শিরোনাম
শনিবার, ৪ ডিসেম্বর, ২০২১ ০০:০০ টা

বিচারহীনতা, জীবন মূল্যায়ন না করা দুর্ঘটনার কারণ

-সৈয়দা রিজওয়ানা হাসান

বিচারহীনতা, জীবন মূল্যায়ন না করা দুর্ঘটনার কারণ

‘সবচেয়ে বড় কথা এদেশে মানুষের জীবন কোনো মূল্যবান কিছু বলে বিবেচিত হয় না। যদি তাই হতো তাহলে বাংলাদেশ রোড ট্রান্সপোর্ট অথরিটির (বিআরটিএ) মতো প্রতিষ্ঠান থাকার পরও কীভাবে একের পর এক লাইন্সেসবিহীন ও ফিটনেসবিহীন গাড়িচালক গাড়ি চালাচ্ছে। প্রতিকারহীনতা, বিচারহীনতা এবং মানুষের জীবনকে মূল্যায়ন করতে না পারা হচ্ছে    অব্যাহত সড়ক দুর্ঘটনার কারণ।’ 

বাংলাদেশ পরিবেশ আইনজীবী সমিতির (বেলা) প্রধান নির্বাহী সৈয়দা রিজওয়ানা হাসান গতকাল বাংলাদেশ প্রতিদিনকে এ কথা বলেন। তিনি আরও বলেন, সড়ক শুধু শিক্ষার্থী নয়, আমাদের কারোর জন্যই নিরাপদ নয়। শিক্ষার্থীরা সড়ক দুর্ঘটনার প্রতিবাদে সংঘবদ্ধ হতে পেরেছে যা আমজনতা পারেনি। শিক্ষার্থী হওয়ার সুবাদে তারা যা করতে পারছে তা অন্যরা পারছে না। বয়সে এখনো ছোট হওয়ায় তারা এই ক্ষোভ ও রাগের বহিঃপ্রকাশ করতে পারছে। এ জন্য তারা প্রতিবাদও করতে পারছে।

রিজওয়ানা হাসান প্রশ্ন তোলেন, ‘কিন্তু সড়ক আসলে কার জন্য নিরাপদ। শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত গাড়ি ছাড়া যদি আমরা সাধারণ গাড়িতে যাতায়াত করি তাহলে আমাদের কান ঝালাপালা হয়ে যায়। আমাদের সড়ক আসলে আজাব। রাস্তায় বের হতে ভয় লাগে। দুর্ঘটনা ছাড়াও ট্রাফিক, শব্দদূষণ এবং বায়ুদূষণসহ আরও কারণে আমাদের সড়ক চরম অনিরাপদ। একই সঙ্গে সড়কগুলো নাগরিকদের ক্লান্ত করে ফেলে। এর সঙ্গে যুক্ত হয়েছে লাগামহীন ড্রাইভিং। আর এর কোনো বিচারও হয় না।’ বেলার প্রধান নির্বাহী বলেন, লক্ষ্য করলে দেখা যাবে, অনেক সময় একজন সড়কে গাড়ি চালাতে যাচ্ছেন হঠাৎ তার সামনে একটি রিকশা চলে আসবে, কিংবা আচমকা একজন পথচারী এমনভাবে রাস্তা পার হবেন যে, তখন যদি কেউ ৪৫ কিলোমিটার গতিতে গাড়ি চালান, তখন তিনি চাইলেও গাড়ির গতিরোধ করতে পারবেন না। তবে এ বিষয়গুলো ভিন্ন। এখানে চালকের ‘নেগলিজেন্সি’ নেই, ফলে তখন তার শাস্তি হবে না। কিন্তু যেখানে প্রশিক্ষণ ছাড়া, লাইন্সেস ছাড়া ফিটনেসবিহীন গাড়িতে এভাবে একটার পর একটা নাগরিকের দুর্ঘটনায় মৃত্যু হচ্ছে, সেখানে কি একে চালকদের ইচ্ছাকৃত হত্যাকান্ড বলা যাবে না! সরকার কি এতটুকু নিয়ন্ত্রণ চালকদের ওপর আনতে পারবে না। সরকার যদি চালক ও বাস মালিকদের ওপর নিয়ন্ত্রণ না আনতে পারে, তাহলে সড়কে নিয়ন্ত্রণ আসবে কেমন করে?

এই বিভাগের আরও খবর

সর্বশেষ খবর