Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : রবিবার, ১১ নভেম্বর, ২০১৮ ০০:০০ টা
আপলোড : ১০ নভেম্বর, ২০১৮ ২২:৪৪

আইনজীবী রথীশ হত্যা

মারা গেছেন প্রধান আসামি কামরুল

নিজস্ব প্রতিবেদক, রংপুর

মারা গেছেন প্রধান আসামি কামরুল

রংপুরের বিশেষ জজ আদালতের পিপি অ্যাডভোকেট রথীশ চন্দ্র ভৌমিক বাবু সোনা হত্যা মামলার প্রধান আসামি কামরুল ইসলাম ডায়াবেটিক ও হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন। গতকাল ভোর সাড়ে ৫টায় রংপুর মেডিকেল কলেজ (রমেক) হাসপাতালে তার মৃত্যু হয়। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন রংপুর কেন্দ্রীয় কারাগারের জেলার ও রমেক হাসপাতালের পরিচালক। জেলার আমজাদ হোসেন গতকাল জানান, অ্যাডভোকেট বাবু সোনা হত্যা মামলার প্রধান আসামি কামরুল ইসলাম বেশ কিছুদিন ধরে ডায়াবেটিক ও হৃদরোগের সমস্যায় ভুগছিলেন। ভোররাতে তিনি গুরুতর অসুস্থ হলে তাকে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানেই চিকিৎসাধীন অবস্থায় ভোর সাড়ে ৫টার দিকে তিনি মারা যান। জেলার আমজাদ বলেন, ‘আমরা ডেথ সার্টিফিকেট পেয়েছি। ময়নাতদন্ত ও অন্যান্য আনুষ্ঠানিকতা শেষে লাশ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হবে।’ রমেক হাসপাতালের পরিচালক ডা. অজয় রায় মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, হাসপাতালে ভর্তি করার কিছু্ক্ষণ পরই কামরুল মারা যান।

 কী কারণে মারা গেছেন তা ময়নাতদন্তের রিপোর্ট পেলে জানা যাবে। ময়নাতদন্তের জন্য কামরুলের লাশ পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। আইনজীবী রথীশ হত্যা মামলাটি রংপুর জেলা জজ আদালতে বিচারাধীন। এ মামলার সাক্ষ্য গ্রহণ চলছিল। মামলার অপর আসামি বাবু সোনার স্ত্রী কামরুলের প্রেমিকা স্নিগ্ধা সরকার ওরফে দীপা জেল হাজতে রয়েছেন।

চলতি বছর ২৯ মার্চ রাতে বাবু সোনাকে দুধের সঙ্গে ঘুমের ওষুধ খাইয়ে শ্বাসরোধ করে হত্যা করা হয়। এরপর তার মরদেহ তাজহাট মোল্লাপাড়ায় প্রেমিক কামরুলের ভাইয়ের নির্মাণাধীন বাড়ির পরিত্যক্ত ঘরের মেঝেতে পুঁতে রাখা হয়। ৩ এপ্রিল রাতে বাবু সোনার স্ত্রী স্নিগ্ধা সরকার ওরফে দীপা ভৌমিককে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য র?্যাব আটক করে। তিনি এ হত্যার কথা স্বীকার করেন এবং মরদেহের অবস্থান সম্পর্কে তাদের জানান। সেই সূত্র ধরে ওই দিন রাতেই বাবু সোনার গলিত মরদেহ উদ্ধার করা হয়।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর