১০ অক্টোবর, ২০২১ ১৮:৫০

আমেরিকান ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশের ২০তম সমাবর্তন অনুষ্ঠিত

অনলাইন ডেস্ক

আমেরিকান ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশের ২০তম সমাবর্তন অনুষ্ঠিত

আমেরিকান ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি-বাংলাদেশ (এ.আই.ইউ.বি)- এর ২০তম সমাবর্তন অনুষ্ঠান আজ রবিবার বিশ্ববিদ্যালয়ের অডিটোরিয়াম থেকে ভার্চুয়ালি সম্প্রচারিত হয়েছে। 

রাষ্ট্রপতি ও এআইইউবি’র চ্যান্সেলর মো: আবদুল হামিদের সদয় সম্মতিক্রমে শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি, এমপি সমাবর্তন অনুষ্ঠানের সভাপতিত্ব করেন ও গ্র্যাজুয়েটদের মধ্যে ডিগ্রী/সনদ বিতরণ করেন। 

বিশেষ অতিথি হিসাবে অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী এমপি। সমাবর্তন বক্তা হিসাবে অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশে নিযুক্ত বিট্রিশ হাইকমিশনার এইচ.ই. রবার্ট চ্যাটার্টন ডিকসন। অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন এ.আই.ইউ.বি-এর ট্রাষ্টি বোর্ডের সম্মানিত চেয়ারম্যান ড. হাসানুল আবেদীন হাসান এবং ভাইস চ্যান্সেলার ড. কারমেন জেড ল্যামাগনা।

সমাবর্তন অনুষ্ঠানে শিক্ষাবর্ষ ২০১৯-২০ এবং ২০২০-২১ এর বিভিন্ন অনুষদের মোট ২৮৭৮ জন ছাত্র-ছাত্রীকে  স্নাতক ও স্নাতকোত্তর ডিগ্রী প্রদান করা হয়। এছাড়া বিভিন্ন বিষয়ে পারদর্শিতা ও সর্বোত্তম ফলাফল অর্জনকারী মেধাবী ছাত্র-ছাত্রীদেরকে নিম্মে উল্লেখিত সংখ্যক সম্মননা পদক প্রদান করা হয়।

(১) চ্যান্সেলার স্বর্ণ পদক - ৬টি (৪) সুম্মা কুম লাউ- ডে - ১৪০টি
(২) ডা. আনোয়ারুল আবেদীন লিডারশিপ পদক- ৪০টি (৫) মেগনা কুম লাউ-ডে - ১৪৯টি
(৩) ভাইস চ্যান্সেলার পদক - ৩১টি (৬) কুম লাউ-ডে - ৫১টি 

নবীন গ্র্যাজুয়েটদের প্রাণঢালা অভিনন্দন জানিয়ে শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি বলেন, আমাদের দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন ও জাতির উন্নয়নের জন্যে আপনারা সততা, নিষ্ঠা ও আন্তরিকতার মাধ্যমে আপনাদের অর্জিত জ্ঞান ও প্রজ্ঞাকে কাজে লাগাবেন এটিই- আমাদের প্রত্যাশা। চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের সফল অংশীদার হতে চাই আমরা। আর যদি তা আমাদের সফলভাবে করতে হয় তবে আমাদের শিক্ষার্থীদের কিছু বিশেষ দক্ষতা অর্জন করতে হবে। শুধু ডিগ্রীর সনদই যথেষ্ট নয়।

ডা. দীপু মনি নতুন গ্র্যাজুয়েটদের শুভেচ্ছা জানিয়ে বলেন, গত দেড় বছর ধরে আমরা একটা অতিমারির মধ্যে রয়েছি। সারা বিশ্বের মানুষ নানান সমস্যার মধ্যে রয়েছে। তার মধ্যে সবচেয়ে বেশি প্রতিকূলতায় রয়েছে শিক্ষাখাত। যারা এ অতিমারীর মধ্যে পড়াশোনা শেষ করেছেন তাদের অভিননন্দন।

শিক্ষার্থীদের চাকুরীর পিছনে না ছুটে উদ্যোক্তা হবার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, উদ্যোক্তা হতে হবে এবং প্রগতিশীল অর্থনীতিকে চালু রাখার জন্য উদ্যোগী হতে হবে। নতুন চাকরির বাজার সৃষ্টি করতে হবে। জ্ঞান, দক্ষতা এবং সঠিক মনোভাবের সমন্বয়ে বিশ্ব নাগরিক হিসেবে গড়ে তোলার আহ্বান জানান তিনি। এ সময় মন্ত্রী এআইইউবি ক্যাম্পাসের সৌন্দর্যের ভূয়সী প্রশংসা করেন।

নবীন গ্র্যাজুয়েটদের প্রাণঢালা অভিনন্দন জানিয়ে শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী এমপি বলেন, শিক্ষার্থীদের সনদ অর্জনের পাশাপাশি বর্তমান বিশ্বের চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় অগ্রণী ভূমিকা পালন করতে হবে। একই সাথে কর্মমূখী শিক্ষা গ্রহণ করে নিত্য নতুন দক্ষতা অর্জন করে দেশের উন্নয়নে নিজেকে সম্পৃক্ত করতে হবে। বর্তমান সরকারের ডিজিটাল বাংলাদেশের মাধ্যমে এ মহামারীর মধ্যেও আমরা শিক্ষা কার্যক্রম চালিয়ে নিতে পেরেছি। উচ্চতর মানবসম্পদ গড়তে তারুন্য জ্ঞান মেধা ও প্রজ্ঞা নিয়ে এগিয়ে যেতে হবে। একাডেমিক পড়াশোনার পাশাপাশি দক্ষতা উন্নয়ন ও প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করতে হবে। করোনাকালীন মহামারির সময়ে সুষ্ঠভাবে উচ্চ শিক্ষা কার্যক্রম পরিচালনা করার জন্য তিনি এআইইউবি’র ভূয়সী প্রংশসা করেন।

সমাবর্তন বক্তা হিসাবে বাংলাদেশে নিযুক্ত বিট্রিশ হাইকমিশনার এইচ.ই. রবার্ট চ্যাটার্টন ডিকসন তার শিক্ষা ও কর্মজীবনের বিভিন্ন দিক তুলে ধরে উপস্থিত গ্র্যাজুয়েটগণদের উদ্বুদ্ধ করেন। তিনি বলেন, বাংলাদেশের অর্থনৈতিক উন্নয়ন এখন সর্বত্র প্রশংসনীয়। অর্থনীতিসহ নারী শিক্ষা ও উন্নয়ন এবং শিক্ষায় বাংলাদেশের অগ্রগতি একটি মাইলফলক। যুক্তরাজ্য ও বাংলাদেশের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়গুলো আরো অনেক বেশি সহযোগিতামূলক শিক্ষা কার্যক্রম চালাতে পারে।

এ.আই.ইউ.বি এর ভাইস চ্যান্সেলার ড. কারমেন জেড ল্যামাগনা ডিগ্রীপ্রাপ্ত ছাত্র-ছাত্রীদেরকে তাঁর ও বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের তরফ হতে আন্তরিক অভিনন্দন জানান। তিনি গ্র্যাজুয়েটদেরকে জীবনে প্রতিটি সমস্যা ধৈর্য্য সহকারে এবং মেধার আলোকে একাত্মতা বোধ সৃষ্টির মাধ্যমে ও প্রাপ্ত শিক্ষা দ্বারা নিজ নিজ মেধা দিয়ে মোকাবিলা করার আহ্বান জানান। তিনি আরও উল্লেখ করেন সনদ প্রাপ্তিই শেষ নয় বরং এখনই জীবনের পথ চলা শুরু। যেই পথচলায় প্রতিকূলতাকে জয় করে সম্ভাবনাকে কাজে লাগিয়ে জীবনকে গড়ে তোলা এবং দেশ ও জনগনের সেবা করা।  

এ.আই.ইউ.বি-ও ট্রাস্টি বোর্ডের সম্মানিত চেয়ারম্যান ড. হাসানুল আবেদীন হাসান তার স্বাগত ভাষণে ডিগ্রী প্রাপ্তদের অভিনন্দন জ্ঞাপন করেন। তিনি বলেন, এআইইউবি উচ্চশিক্ষা কার্যক্রমের আন্তজার্তিক মানের উন্নত শিক্ষা প্রদানে সর্বদা বদ্ধপরিকর।

সমাবর্তন অনুষ্ঠানে শিক্ষার্থীদের পক্ষে ভ্যালোডিকটরিয়ান বক্তব্য প্রদান করেন এমপিএইচ বিভাগের শিক্ষার্থী নুদের নোওয়ার নিজাম।

এ ছাড়াও সমাবর্তন অনুষ্ঠানে এ.আই.ইউ.বি-র প্রতিষ্ঠাতা সদস্য ইশতিয়াক আবেদীন, নাদিয়া আনোয়ার, ডা. আব্দুস সামাদ আলীম, মিসেস সাবরিনা আবেদীন, ডুলসে ল্যামাগ্না মজুমদার সহ সিন্ডিকেট ও একাডেমিক কাউন্সিল সদস্য, সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তাবৃন্দ, দেশী-বিদেশী উচ্চপদস্থ ব্যক্তিবর্গ, ডীন, বিপুল সংখ্যক শিক্ষক- শিক্ষিকা, কর্মকর্তা, ছাত্র-ছাত্রী ও অভিবাবকবৃন্দ, এবং প্রেস মিডিয়ার কর্মীগণ উপস্থিত ছিলেন।

এআইইউবি’র ফেসবুক পেজ ও ইউটিউভ পেজে ১০ হাজারের বেশি শিক্ষার্থী ও অভিভাববকরা সমাবর্তনে যোগ দেন।

বিডি-প্রতিদিন/সালাহ উদ্দীন

এই বিভাগের আরও খবর

সর্বশেষ খবর