শিরোনাম
প্রকাশ : শুক্রবার, ১৯ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ২৩:০৫

জ্বালানি তেলের তীব্র সংকট সিলেটে

শাহ্ দিদার আলম নবেল, সিলেট

জ্বালানি তেলের তীব্র সংকট সিলেটে

সিলেটে জ্বালানি তেলের তীব্র সংকট দেখা দিয়েছে। জ্বালানি তেলের সিলেটস্থ রাষ্ট্রীয় শোধনাগারগুলো বন্ধ হয়ে যাওয়ায় চট্টগ্রাম থেকে চাহিদা পূরণ করা সম্ভব হচ্ছে না। সংকটের কারণে আজকালের মধ্যে সিলেটের পাম্পগুলো জ্বালানি তেলশূন্য হয়ে পড়ার আশঙ্কা করছেন সংশ্লিষ্টরা। সিলেট বিভাগ পেট্রোল পাম্প ওনার্স অ্যাসোসিয়েশন-সূত্র জানান, সিলেটে ১১৪টি পেট্রোল পাম্প রয়েছে। আগে চট্টগ্রাম থেকে প্রতি সপ্তাহে ১৮ থেকে ২০ লাখ লিটার ডিজেল আসত সিলেটে। সিলেটস্থ রাষ্ট্রীয় শোধনাগার থেকে সরবরাহ হতো পেট্রোল ও অকটেন। কিন্তু বিএসটিআইর নির্ধারিত মান বজায় রাখা সম্ভব হচ্ছে না এ অজুহাতে গত চার মাসের বেশি সময় ধরে সিলেটস্থ রাষ্ট্রীয় শোধনাগারগুলো বন্ধ রাখা হয়েছে। এর পর থেকে সিলেটের গ্যাস ফিল্ডগুলো থেকে গ্যাসের সঙ্গে উত্তোলিত কনডেনসেট (উপজাত) পাঠানো হচ্ছে চট্টগ্রামের বিভিন্ন বেসরকারি শোধনাগারে। ফলে সিলেটের পাম্পগুলোকে সব ধরনের জ্বালানি তেলের জন্য চট্টগ্রামনির্ভর হয়ে পড়তে হয়। রেলের ওয়াগনে করে সপ্তাহে তিন-চার বার সিলেটে জ্বালানি তেল এলেও সে তেলে চাহিদা পূরণ হচ্ছে না।

 এ ছাড়া কোনো কারণে ওয়াগন সংকট দেখা দিলে জ্বালানি তেলের সংকট আরও প্রকট হয়ে দাঁড়ায়। সংশ্লিষ্ট সূত্র জানান, আগে প্রতি সপ্তাহে চট্টগ্রাম থেকে ১৮-২০ লাখ লিটার ডিজেল আসত সিলেটে। পেট্রোল ও অকটেনের জোগান হতো স্থানীয় শোধনাগারগুলো থেকে। কিন্তু স্থানীয় শোধনাগারগুলো বন্ধ করে দেওয়া হলেও চট্টগ্রাম থেকে জ্বালানি তেলবাহী ওয়াগন বাড়ানো হয়নি। ফলে প্রতি সপ্তাহে আগে যে পরিমাণ ডিজেল সিলেটে আসত এখন ডিজেল, পেট্রোল, অকটেন ও কেরোসিন মিলে একই পরিমাণ আসছে। এতে পাম্পগুলোয় জ্বালানি তেলের তীব্র সংকট দেখা দিয়েছে। বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম ডিলার্স, ডিস্ট্রিবিউটরস, এজেন্ট অ্যান্ড পেট্রোল পাম্প ওনার্স অ্যাসোসিয়েশন সিলেট বিভাগীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক জুবায়ের আহমদ চৌধুরী জানান, বিএসটিআইর নির্ধারিত মানসম্পন্ন জ্বালানি তেল উৎপাদন সম্ভব হচ্ছে না এমন অজুহাতে সিলেটস্থ রাষ্ট্রীয় শোধনাগারগুলো বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। অথচ চট্টগ্রামের বেসরকারি যেসব প্রতিষ্ঠান থেকে জ্বালানি তেল সরবরাহ করা হচ্ছে তার মান আরও খারাপ।

 নিম্নমানের জ্বালানি তেল বিক্রির অভিযোগে এরই মধ্যে সিলেটের কয়েকটি পাম্পকে ভোক্তা অধিকার অধিদফতর ও বিএসটিআই জরিমানা করেছে। রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠান ধ্বংসের ষড়যন্ত্র থেকেই সিলেটের শোধনাগারগুলো বন্ধ রাখা হয়েছে অভিযোগ করে তিনি জ্বালানি তেল সংকট নিরসনে শোধনাগারগুলো পুনরায় চালুর দাবি জানান।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর