শিরোনাম
প্রকাশ : শুক্রবার, ২২ মে, ২০২০ ০০:০০ টা
আপলোড : ২২ মে, ২০২০ ০০:১৫

আনিসুজ্জামান পরিপূর্ণ মানুষের ছবি

নাজিয়া খাতুন

আনিসুজ্জামান পরিপূর্ণ মানুষের ছবি

সম্প্রতি আমরা দুজন জাতীয় অধ্যাপককে হারিয়েছি। অধ্যাপক জামিলুর রেজা চৌধুরী ও আনিসুজ্জামান। এ দেশের বিজ্ঞান ও প্রকৌশল চর্চার ক্ষেত্রে জামিলুর রেজা চৌধুরীর ঈর্ষণীয় অবদান। বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক অধ্যাপক, একাধিক বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছিলেন তিনি। অন্যদিকে উচ্চতর ভবন, ব্রিজ নির্মাণের ক্ষেত্রে তাঁর অবদান জাতি চিরদিন স্মরণ করবে। দ্বিতীয়জন আনিসুজ্জামান। ভাষা আন্দোলন, মুক্তিযুদ্ধ, যুদ্ধাপরাধীদের বিচার, বাংলা ভাষা ও সাহিত্যের গবেষণার ক্ষেত্রে তাঁর অবদান গুরুত্বপূর্ণ। দুজনই আমাদের দেশ ও সমাজকে এগিয়ে নিয়ে আমৃত্যু সংগ্রাম করেছেন। মুক্তবুদ্ধি চর্চার ক্ষেত্রে তাঁরা পথিকৃতের ভূমিকা পালন করেছেন। আমাদের আজকের আলোচনার বিষয় জাতীয় অধ্যাপক আনিসুজ্জামান।

বাংলাদেশের বুদ্ধিবৃত্তিক জনপরিসরে অধ্যাপক আনিসুজ্জামান যে সম্মান, স্বীকৃতি ও মান্যতা পেয়েছেন, তা আক্ষরিক অর্থেই অ-তুলনীয়। তিনি ঢাকার বাঙালি জাতীয়তাবাদের উদ্ভব-বিকাশ ও পরিণতির কালের মানুষ। তার জন্ম ১৮ ফেব্রুয়ারি ১৯৩৭, কলকাতায়। বাবা এ টি এম মোয়াজ্জেম। তিনি ছিলেন বিখ্যাত হোমিও চিকিৎসক। মা সৈয়দা খাতুন। ১৯৪৭-এর দেশভাগের পর তার পরিবার প্রথমে বাংলাদেশের খুলনাতে আসেন। পরে ঢাকায় স্থায়ী হন। তার পড়াশোনার জীবন শুরু হয় কলকাতার পার্ক সার্কাস হাইস্কুলে। এখানে তৃতীয় থেকে সপ্তম শ্রেণি পর্যন্ত পড়ার পর খুলনা জেলা স্কুলে অষ্টম শ্রেণিতে ভর্তি হন। এক বছর পর পরিবারের সঙ্গে ঢাকায় এসে প্রিয়নাথ হাইস্কুলে (বর্তমান নবাবপুর সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়) ভর্তি হন। ১৯৫১ সালে এ বিদ্যালয় থেকে মাধ্যমিক ও ১৯৫৩ সালে জগন্নাথ কলেজ থেকে উচ্চ মাধ্যমিক সম্পন্ন করার পর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে বাংলা বিভাগে ভর্তি হন। ১৯৫৭ সালে একই বিষয়ে প্রথম শ্রেণিতে প্রথম স্থান অধিকার করে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি লাভ করেন। তার শিক্ষক ছিলেন ড. মুহম্মদ শহীদুল্লাহ, শহীদ মুনীর চৌধুরী, মুহাম্মদ আব্দুল হাই প্রমুখ।

১৯৫৮ সালের ফেব্রুয়ারিতে তিনি বাংলা একাডেমির গবেষণা বৃত্তি লাভ করেন। একই বছর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ইংরেজ আমলের বাংলা সাহিত্যে বাঙালি মুসলমানের চিন্তাধারায় ১৭৫৭-১৯১৮ বিষয়ে পিএইচডি গবেষণা শুরু করেন। ১৯৫৯ সালে তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের শিক্ষক হিসেবে যোগদান করেন। তিনি পাকিস্তান কেন্দ্রীয় সরকারের গবেষণা বৃত্তি লাভ করেন। ১৯৬৫ সালে শিকাগো বিশ্ববিদ্যালয় থেকে উনিশ শতকের বাংলার সাংস্কৃতিক ইতিহাস : ইয়ং বেঙ্গল ও সমকাল বিষয়ে পোস্ট ডক্টরাল ডিগ্রি অর্জন করেন। ১৯৬৯ সালের জুন মাসে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে বাংলা বিভাগে সহযোগী অধ্যাপক হিসেবে যোগ দেন।

বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধ শুরু হলে তিনি ১৯৭১ সালের ৩১ মার্চ পর্যন্ত চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে অবস্থান করেন এবং পরবর্তীকালে ভারত গমন করে শরণার্থী শিক্ষকদের সংগঠন ‘বাংলাদেশ শিক্ষক সমিতি’র সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন।

৯৮৫ সালে তিনি চট্টগ্রাম থেকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে চলে আসেন। ২০০৩ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অবসর গ্রহণ করেন। পরে সংখ্যাতিরিক্ত অধ্যাপক হিসেবে আবার যুক্ত হন। তিনি মওলানা আবুল কালাম আজাদ ইনস্টিটিউট অব এশিয়ান স্টাডিজ (কলকাতা), প্যারিস বিশ্ববিদ্যালয় এবং নর্থ ক্যারোলাইনা স্টেট ইউনিভার্সিটিতে ভিজিটিং ফেলো ছিলেন। এছাড়াও তিনি নজরুল ইনস্টিটিউট ও বাংলা একাডেমির সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন।

স্বাধীনতা-পরবর্তী সময়ে প্রতিটি গণতান্ত্রিক আন্দোলন-সংগ্রামে অবদান রেখেছেন আনিসুজ্জামান। ১৯৭১ সালে মুজিবনগর সরকারের পরিকল্পনা কমিশনের সদস্য ছিলেন তিনি। ১৯৭২ সালে বাংলাদেশের সংবিধান বাংলা ভাষায় অনুবাদের যে কমিটি ছিল সেটার নেতৃত্বে ছিলেন তিনি। এছাড়া ১৯৯১ সালে গঠিত গণআদালতের একজন অভিযোগকারী ছিলেন তিনি।

গবেষণা ও শিক্ষকতার ক্ষেত্রেও তিনি খুবই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছেন। যেমন : আমরা বলি উত্তর উপনিবেশবাদের চিন্তা। একটি গুরুত্বপূর্ণ প্রতিষ্ঠান ছিল, যেটি এখন আর নেই, আফ্রো-এশিয়ান রাইটার্স ইউনিয়ন। এটি আফ্রো-এশীয় লেখকদের একটি সংহতি আন্দোলন। এটা কমিউনিস্ট চিন্তা-ভাবনায় প্রভাবিত ছিল। আমরা যাকে মনের উপনিবেশমুক্তি বলি, যে ডিকলোনাইজিং দ্য মাইন্ড, এই বিষয়টা উনার চিন্তা-ভাবনায় একেবারে গভীরভাবে প্রতীত ছিল।

তারা উল্লেখযোগ্য গবেষণার মধ্যে রয়েছে            মুসলিম মানস ও বাংলা সাহিত্য (১৯৬৪), মুসলিম বাংলার সাময়িকপত্র (১৯৬৯), মুনীর চৌধুরী (১৯৭৫), স্বরূপের সন্ধানে (১৯৭৬), আঠারো শতকের বাংলা চিঠি (১৯৮৩), মুহম্মদ শহীদুল্লাহ (১৯৮৩), পুরোনো বাংলা গদ্য (১৯৮৪), মোতাহার হোসেন চৌধুরী (১৯৮৮), আমার একাত্তর (১৯৯৭), মুক্তিযুদ্ধ এবং তারপর (১৯৯৮), আমার চোখে (১৯৯৯), কাল নিরবধি (২০০৩) প্রমুখ।

গবেষণায় অবদানের জন্য তিনি একাধিক পুরস্কার ও সম্মাননা লাভ করেছেন। তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য একুশে পদক, আনন্দ পুরস্কার, পদ্মভূষণ, স্বাধীনতা পদক। তিনি দুই কন্যা রুচিতা জামান ও সূচিতা জামান, পুত্র আনন্দ জামান এবং স্ত্রী সিদ্দিকা জামান বেবীসহ অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে ১৪ মে ঢাকার সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে ৮৩ বছর বয়সে মৃত্যুবরণ করেন। তাকে আজিমপুর কবরস্থানে বাবার কবরের পাশে সমাহিত করা হয়।


আপনার মন্তব্য