শিরোনাম
প্রকাশ : ২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ২২:৩৬
প্রিন্ট করুন printer

‘উচ্চপদে আসীনদের সমাজে শুদ্ধাচারের দৃষ্টান্ত স্থাপন করতে হয়’

বললেন জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য

গাজীপুর প্রতিনিধি

‘উচ্চপদে আসীনদের সমাজে শুদ্ধাচারের দৃষ্টান্ত স্থাপন করতে হয়’
জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. হারুন-অর-রশিদ

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০২০ সালের দ্বিতীয় বিশেষ সিনেট অধিবেশন ভার্চুয়ালি শনিবার সকালে অনুষ্ঠিত হয়েছে। অধিবেশনে সিনেট চেয়ারম্যান জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. হারুন-অর-রশিদ বলেছেন, ‘আমাদের প্রতিনিয়ত স্মরণে রাখা দরকার, পদ-পজিশন ভোগের জন্য নয়, ত্যাগ ও সেবার মধ্যেই স্বার্থকতা। উচ্চপদে আসীনদের সমাজে শুদ্ধাচারের দৃষ্টান্ত স্থাপন করতে হয়।’

উপাচার্য তাঁর অভিভাষণে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের উজ্জ্বল ভবিষ্যতের সম্ভাবনার কথা উল্লেখ করে বলেন, ‘আমি দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করি, সততা ও নিষ্ঠা থাকলে মানুষের পক্ষে অসম্ভব কিছু নয়।’ 

সিনেট অধিবেশনে সাবেক শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ, সংসদ সদস্য বেগম আরমা দত্ত, সংসদ সদস্য ও বিশিষ্ট সাংবাদিক মুহাম্মদ শফিকুর রহমান, বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর ড. মোহাম্মদ ফরাসউদ্দিন, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য মীজানুর রহমান, বিশিষ্ট নাট্যজন রামেন্দু মজুমদার, সব বিভাগীয় কমিশনারসহ মোট ৫৬ জন সদস্য উপস্থিত ছিলেন।

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের জনসংযোগ দফতরের পরিচালক (ভারপ্রাপ্ত) মো. ফয়জুল করিম জানান, ১৯৯২ সালে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠা থেকে এ পর্যন্ত ১০ জন উপাচার্যের মধ্যে একমাত্র ড. হারুন-অর-রশিদ পরপর দুই টার্ম সফলভাবে সম্পন্ন করেন। সিনেটে কয়েকটি নতুন দফতর ও শাখা সৃষ্টি ও তফসিল সংবিধিবদ্ধ করা হয়। জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অঙ্গীভূত প্রতিষ্ঠান মুক্তিযুদ্ধ, বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশ গবেষণা ইনস্টিটিউটের নাম সংশোধন করে ‘বঙ্গবন্ধু মুক্তিযুদ্ধ বাংলাদেশ গবেষণা ইনস্টিটিউট’ নামে নামকরণ করা হয়। 

বিডি প্রতিদিন/জুনাইদ আহমেদ

  

 


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর