শিরোনাম
প্রকাশ : রবিবার, ২ ডিসেম্বর, ২০১৮ ০০:০০ টা
আপলোড : ২ ডিসেম্বর, ২০১৮ ০০:০৫

দুই জেলায় ৩২০ শিশু হাসপাতালে

শীতজনিত রোগের প্রকোপ

নোয়াখালী ও ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি

দুই জেলায় ৩২০ শিশু হাসপাতালে
হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে আসা শিশুরা —বাংলাদেশ প্রতিদিন

শীতজনিত রোগের প্রকোপ বেড়েছে নোয়াখালী ও ব্রাহ্মণবাড়িয়ায়। ঠাণ্ডাজনিত নানা রোগে আক্রান্ত হয়ে গত ১০ দিনে এ দুই জেলায় ৩২০ শিশু হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে।

জানা যায়, নোয়াখালী জেলা সদর ও উপজেলা পর্যায়ের হাসপাতালগুলোতে সর্দি, কাশি, শ্বাসকষ্টসহ শীতজনিত বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত শিশুর সংখ্যা দিন দিন বাড়ছে। সর্বশেষ গতকাল সকাল ৮টা থেকে বেলা ১২টা পর্যন্ত ১১ শিশু ভর্তি হয়েছে। এ নিয়ে গত ১০ দিনে হাসপাতলে এসেছে ১৬২ শিশু। বর্তমানে ৭০ জন ভর্তি আছে। আক্রান্ত শিশুদের চাপ সামাল দিতে না পেরে ২৫০ শয্যার নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালের মেঝেতে চিকিৎসা চলছে অনেকের। ২৪ ঘণ্টা শিশু ওয়ার্ডে ভর্তিদের পাশিপাশি জরুরি বিভাগ ও বহির্বিভাগে আক্রান্ত শিশুদের সেবা দেওয়া হচ্ছে। জরুরি বিভাগের চিকিৎসক মাসুদুর রহমান জানান, ঠাণ্ডার কারণে শ্বাসতন্ত্রের সংক্রমণ ও অ্যালার্জিজনিত সমস্যায়  ভোগা শিশুদের সময় মতো ডাক্তারের কাছে না আনার কারণে অনেকের সমস্যা জটিল আকার ধারণ করে।

এদিকে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়া স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে গত এক সপ্তাহে ভর্তি হয়েছে ডায়রিয়া আক্রান্ত ১৫৮ শিশু। শীতের আগমনে আবহাওয়া পরিবর্তনজনিত কারণে শিশুরা রোটা ভাইরাসে আক্রান্ত হচ্ছে বলে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিকেল অফিসার আফ্রিদ জাহান তুলী জানিয়েছেন। হাসপাতালের ডায়রিয়া ওয়ার্ডে জায়গা সংকুলান না হওয়ায় শিশুদের মহিলা ও পুরুষ ওয়ার্ডে ভর্তি করা হচ্ছে। বেড না পেয়ে অনেকে হাসপাতালের মেঝে ও বারান্দায় চিকিৎসা নিচ্ছে। আখাউড়া হাসপাতাল সূত্রে জানা যায়, এক সপ্তাহ ধরে ডায়রিয়ায় আক্রান্ত শিশুর সংখ্যা বেড়ে গেছে। মেডিকেল অফিসার আফ্রিদ জাহান তুলী জানান, প্রতি বছর শীত আগমনের সময় ডায়রিয়াজনিত রোগীর সংখ্যা বৃদ্ধি পায়। এ সময় রোটা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে শিশুদের ডায়রিয়া হয় বেশি। ডায়রিয়া রোগীদের জন্য খাবার স্যালাইন পর্যাপ্ত রয়েছে। বেডের স্বল্পতা থাকায় সবাইকে বেডে দেওয়া যাচ্ছে না।


আপনার মন্তব্য