শিরোনাম
প্রকাশ : মঙ্গলবার, ১৫ জুন, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৪ জুন, ২০২১ ২৩:৫৩

দেওবন্দ নয়, হেফাজতের সবাই তালেবানের অনুসারী

নিজস্ব প্রতিবেদক

দেওবন্দ নয়, হেফাজতের সবাই তালেবানের অনুসারী
Google News

ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেনন বলেছেন, কওমি মাদরাসাকে শিক্ষার মূলধারায় নিয়ে আসার বিষয়ে সংসদে বলেছিলাম। আমাদের খেয়াল রাখতে হবে, আমরা ‘বিষবৃক্ষ’ লালন করছি কি না। তার প্রতিক্রিয়ায় হেফাজত মিছিল করে আমার ফাঁসি চেয়েছে। এই সংসদে জাতীয় পার্টির এমপি আমি ‘ধান ভানতে শিবের গীত’ গেয়েছি বলে উপহাস করেছিলেন। স্বয়ং প্রধানমন্ত্রী হেফাজতের সমর্থনে তাদের ভারতের দেওবন্দের অনুসারী বলে বর্ণনা করেছিলেন। বাবুনগরী পাকিস্তানি মাদরাসার ছাত্র। ইজাহার হুজির সদস্য ‘আফগান যুদ্ধফেরত তালেবান’। ব্রাহ্মণবাড়িয়ার তান্ডবের নায়ক সাজাদ্দুর রহমান, মোবারক মোল্লা সবাই তালেবান অনুসারী। আমরা বাংলাদেশে আরেকটি তালেবানি অভ্যুত্থান দেখতে চাই কি না, তা দেখার বিষয়। কিন্তু বাস্তবতা বলে, দেওবন্দ নয়, হেফাজতের সবাই তালেবানের অনুসারী।

স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে গতকাল সংসদের বাজেট অধিবেশনে ২০২১-২২ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটের ওপর সাধারণ আলোচনায় অংশ নিয়ে তিনি এসব কথা বলেন। মেনন বলেন, স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে আমরা হেফাজতের তান্ডব দেখেছি। দেখেছি কীভাবে তারা কওমি মাদরাসার ছাত্রদের ব্যবহার করে একটা অভ্যুত্থান ঘটাতে চেয়েছিল। তারা যে বিএনপির সমর্থন পেয়েছিল, এটা এখন দলের মহাসচিবের কথায় স্পষ্ট। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে বাংলাদেশের জোটভুক্তির বিরোধিতা করে ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি বলেন, মার্কিন অথবা অন্য কারও নেতৃত্বাধীন জোটে যোগদান, আমাদের সংবিধান সমর্থন করে না। আর যুক্তরাষ্ট্র যার বন্ধু, তার শত্রুর প্রয়োজন নেই। বাংলাদেশের পাসপোর্ট থেকে ইসরায়েল ভ্রমণে নিষেধাজ্ঞা তুলে নেওয়ার বিষয়টি প্যালেস্টাইন সম্পর্কে বাংলাদেশে বঙ্গবন্ধুর আমল থেকে অনুসৃত নীতির বিপরীত। ভুল বার্তা দেয়। পররাষ্ট্রনীতির ব্যাপারে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় কীভাবে সিদ্ধান্ত নেয়, সেই ব্যাখ্যা তাদের দিতে হবে। ওয়ার্কার্স পার্টির তরফ থেকে প্যালেস্টাইনের স্বাধীন অস্তিত্বের পক্ষে অবস্থান পুনর্ব্যক্ত করছি।

গার্ড অব অনার নিয়ে সংসদীয় কমিটির সুপারিশের সমালোচনা করে মেনন বলেন, মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক সংসদীয় কমিটি মুক্তিযোদ্ধাদের গার্ড অব অনার দেওয়ায় নারী কর্মকর্তাদের না রাখতে বলেছেন। এটা নাকি ধর্মবিরোধী কাজ। জানাজায় মহিলারা অংশগ্রহণ করতে পারেন না বলে ফতোয়াও দিয়েছে। এই ফতোয়া দেওয়ার যোগ্যতা তারা রাখেন না। মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রীকে বলব, এই বিষয়ে যেন কোনোরকম সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা না হয়। এটা হলে তা হবে মুক্তিযুদ্ধের অবমাননা এবং মুক্তিযুদ্ধের চেতনাবিরোধী কাজ। তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ বাস্তবায়িত হচ্ছে না। স্বাস্থ্য খাতে ব্যাপক অনিয়ম। করোনার টিকা আসার অনিশ্চয়তা নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করে বলেন, দেশের ১২ কোটি মানুষের জন্য টিকার ব্যবস্থা করতে না পারলে করোনা সংক্রমণ রোধ হবে না। 

এই বিভাগের আরও খবর