শিরোনাম
প্রকাশ : সোমবার, ১৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ২৩:১০

বাড়ি ফেরাদের সতর্ক থাকতে হবে আরও দশ দিন

করোনাভাইরাসে মৃত্যু বেড়ে ১৬৬৯

নিজস্ব প্রতিবেদক

বাড়ি ফেরাদের সতর্ক থাকতে হবে আরও দশ দিন
জ্বর, সর্দি ও বুকে ব্যথায় আক্রান্ত এক চীনা নাগরিককে গতকাল রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে করোনা ইউনিটে ভর্তি করা হয়েছে -বাংলাদেশ প্রতিদিন

করোনাভাইরাস প্রাদুর্ভাবের মধ্যে চীনের উহান থেকে দেশে ফেরা ৩১২ জন দুই সপ্তাহ পর্যবেক্ষণ শেষে বাড়ি ফিরে গেছেন। কিন্তু তাদের আরও ১০ দিন বাড়তি সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে। এদিকে সিঙ্গাপুরে আরও এক বাংলাদেশি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। এ নিয়ে বাংলাদেশি আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৫ জনে। পাশাপাশি এ ভাইরাসে চীনসহ বিভিন্ন দেশে এ পর্যন্ত মারা গেছেন ১ হাজার ৬৬৯ জন।

গতকাল এক সংবাদ সম্মেলনে সরকারের রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান-আইইডিসিআরের পরিচালক অধ্যাপক ডা. মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা বলেন, ‘চীন থেকে ফেরা ৩১২ জনের সবাই সুস্থ আছেন। কোয়ারেন্টিন (পর্যবেক্ষণ) শেষ করা কারও মধ্যে করোনাভাইরাসের লক্ষণ বা উপসর্গ ছিল না। তাদের মধ্যে করোনাভাইরাস নেই- এ রকম ছাড়পত্র দেওয়ার পর সবাই বাড়ি ফিরে গেছেন। তারপরও ‘অতিরিক্ত সতর্কতা’ হিসেবে তাদের আরও ১০ দিন নজরে রাখা হবে। তারা যেন জনসমাগম এড়িয়ে চলেন। খুব বেশি প্রয়োজন না হলে তারা যেন বাড়িতে অবস্থান করেন। বাড়ির বাইরে গেলেও মাস্ক ব্যবহার করবেন।’ গত ১ ফেব্রুয়ারি বিশেষ বিমানে করে ৩১২ জন বাংলাদেশিকে উহান থেকে ফিরিয়ে আনা হয়। তাদের মধ্যে ৩০১ জনকে আশকোনার হজ ক্যাম্পে কোয়ারেন্টিনে রাখা হয়। বাকি ১১ জনকে রাখা হয় ঢাকার সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে। দুই সপ্তাহ পর্যবেক্ষণ শেষে গত শনিবার স্বাস্থ্য পরীক্ষা করে তাদের সবাইকে বাড়ি ফিরে যাওয়ার অনুমতি দেওয়া হয়। ‘অতিরিক্ত সতর্কতা’ হিসেবে তাদের ‘কন্ডিশনাল রিলিজ’ দেওয়া হয়েছে জানিয়ে আইইডিসিআর পরিচালক বলেন, আগামী ১০ দিনের মধ্যে তাদের শরীরে কোনো লক্ষণ বা উপসর্গ দেখা দিলে আইইডিসিআরকে সঙ্গে সঙ্গে জানাতে হবে। সেজন্য তাদের যোগাযোগের ফোন নম্বর, ঠিকানাসহ সব তথ্য রেখে দিয়েছে আইইডিসিআর। তারা যে যেখানে থাকবেন, সেখানকার সিভিল সার্জন বা স্বাস্থ্য অধিদফতরের পক্ষ থেকে নিয়মিত যোগাযোগ করা হবে। আইইডিসিআরের সঙ্গে যোগাযোগের সব নম্বরও তাদের দিয়ে দেওয়া হয়েছে বলে জানান অধ্যাপক ফ্লোরা। ২৪ দিন নজরদারির কারণ ব্যাখ্যা করে তিনি বলেন, আইইডিসিআর সবকিছুই বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার পরামর্শ অনুযায়ী করছে। অতিরিক্ত সতর্কতা হিসেবেই আইইডিসিআর ২৪ দিনের বিষয়টিতে গুরুত্ব দিচ্ছে। তিনি জানান, চীনের হুবেই প্রদেশের উহান নগরীতে করোনাভাইরাসের প্রথম সংক্রমণ ধরা পড়ে। এ ভাইরাস এরই মধ্যে ছড়িয়ে পড়েছে ২৫ দেশে, মৃত্যু হয়েছে ১ হাজার ৬৬৯ জনের। সিঙ্গাপুরে আরও এক বাংলাদেশি আক্রান্ত : সিঙ্গাপুরে আরও একজন বাংলাদেশি কভিড-১৯ রোগে অর্থাৎ নতুন করোনাভাইরাস আক্রান্ত হয়েছেন। এ নিয়ে মোট পাঁচ বাংলাদেশি আক্রান্ত হলেন। আরও পাঁচজন কোয়ারেন্টাইনে আছেন। সিঙ্গাপুরে মোট ৭২ জন কভিড রোগী চিকিৎসাধীন।

স্বাস্থ্য পরীক্ষা করাতে রংপুর মেডিকেলে চীনা নাগরিক : জ্বর, সর্দি ও বুকে ব্যথা নিয়ে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে (রমেক) এক চীনা নাগরিক ভর্তি হয়েছেন। তাকে হাসপাতালের আইসোলেশন ওয়ার্ডের করোনা ইউনিটে ভর্তি করা হয়েছে। রমেক হাসপাতালের সহকারী পরিচালক ডা. রোস্তম আলী জানান, ওই চীনা নাগরিককে নিবিড় পর্যবেক্ষণে রাখা হয়েছে। আইইডিসিআর থেকে তার নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য নিয়ে যাবে। এবার তাইওয়ানে মৃত্যু : চীনের মূল ভূখন্ডে ছড়িয়ে পড়া প্রাণঘাতী নতুন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে প্রতিবেশী তাইওয়ানে প্রথম একজনের মৃত্যু হয়েছে। দ্বীপদেশটির স্বাস্থ্যমন্ত্রী চেন শিহ-চুং গতকাল এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানিয়েছেন। তিনি বলেন, ষাটের কোঠায় থাকা বৃদ্ধ ওই ব্যক্তির আগে থেকেই ডায়াবেটিস ও হেপাটাইটিস ‘বি’তে আক্রান্ত ছিলেন।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর