Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : ৯ জুন, ২০১৯ ২১:১৬

পশ্চিমবঙ্গে দুই বিজেপি কর্মীর লাশ সৎকার নিয়ে টানাপোড়েন

দীপক দেবনাথ, কলকাতা

পশ্চিমবঙ্গে দুই বিজেপি কর্মীর লাশ সৎকার নিয়ে টানাপোড়েন
প্রতীকী ছবি

ভারতের পশ্চিমবঙ্গের সন্দেশখালিতে তৃণমূল কংগ্রেস-বিজেপির মধ্যে সংঘর্ষে নিহত দুই বিজেপি কর্মীর সৎকার নিয়ে টানটান উত্তেজনা দেখা দিল পুলিশ ও বিজেপি নেতাদের মধ্যে। রবিবার বিকাল পাঁচটা থেকে প্রায় আড়াই ঘণ্টা ধরে টানাপোড়েনের পর সন্দেশখালিতে তাদের গ্রামের বাড়িতেই দাহ করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

শনিবারই উত্তর চব্বিশ পরগনা জেলার সন্দেশখালির ভাঙিপাড়া গ্রামে তৃণমূল-বিজেপির মধ্যে সংঘর্ষে নিহত হয় প্রদীপ মন্ডল ও সুকান্ত মন্ডল নামে দুই বিজেপি কর্মী। ওই সংঘর্ষে মৃত্যু হয় কায়ুম মোল্লা নামে এক তৃণমূল কর্মীরও। 

রবিবার সন্দেশখালিতে গিয়ে ওই দুই বিজেপি কর্মীর লাশ কলকাতায় নিয়ে এসে তাদের যথাযথ সম্মান জানিয়ে দাহ করার কথা ছিল। সেইমতো এদিন দুপুরে সেখানে পৌঁছে যান বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ, সাংসদ লকেট চ্যাটার্জি, দলের নেতা রাহুল সিনহা, সায়ন্তন বসুসহ দলের নেতারা। কিন্তু লাশবাহী গাড়িতে করে সেই লাশ নিয়ে কলকাতায় ফেরার পথে তিনবার বিজেপির প্রতিনিধি দলসহ ওই লাশ বহনকারীকে আটকায় পুলিশ। একসময় বিজেপি কর্মীদের সাথে ধস্তাধস্তি হয়। আইন শৃঙ্খলা অবনতির আশঙ্কার কারণ দেখিয়ে ওই লাশকে কলকাতায় নিয়ে যেতে বাধা দেওয়া হয়। এরপর বিজেপির নেতারা হুঁশিয়ারি দেন কলকাতায় সেই লাশ নিয়ে যেতে বাধা দেওয়া হলে রাস্তাতেই দাহ করা হবে। সেইমতো বাসন্তী সড়কের ওপরই কাঠের গুঁড়ি নিয়ে চিতা সাজানোর প্রক্রিয়া শুরু করে দেন বিজেপি কর্মীরা। এরই মধ্যে নিহতদের বাড়ির পরিবারের অনুরোধে মত বদল করে বিজেপি নেতৃত্ব। অবশেষে সন্ধ্যা ৭টার কিছু পরে বাসন্তী সড়ক ধরে সন্দেশখালির গ্রামের বাড়ির দিকে রওনা দেয় ওই বিজেপি কর্মীর লাশ বহনকারী গাড়ি। সেখানেই পারিবারিক রীতি মেনেই সৎকার করা হবে ওই দুই বিজেপি কর্মীর লাশ। এ ব্যাপারে বিজেপি নেতা রাহুল সিনহা জানান, ‘মানবিকতার কারণেই আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছি যে সন্দেশখালিতে গ্রামের বাড়িতে নিহত দলীয় কর্মীর লাশ নিয়ে গিয়ে সেখানেই সৎকার করা হবে।’ 

এদিকে , পুলিশের নক্কারজনক ভূমিকার কারণ দেখিয়ে সোমবার ১২ ঘণ্টা (আধা বেলা) বসিরহাট মহুকুমা জুড়ে হরতালের ডাক দিয়েছে বিজেপি। সেই সাথে সোমবার সারা রাজ্যে কালা দিবস পালন করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বিজেপি। পাশাপাশি আগামী ১২ জুন কলকাতার ওয়েলিংটন স্কোয়ার থেকে লালবাজার পর্যন্ত ধিক্কার মিছিলের ডাক দিয়েছে বিজেপি। 

এদিকে, লাশ নিয়ে বিজেপির বিরুদ্ধে রাজনীতি করার অভিযোগ তুলেছেন তৃণমূলের মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায়। 

বিডি-প্রতিদিন/০৯ জুন, ২০১৯/মাহবুব


আপনার মন্তব্য