় রাজধানীর গুলশানের হোলি আর্টিজান রেস্তোরাঁয় বর্বরোচিত জঙ্গি হামলা মামলায় সাতজনকে গত বছরের ২৭ নভেম্বর মৃত্যুদন্ড দেন ঢাকার সন্ত্রাসবিরোধী বিশেষ ট্রাইব্যুনাল। ২০১৬ সালের ১ জুলাই রাতে গুলশানের হোলি আর্টিজান রেস্তোরাঁয় হামলা চালিয়ে বিদেশি নাগরিকসহ ২০ জনকে হত্যা করে জঙ্গিরা। তাদের গুলিতে দুই পুলিশ কর্মকর্তাও নিহত হন। পরে অভিযানে পাঁচ জঙ্গি নিহত হন।

নুসরাত হত্যায় সব আসামির ফাঁসির আদেশ : আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা প্রতিশ্রুতির অংশ হিসেবে ২৪ অক্টোবর ফেনীর সোনাগাজীর আলোচিত মাদ্রাসাছাত্রী নুসরাত জাহান রাফি হত্যা মামলার রায়ে অধ্যক্ষ সিরাজ-উদ-দৌলাসহ ১৬ জনের মৃত্যুদন্ড দিয়েছেন ফেনীর নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল। ২৭ মার্চ সোনাগাজী ইসলামিয়া ফাজিল (ডিগ্রি) মাদ্রাসার অধ্যক্ষ সিরাজ-উদ-দৌলা নিজ কক্ষে ডেকে নিয়ে নুসরাতের শ্লীলতাহানি করেন। এর প্রতিবাদ করলে পরে অধ্যক্ষের নির্দেশে নিজের সহপাঠীরা তাকে গায়ে কেরোসিন ঢেলে আগুন ধরিয়ে হত্যা করে।

এ ছাড়া ক্ষয়িষ্ণু ব্যাংক খাতের অনিয়ম বন্ধে বিশেষজ্ঞ কমিটি গঠন করা হয়েছে। ৩ নভেম্বর ব্যাংক খাতের ঋণ অনুমোদন ও আদায়ে দুর্বলতা খুঁজে বের করে এর প্রতিকারে সুপারিশ করার জন্য ৯ সদস্যের একটি কমিটি গঠন করতে বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রতি নির্দেশ দিয়েছে হাই কোর্ট।

দারিদ্র্য বিমোচনে এতগুলো সুষম উন্নয়ন স্বপ্নই রয়ে গেল : নির্বাচনী প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী দেশের দারিদ্র্য বিমোচনে গত এক বছরে উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি হয়েছে। উচ্চ অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির ধারাও চলমান রয়েছে। তবে ইশতেহার অনুযায়ী সুষম উন্নয়নের মাধ্যমে সমতাভিত্তিক সমাজ গঠনের যে প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল সরকার, তা বাস্তবায়নে বারবার হোঁচট খেয়েছে গত বছর। বিদায়ী বছরে যতটা না অর্থনৈতিক উন্নয়ন হয়েছে, এর চেয়ে বেশি বেড়েছে আয়বৈষম্য। সেই সঙ্গে দেশের কোনো কোনো অঞ্চলে বেড়েছে দারিদ্র্যের হারও।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর