শিরোনাম
প্রকাশ : ২৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ১৮:৩৩

চসিক নির্বাচন

ঝামেলা এড়াতে কেন্দ্রেই সেনাবাহিনী থাকার আশ্বাস ইসির

সাইদুল ইসলাম, চট্টগ্রাম:

ঝামেলা এড়াতে কেন্দ্রেই সেনাবাহিনী থাকার আশ্বাস ইসির

কোন ধরনের ঝামেলা এড়াতে এবং ভোটারদের ভোট নিশ্চিত করতে কেন্দ্রেই সেনাবাহিনীর উপস্থিতি থাকবে বলে আশ্বাস দিয়েছেন নির্বাচন কমিশনার (ইসি) রফিকুল ইসলাম। 

তিনি বলেন, আমরা নির্বাচনের সব ধরনের পরিবেশ নিশ্চিত করার চেষ্টা করছি। আপনার ভোট আপনি কেন্দ্রে গেলেই দিতে পারবেন। এতে কোন ধরণের ঝামেলা হবে না, এতটুকু আশ্বস্ত করতে পারি।

সেনা মোতায়েনের বিষয়ে রফিকুল ইসলাম আরও বলেন, সিটি করপোরেশন নির্বাচন কিংবা স্থানীয় সরকার নির্বাচনে কখনও আমরা সেনা মোতায়েন করিনি। এবারও করবো না। কিন্তু কেন্দ্রে সেনাবাহিনীর উপস্থিতি থাকবে এবং সেটা পোশাকে। তবে অস্ত্র থাকবে না। তারা শুধুমাত্র ইভিএম এর টেকনিক্যাল বিষয়গুলো দেখবেন।

শুক্রবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে চট্টগ্রাম আঞ্চলিক নির্বাচন কমিশন কার্যালয়ে মনোনয়নপত্র যাচাই বাছাই সংক্রান্ত দিক-নির্দেশনামূলক সভা শেষে সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন তিনি।

নির্বাচন পেছানোর কোন সুযোগ নেই জানিয়ে ইসি রফিকুল ইসলাম আরও বলেন, ১ এপ্রিল থেকে এইচএসসি পরীক্ষা শুরু হচ্ছে। এটি চলবে পুরো এক মাস। এরপর রয়েছে রোজা এবং ঈদ-উল-ফিতর। তাছাড়া শুরু হবে আবার বর্ষাকালও। এসব নিয়ে চট্টগ্রাম শহরে নির্বাচন কল্পনাও করা যায় না।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রাম আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তা ও চসিক রির্টানিং কর্মকর্তা মোহাম্মদ হাসানুজ্জামান, চট্টগ্রাম জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মনির হোসেন খান, অতিরিক্ত আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তা মোহাম্মদ আতাউর রহমান, বশির আহমদসহ জেলার অন্য কর্মকর্তারা।

আগের দিন মনোনয়নপত্র দাখিলের সময় বিএনপির প্রার্থী ডা. শাহাদাত হোসেন বলেছিলেন, সরকার, রাষ্ট্রযন্ত্র, ইসি ও আওয়ামী লীগ মিশে একাকার হয়ে গেছে। ইসিকে বের হয়ে নিরপেক্ষ ভূমিকা পালন করতে হবে। ভোটদানের অধিকার নিশ্চিত করতে হবে। প্রতিটি বুথে একজন করে সেনাবাহিনীর সদস্য নিয়োগ করতে হবে। যাতে ভোটার ও পোলিং এজেন্টদের সুরক্ষা রক্ষা হয়। 

ভোটের তারিখ পরিবর্তনের দাবি করে বিএনপি পদপ্রার্থী ডা. শাহাদাত হোসেন বলেন, ২৯ মার্চ হচ্ছে নির্বাচন। কিন্তু এর আগে ২৬ মার্চ থেকে ২৮ মার্চ-তিন দিন বন্ধ। লম্বা ছুটিতে মানুষ যদি দেশ-বিদেশে বেড়াতে চলে যায় আর ভোটকেন্দ্রে আসবে না। এজন্য ২৯ মার্চের পরিবর্তন করে ৩১ মার্চ করার দাবি করেছেন তিনি। ভোটারদের ভোটমুখী করার চিন্তা থাকলেও ৩১ মার্চ ভোটের দিন ধার্য্য করতে হবে।


বিডি প্রতিদিন/হিমেল 


আপনার মন্তব্য