শিরোনাম
প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ২ জানুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ টা
আপলোড : ১ জানুয়ারি, ২০২০ ২৩:১৪

বসুন্ধরা গলফে চ্যাম্পিয়ন মোয়াজ

ক্রীড়া প্রতিবেদক

বসুন্ধরা গলফে চ্যাম্পিয়ন মোয়াজ

সাভার গলফ ক্লাবে অনুষ্ঠিত পেশাদার গলফারদের টুর্নামেন্ট চতুর্থ বসুন্ধরা ওপেনে চ্যাম্পিয়ন হয়েছেন মোয়াজ মজনু। সাভারের এই গলফার পারের চেয়ে ৯ শট কম খেলেছেন। ‘চার আন্ডার পার’ খেলে যৌথভাবে দ্বিতীয় হয়েছেন মো. রাজু, আকবর হোসেন ও কোরিয়ান গলফার চো মিন গু। যৌথভাবে তৃতীয় হয়েছেন সজীব আলী ও মো. রবিন।

পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে পৃষ্ঠপোষক প্রতিষ্ঠান বসুন্ধরা গ্রুপের ভাইস চেয়ারম্যান সাফওয়ান সোবহান উপস্থিত ছিলেন। তিনি আয়োজক ও গলফারদের উৎসাহ দিয়ে বলেন, ‘বসুন্ধরা গ্রুপ সব সময় সব খেলার সঙ্গে আছে। আগামীতেও থাকবে। আমি নিজেও গলফ খেলা খুব পছন্দ করি। আমরা চাই গলফ খেলা আরও বেশি বেশি আয়োজন হোক। আপনারা (গলফ খেলোয়াড়) আরও ভালো করে খেলেন। দেশ ছাড়িয়ে যেন বিদেশেও আপনারা ভালো খেলতে পারেন। আমাদের দেশের নাম ও দেশের পতাকা নিয়ে এগিয়ে যেতে পারেন।’

পুরস্কার বিতরণী অন্ষ্ঠুানে প্রধান অতিথি ছিলেন সাভার সেনানিবাসের স্টেশন কমান্ডার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মশিউর রহমান (এনডিসি, পিএসসি)। টুর্নামেন্টটির আয়োজন করে বাংলাদেশ প্রফেশনাল গলফার্স অ্যাসোসিয়েশন (বিপিজিএ)। প্রতিষ্ঠানটির সভাপতি কর্নেল (অব.) খন্দকার আবদুল ওয়াহেদ বলেন, ‘আমাদের গলফাররা ভালো করছেন। এমন টুর্নামেন্ট যত বেশি হবে তাদের ভালো করার সক্ষমতা তত বাড়বে। আশা করি সামনে তারা আরও ভালো করবেন।’ পৃষ্ঠপোষকতা করায় বসুন্ধরা গ্রুপকে ধন্যবাদ জানান তিনি। গলফের উন্নয়নের জন্য গলফ ফেডারেশনকেও পাশে চান বিপিজিএ সভাপতি।

ক্রীড়ার সঙ্গে ওতপ্রোতভাবে জড়িত রয়েছে শীর্ষ শিল্পপ্রতিষ্ঠান বসুন্ধরা গ্রুপ। বসুন্ধরা আবাসিক এলাকায় ২০০ বিঘা জমির ওপর নির্মাণ হচ্ছে ‘বসুন্ধরা মাল্টি স্পোর্টস অ্যারেনা’। আগামী দেড় বছরের মধ্যে কমপ্লেক্সটির কাজ শেষ হবে। কাল পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে সাফওয়ান সোবহান বলেছেন, ‘কমপ্লেক্সে আমরা খেলোয়াড়দের জন্য সব ধরনের সুবিধা রেখেছি। সেখানে গলফ খেলোয়াড়দের জন্য বিদেশ থেকে কোচ আনা হচ্ছে। তা ছাড়া ফুটবল, ক্রিকেট ও হকির জন্যও কোচ আনছি। এমন কোনো খেলা নেই যা সেই কমপ্লেক্সে থাকবে না। সব খেলার জন্য সুব্যবস্থা থাকবে।’

বসুন্ধরা গলফে অংশগ্রহণ করেছিলেন মোট ৮৩ জন পেশাদার গলফার। এ ছাড়া ১৬ জন অ্যামেচার ও বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর তিনজন নারী গলফার খেলেছেন। সব মিলে ১০২ জন গলফার অংশ নিয়েছিলেন। অ্যামেচার গলফারদের মধ্যে বিজয়ী হয়েছেন সাভার গলফ ক্লাবের মো. শাহজামাল আর নারী অ্যামেচার হিসেবে বিজয়ী হয়েছেন বাংলাদেশ সেনাবাহিনী গলফ টিমের নাসিমা আক্তার।


আপনার মন্তব্য