বুধবার, ২৩ আগস্ট, ২০২৩ ০০:০০ টা

জাতীয় পার্টি কি ভেঙে গেল

♦ নিজেকে চেয়ারম্যান ঘোষণা রওশন এরশাদের ♦ বিস্মিত অন্য নেতারা রংপুরে মিশ্র প্রতিক্রিয়া ♦ জি এম কাদেরের নেতৃত্বে আমরা ঐক্যবদ্ধ : চুন্নু

নিজস্ব প্রতিবেদক

জাতীয় পার্টি কি ভেঙে গেল

সংসদে বিরোধীদলীয় নেতা বেগম রওশন এরশাদ গতকাল সকালে আনুষ্ঠানিকভাবে নিজেকে দলের চেয়ারম্যান ঘোষণা দিয়েছেন। একই সঙ্গে ভারত সফরে থাকা জি এম কাদেরকে পার্টির চেয়ারম্যান পদ থেকে অব্যাহতি দেন। গতকাল সকালে এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ কথা বলা হয়। রওশন এরশাদ সেই সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে স্বাক্ষর করেন। এ ঘটনায় গতকাল দিনভর রাজনৈতিক মহলে নানা আলোচনা হয়। অনেকেই প্রশ্ন তোলেন, তাহলে জাতীয় পার্টি কি ভেঙে গেল?

তবে গত সন্ধ্যায় রওশন এরশাদ গণমাধ্যমকে বলেন, সকালের চিঠিতে সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির চেয়ারম্যান হিসেবে এই চিঠি পাঠানোর কথা ছিল। কিন্তু ভুলে দলের চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণের চিঠি গণমাধ্যমে চলে গেছে। নির্ভরযোগ্য এক সূত্র জানিয়েছেন, গতকাল ভারত সফররত জি এম কাদেরের সঙ্গে কেউ কেউ যোগাযোগ করতে সমর্থ হন। তিনি তাদের বলেছেন, রওশন এরশাদ তাকেই (জি এম কাদের) পার্টির চেয়ারম্যান থাকার কথা বলেছেন। জাতীয় পার্টিতে দীর্ঘদিন ধরেই দলীয় নেতৃত্ব নিয়ে টানাপোড়েন চলছে। পার্টির প্রতিষ্ঠাতা এইচ এম এরশাদের স্ত্রী রওশন এরশাদ এবং তাঁর ভাই জি এম কাদেরের নেতৃত্বে দলটি স্পষ্টত দ্বিধাবিভক্ত। এরকম পরিস্থিতিতে গতকাল রওশন এরশাদের দলীয় চেয়ারম্যান পদে আসীন হওয়াসংক্রান্ত সংবাদ বিজ্ঞপ্তি গণমাধ্যমে পাঠানো হয়।

জাতীয় পার্টির প্রতিষ্ঠাতা হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ মৃত্যুর আগে জি এম কাদেরকে দলের চেয়ারম্যান পদে দায়িত্ব দিয়ে যান। সেই থেকে তিনি চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। এতদিন তার নেতৃত্বেই জাতীয় পার্টির কাজ চলত। অন্যদিকে সংসদে বিরোধীদলীয় নেতার দায়িত্ব পান রওশন এরশাদ। আর উপনেতার দায়িত্ব পান জি এম কাদের।

সকালে রওশন স্বাক্ষরিত সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ‘আমি বেগম রওশন এরশাদ এমপি, জাতীয় পার্টির প্রতিষ্ঠাতা কো-চেয়ারম্যান এই মর্মে ঘোষণা করছি যে, পার্টির সিনিয়র নেতাদের পরামর্শ ও সিদ্ধান্তক্রমে দলের গতিশীলতা বজায় রাখার স্বার্থে দলের চেয়ারম্যানের দায়িত্ব গ্রহণ করলাম। এর আগে জাতীয় পার্টির সংখ্যাগরিষ্ঠ কো-চেয়ারম্যান, প্রেসিডিয়াম সদস্য ও সংসদ সদস্যদের এক বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। বৈঠকে দলের মেয়াদোত্তীর্ণ কমিটি, নানা ধরনের মামলা-মোকদ্দমা এবং দল পরিচালনায় অযোগ্যতা ও অসাংগঠনিক আচরণের কারণে জাতীয় পার্টির বর্তমান চেয়ারম্যান গোলাম মোহাম্মদ কাদেরকে অব্যাহতি দেওয়া হয়। সংকট উত্তরণে পার্টির প্রধান পৃষ্ঠপোষক বেগম রওশন এরশাদকে দশম জাতীয় সম্মেলন পর্যন্ত দলের চেয়ারম্যানের দায়িত্ব দেওয়া হয়।’

রওশন এরশাদের নিজেকে চেয়ারম্যান ঘোষণার পর জাতীয় পার্টির মহাসচিব ও জি এম কাদেরপন্থি নেতা মুজিবুল হক চুন্নু সাংবাদিকদের বলেন, ‘জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান জি এম কাদেরকে অব্যাহতি দেওয়ার খবরটি মিথ্যা। কয়েকজন কো-চেয়ারম্যানের নাম ব্যবহার করে এ খবর দেওয়া হয়েছে। তারা এ ধরনের কোনো সিদ্ধান্ত নেননি বা সিদ্ধান্ত নিতে সহযোগিতা করেননি এবং কোনো স্বাক্ষর দেননি। দেওয়ার প্রশ্নই আসে না। আসলে এটা একটা ফেক (ভুয়া) নিউজ। জাতীয় পার্টির গঠনতন্ত্র অনুযায়ী যে-কেউ ইচ্ছা করলেই চেয়ারম্যান হতে পারবেন না। ইচ্ছা করলেই যে-কাউকে অব্যাহতি দেওয়া যাবে না। অব্যাহতি দেওয়া এবং চেয়ারম্যান হওয়া নিয়মের মধ্যে পড়তে হবে।’ তিনি বলেন, ‘জাতীয় পার্টি জি এম কাদেরের নেতৃত্বে ঐক্যবদ্ধ আছে। আমার মনে হয় দল থেকে বহিষ্কৃত কিছু ব্যক্তি ম্যাডামের (রওশন এরশাদ) নাম ব্যবহার করে এরকম একটা ফেক নিউজ দিয়েছেন। আমি জাতীয় পার্টির সারা দেশের নেতা-কর্মীদের অনুরোধ করব, দেশবাসীকে বলব, এ ধরনের কোনো ঘটনা জাতীয় পার্টিতে ঘটেনি বা ঘটার কোনো সুযোগ নেই।’ অন্যদিকে সাবেক মহাসচিব ও রওশনপন্থি নেতা মসিউর রহমান রাঙ্গা বলছেন, ‘এ সিদ্ধান্ত না মানলে চুন্নুরা রাস্তায় নামতে পারেন।’

জানা গেছে, রওশন এরশাদের নেতৃত্বে জাতীয় পার্টির নেতা এ বি এম রুহুল আমিন হাওলাদার, কাজী ফিরোজ রশীদ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে শনিবার সাক্ষাৎ করেন। এ সময় রওশন এরশাদ দলের ৪০ জন প্রার্থীর তালিকা প্রধানমন্ত্রীকে হস্তান্তর করেন। এ নিয়ে দলের ভিতরে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। দলের নেতা-কর্মীরা ও বেশির ভাগ এমপি জি এম কাদেরের সঙ্গে রয়েছেন।

এ বিষয়ে জাতীয় পার্টির কো-চেয়ারম্যান কাজী ফিরোজ রশীদ বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, ‘আমরাও জেনেছি, দেখেছি। এটা নিয়ে আমাদের মহাসচিব যে কথা বলেছেন আমারও একই কথা। আমাদের এরকম কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি।’ আপনার নাম ও স্বাক্ষর ব্যবহার করা হয়েছে- উল্লেখ করলে তিনি বলেন, ‘এমন সুপারিশে আমি স্বাক্ষর করিনি। আমাদের স্বাক্ষর সবার কাছেই আছে। তবে এমন সুপারিশে স্বাক্ষর করিনি। আমাদের ম্যাডাম (রওশন এরশাদ) নিজেও জানেন না দাবি করেন তিনি।’ এটা একটা ষড়যন্ত্র হতে পারে বলে মনে করেন এই নেতা।

জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য ব্যারিস্টার শামীম হায়দার পাটোয়ারী বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, ‘সবার সঙ্গে কথা বলে মনে হলো রওশন এরশাদ স্বজ্ঞানে স্বাক্ষর করেননি। সব কো-চেয়ারম্যানই বলছেন, এ বিষয়ে তাঁরা কিছু জানেন না। কো-চেয়ারম্যানদের মতামতের ভিত্তিতে চেয়ারম্যান করতে পারবেন এরকম বিধান আমাদের সংবিধানে নেই। প্রেসিডিয়াম মিটিং হতে হবে, কাউন্সিল হতে হবে। আমার কাছে মনে হচ্ছে কোথাও বড় ভুল বোঝাবুঝি হচ্ছে, বিষয়টি বিধিসম্মত মনে হচ্ছে না।’ তিনি বলেন, ‘আমার মতে এখনো পার্টির চেয়ারম্যান জি এম কাদের, তিনি বুধবার দেশে আসবেন। তখন কথা বলব আমরা।’ এতে দলে অভ্যন্তরীণ দ্বন্দ্ব বাড়বে কি না- জানতে চাইলে বলেন, ‘একটু তো ভুল বোঝাবুঝি হবেই। তবে যেহেতু কো-চেয়ারম্যানরা বলেছেন তারা স্বাক্ষর করেননি, তাই এর বিশ্বাসযোগ্যতা নষ্ট হয়েছে। এসব করে দলকে একটা হাস্যকর পর্যায়ে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে।’ দলের বৃহত্তর স্বার্থে রওশন এবং কাদেরের ঐক্য প্রয়োজন বলে মনে করেন এই নেতা।

জাতীয় পার্টির একাধিক সূত্রমতে, রওশন এরশাদের আলাদা অবস্থান দলটিকে আবারও ভাঙনের মুখে ঠেলে দিল। আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে জাতীয় পার্টি আর ঐক্যবদ্ধ অবস্থানে আসতে পারবে কি না তা নিয়ে রয়েছে সংশয়। অনেক কৌতূহলী এমপি খোঁজ নিচ্ছেন, রওশন এরশাদের তালিকায় কার কার নাম রয়েছে।

রংপুরে মিশ্র প্রতিক্রিয়া : আমাদের রংপুর প্রতিনিধি জানিয়েছেন, রওশন এরশাদের জাপার চেয়ারম্যান হিসেবে ঘোষণাটি গতকাল রংপুরে টক অব দ্য টাউন ছিল। এ নিয়ে রংপুরে চলছে মিশ্র প্রতিক্রিয়া। জন্ম দিয়েছে নানান জল্পনাকল্পনার। জাপার কাদেরপন্থিরা বিষয়টি ভালোভাবে নিতে পারেননি। তাদের অনেকে মনে করছেন খবরটি সঠিক নয়। আবার কাদেরপন্থি অনেকেই নীরবতা অবলম্বন করে ঘটনা পর্যবেক্ষণ করছেন। তবে রওশনপন্থিদের অনেকেই উল্লাস প্রকাশ করেছেন।

১৯৯১ সালের নির্বাচন থেকে জাতীয় পার্টি রংপুরের কিছু আসন একচেটিয়া নিয়ন্ত্রণ করে আসছে। জাতীয় পার্টিতে একাধিকবার ভাঙন হলেও রংপুরে এর প্রভাব খুব একটা পড়েনি। সবাই লাঙল প্রতীক নিয়ে নির্বাচনী বৈতরণী পার হওয়ার চেষ্টা করেন। বিভিন্নজনের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, জাপার দেবর-ভাবির এই বিভক্তি আসন্ন দ্বাদশ নির্বাচনে নেতিবাচক প্রভাব ফেলবে দলে। শেষ পর্যন্ত লাঙল কার- এমন প্রশ্নও সামনে আসতে পারে। অনেকের ধারণা, রওশন ও কাদের পন্থিদের বিরোধ প্রকাশ্যে এলে অপ্রীতিকর ঘটনাও ঘটতে পারে। কারণ স্থানীয় জাপার রাজনীতিতে দল থেকে বহিষ্কৃত সংসদের বিরোধীদলীয় চিফ হুইপ মসিউর রহমান রাঙ্গার একটি প্রভাব রয়েছে রংপুরে। রাঙ্গা রংপুর-১ (গঙ্গাচড়া) আসনের এমপি। সম্প্রতি গঙ্গাচড়ায় রাঙ্গাপন্থিদের সঙ্গে কাদেরপন্থিদের একাধিক অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটে গেছে। আশঙ্কা করা হচ্ছে, রওশন এরশাদের চেয়ারম্যান ঘোষণাকে কেন্দ্র করে জাতীয় পার্টির বিভক্তি প্রকাশ্যে আসবে এবং সংঘাতের সৃষ্টি হবে। শেষ পর্যন্ত জাতীয় পার্টি কাদের ও রওশন পৃথক দুটি গ্রুপ হলে লাঙল কে পাবেন- এমনও আলোচনা চলছে।

রওশনের চেয়ারম্যান হওয়ার খবরে মসিউর রহমান রাঙ্গার সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে বলেন, ‘রংপুরে জাতীয় পার্টি নিরাপদ। কারও সঙ্গে কোনো বিভেদ নেই। রওশন এরশাদ চেয়ারম্যান হওয়ায় জাতীয় পার্টি লাভবান হবে।’

জি এম কাদেরের ভাতিজা যুবসংহতির কেন্দ্রীয় সভাপতি ও সাবেক এমপি আসিফ শাহরিয়ার বলেন, ‘রওশন এরশাদের ঘোষণাটি সঠিক নয়। যাঁদের স্বাক্ষর নেওয়া হয়েছে তাঁদের অনেকেই বিষয়টি জানেন না।’

এই রকম আরও টপিক

সর্বশেষ খবর