শিরোনাম
প্রকাশ : শনিবার, ১৭ অক্টোবর, ২০১৫ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৭ অক্টোবর, ২০১৫ ০১:১২

সাহিত্যে বেলারুশের  সোয়েতলানা

সাহিত্যে বেলারুশের  সোয়েতলানা

বেলারুশের লেখক, সাংবাদিক সোয়েতলানা আলেক্সিয়েভিচ ২০১৫ সালে নোবেল পুরস্কার পেয়েছেন। সুইডিশ একাডেমি  তার গদ্যকে অভিহিত করেছে ‘সমকালীন মানব যাতনা আর সাহসিকতার সৌধ’ হিসেবে। ৬৭ বছর বয়সী সোয়েতলানা আলেক্সিয়েভিচ গত বছরও এ পুরস্কারের সংক্ষিপ্ত তালিকায় ছিলেন। তিনি চতুর্দশ নারী যিনি সাহিত্যে নোবেল পেলেন। সোয়েতলানা আলেক্সিয়েভিচের ৪০ বছর কেটেছে সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়ন ও তার পরের সময়ের অসংখ্য মানুষের জীবন কাহিনী শুনে। তবে তার গদ্য কেবল ইতিহাসকে তুলে ধরেনি, ধারণ করেছে মানুষের আবেগের ইতিহাস।  সোয়েতলানার জন্ম ইউক্রেনে হলেও বেড়ে ওঠা বেলারুশে। মিনস্ক বিশ্ববিদ্যালয়ে সাংবাদিকতা নিয়ে পড়াশোনা করেন  সোয়েতলানা। প্রথমে পোল্যান্ডের সীমান্তে একটি সংবাদপত্রে চাকরি নিলেও পরে মিনস্কে ফিরে এসে সাংবাদিকতা শুরু করেন সোয়েতলানা। কাজ করতে করতে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে অংশ নেওয়া মহিলাদের সাক্ষাৎকার নিতে শুরু করেন। এই সাক্ষাৎকারের ভিত্তিতে তার বই ‘ভয়েসেস অব ইউটোপিয়া’। একইভাবে ইউক্রেনের চেরনোবিলে পারমাণবিক দুর্ঘটনার পরে লেখেন ‘ভয়েসেস অব চেরনোবিল : ক্রনিকাল অব দি ফিউচার’। সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়নের আফগানিস্তান অভিযান নিয়েও লিখেছেন। তিনি সত্য উচ্চারণে দ্বিধাগ্রস্ত হননি। তার প্রথম গ্রন্থ ‘ওয়ারস আনওমেনলি ফেস’, যা প্রকাশ হয় ১৯৮৫ সালে। বার বার রি-প্রিন্ট করিয়ে এ পর্যন্ত প্রায় দুই মিলিয়ন কপি বিক্রি হয়েছে।


আপনার মন্তব্য