শিরোনাম
প্রকাশ : বুধবার, ১৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ২৩:২৩

মাঝ আকাশে বিমানের জ্বালানি শেষ, অতপর...

মাঝ আকাশে বিমানের জ্বালানি শেষ, অতপর...

ভারতের দিল্লি থেকে নিউইয়র্কের জে এফ কে আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের উদ্দেশে ১১ সেপ্টেম্বর রওনা দেয় এয়ার ইন্ডিয়ার বোয়িং ৭৭৭-৩০০ বিমানটি। যাত্রী ও কর্মী মিলিয়ে ছিল ৩৭০ জন। কিন্তু মাঝপথেই দেখা দিল বিপত্তি। জ্বালানি অত্যন্ত কম। নষ্ট হয়ে যায় স্বয়ংক্রিয় যন্ত্রপাতির বেশির ভাগ। এর ওপর আবহাওয়া এতটাই খারাপ যে রানওয়ে দেখা যাচ্ছিল না। এ অবস্থায় সম্পূর্ণ নিজস্ব দক্ষতায় ও দ্রুত সিদ্ধান্ত নিয়ে অন্য বিমানবন্দরে নিরাপদে বিমান নামিয়েছিলেন পাইলট।

 ঘটনাটি এয়ার ইন্ডিয়ার এআই-১০১ ফ্লাইটের। আনন্দবাজার পত্রিকা জানায়, সম্প্রতি ওই ঘটনার রিপোর্ট এয়ার ইন্ডিয়াকে দিয়েছে জে এফ কে বিমানবন্দরের এটিসি। এয়ার ইন্ডিয়ার পক্ষ থেকে সেভাবে স্পষ্ট করে কিছু না জানানো হলেও এর পরই বিষয়টি সামনে আসে।

দিল্লি থেকে নিউইয়র্কগামী এয়ার ইন্ডিয়ার ওই বোয়িং ৭৭৭-৩০০ বিমানটি ছিল ননস্টপ। কিন্তু জে এফ কে বিমানবন্দরে নামার সময় পাইলট দেখতে পান আবহাওয়া অত্যন্ত খারাপ। ৪০০ ফুট নিচের রানওয়ে দেখা যাচ্ছিল না। টানা ১৫ ঘণ্টা ওড়ার পর বিমানে জ্বালানি ছিল মাত্র ৭ হাজার ২০০ কেজি। এর ওপর বিমানের তিনটি ইনস্ট্রুমেন্ট ল্যান্ডিং সিস্টেম বা আইএলএসই খারাপ হয়ে গিয়েছিল। এ ছাড়া নয় বছরের পুরনো ওই বিমানের অটো ল্যান্ডিং সিস্টেম, উইন্ডশিয়ার সিস্টেম, অটো স্পিড ব্রেক ও অক্সিলিয়ারি পাওয়ার ইউনিটও ঠিকমতো কাজ করছিল না।

পুরো বিষয়টি সম্পর্কে জে এফ কের এটিসিকে সতর্ক করেন পাইলট। এটিসির পক্ষ থেকে আশ্বাস দেওয়া হলেও সেভাবে কোনো বিকল্পের কথা বলা হয়নি। জে এফ কে ছাড়া অত বড় বোয়িং বিমান অবতরণের নিরাপদ বিমানবন্দর ছিল অ্যালব্যানি, বস্টন বা কানেকটিকাটের ব্র্যাডলি আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর। কিন্তু জ্বালানি কম থাকায় অত দূর উড়ে যাওয়ার ঝুঁকি নিতে চাননি পাইলট। তাই জে এফ কের ওপর ৩৮ মিনিট চক্কর কাটার পরও আবহাওয়া ঠিক না হওয়ায় সম্পূর্ণ নিজস্ব বুদ্ধি ও দক্ষতায় জে এফ কের পাশে তুলনামূলক ছোট একটি বিমানবন্দরে এআই-১০১ অবতরণ করান পাইলট।


আপনার মন্তব্য