শিরোনাম
প্রকাশ : সোমবার, ৫ এপ্রিল, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ৪ এপ্রিল, ২০২১ ২২:৫৩

বর্ণাঢ্য আয়োজনে রাজকীয় মমি স্থানান্তর

বর্ণাঢ্য আয়োজনে রাজকীয় মমি স্থানান্তর

মিসরের রাজকীয় মমিগুলোকে নতুন একটি জাদুঘরে স্থানান্তর করেছে দেশটির কর্তৃপক্ষ। রাজপরিবারের রক্ত ও মর্যাদার কথা বিবেচনা করে এই শোভাযাত্রা উপলক্ষে কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়। শনিবার জাঁকজমকপূর্ণ ও ব্যয়বহুল শোভাযাত্রার মধ্য দিয়ে প্রাচীন মিসরীয় সভ্যতার ১৮ জন রাজা ও চারজন রানীর অক্ষতপ্রায় এসব মমি নিয়ে যাওয়া হয় সেখানে। ঠিকানা বদল করা এসব রাজা রানীর মধ্যে সপ্তদশ শতাব্দীর রাজা দ্বিতীয় সেকেনেনরে থেকে শুরু করে খ্রিস্টপূর্ব দ্বাদশ শতাব্দীর রাজা নবম র‌্যামসেসও রয়েছেন। এর মধ্যে রাজা দ্বিতীয় র‌্যামসেস বরাবরই ছিলেন মানুষের আগ্রহের কেন্দ্রবিন্দুতে। তিনি ৬৭ বছর শাসন করেছেন।

 এবং নিউ কিংডমে তিনিই ছিলেন সবচেয়ে জনপ্রিয় ফারাও। বলা হয় যে, তিনিই প্রথম কোনো শান্তি চুক্তিতে সই করেছিলেন। আরেকজন রানি হাটসেপসুট। ওই সময়ে কোনো নারীর ফারাও হওয়ার প্রথা না থাকলেও তিনি শাসক হয়েছিলেন। ফারাওদের মৃতদেহ মমি করে রাখার পদ্ধতি আবিষ্কৃত হয় প্রাচীন মিসরে। ১৮৮১ সালে থেকে ১৮৯৮ সালের মধ্যে প্রাচীন মিসরের রাজধানী থিবস থেকে মমিগুলো উদ্ধার করা হয়। আধুনিককালে এই জায়গাটি লাক্সর নামে পরিচিত।