Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : সোমবার, ১৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ২৩:৪৬

ইমরান খানকে সঠিক পথে চলতে হবে

মাহমুদুল আলম খান বেনু

ইমরান খানকে সঠিক পথে চলতে হবে

সম্প্রতি পাকিস্তানে সাধারণ নির্বাচন হয়ে গেল। নির্বাচনে ক্রিকেটার থেকে রাজনীতিক বনে যাওয়া ইমরান খানের দল পিটিআই একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন করে আরও কিছু দলের সহযোগিতায় কেন্দ্রীয় সরকার গঠন করেছে এবং স্বয়ং ইমরান খান পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী হয়েছেন। প্রধানমন্ত্রী হওয়ার পর ইমরান খান জাতির উদ্দেশে দেওয়া প্রথম টেলিভিশন ভাষণে সুইডিশ মডেল অনুসরণ করে পাকিস্তানকে একটি কল্যাণমূলক রাষ্ট্রে পরিণত করার ইচ্ছা ব্যক্ত করেছেন। এটা অবশ্যই স্বীকৃত সত্য সুইডেন পৃথিবীর একটি অন্যতম উন্নত ও কল্যাণমুখী রাষ্ট্র। প্রত্যেক প্রধানমন্ত্রী স্বপ্ন দেখেন তার দেশ ও জাতি নিয়ে, দেশকে নিয়ে যেতে চান উন্নতির শিখরে। তবে তিনিই প্রকৃত রাষ্ট্রনায়ক যিনি বাস্তব ভিত্তিক চিন্তা করেন এবং এক লাফে স্বর্গে যাওয়ার মূর্খতা দেখান না। পরিণামে তারা কিছুই করতে পারেন না, বাগাড়ম্বর ছাড়া। সময়ই বলে দেবে ইতিমধ্যে ব্যর্থ ও জঙ্গি রাষ্ট্র হিসেবে প্রমাণিত পাকিস্তানকে ইমরান খান কোথায় নিয়ে যেতে পারবেন। আমি ব্যক্তিগতভাবে তার সাফল্য ও পাকিস্তানি জনগণের মঙ্গল কামনা করি। পাকিস্তানের সাধারণ জনগণের সঙ্গে আমাদের কোনো বিরোধ নেই। ১৯৭১ সালে আমরা যুদ্ধ করেছি পাকিস্তানি সামরিক জান্তার বিরুদ্ধে। ইমরানের ভাষণের প্রতিক্রিয়ায়  পাকিস্তানের বেসরকারি একটি টিভি চ্যানেলে এক আলোচক যে মন্তব্য করলেন সেটাই আমার লেখার বিষয়বস্তু। তিনি বললেন, সুইডেন হওয়ার আগে আমাদের আগামী ১০ বছরে বাংলাদেশের সমকক্ষ হওয়া দরকার কিংবা বাংলাদেশকে উন্নয়নের রোল মডেল হিসেবে ধরে সেভাবে অগ্রসর হতে হবে। কারণ ১৯৭১ সালের আগে পশ্চিম পাকিস্তানের তুলনায় পূর্ব পাকিস্তান সব দিকে পিছিয়ে ছিল। কিন্তু স্বাধীনতার মাত্র ৪৭ বছরের মধ্যে বাংলাদেশের রপ্তানি আয় পাকিস্তানের দ্বিগুণ, বৈদেশিক মুদ্রার মজুদ তিনগুণেরও বেশি এবং শিক্ষার হার, গড় আয়ু অনেক বেশি। শিশু মৃত্যুর হার অনেক কম।

না বললেই নয়, পাকিস্তান সারা বিশ্বে এখন জঙ্গি রাষ্ট্র হিসেবে পরিচিত। আমি ব্যক্তিগতভাবে মনে করি পাকিস্তান ব্যর্থ ও জঙ্গি রাষ্ট্র হওয়ার পেছনে মূল কারণ প্রতিবেশী ভারতের সঙ্গে বিরোধ (বিশেষত কাশ্মীর নিয়ে) এবং সামরিক শক্তিতে ভারতের সমকক্ষ হতে চাওয়া। কাশ্মীর বিরোধের জন্য প্রথমত পাকিস্তানই দায়ী। কারণ ভারত বিভাগের সময় ব্রিটিশদের পরিকল্পনা অনুযায়ী ভারতের যে অঞ্চলগুলো দেশীয় রাজাদের শাসিত ছিল সেইগুলো রাজার মতামত বা জনগণের মতামতের ভিত্তিতে নির্ধারিত হবে তাদের ভাগ্য। তারা স্বাধীন থাকবেন না পাকিস্তান কিংবা ভারত কার সঙ্গে যুক্ত হবেন। আসলে কাশ্মীরের ডোগরা রাজা এবং কাশ্মীরবাসী শেখ আবদুল্লার নেতৃত্বে স্বাধীন কাশ্মীর চেয়েছিলেন। কিন্তু পরবর্তীতে ১৯৪৮ সালে পাকিস্তান সেনাবাহিনী পাকিস্তানের উপজাতীয় যোদ্ধাদের দিয়ে কাশ্মীরের এক-তৃতীয়াংশ দখল করে নিলে ডোগরা রাজা ভারতের সাহায্য প্রার্থনা করেন। ফলে ভারত হস্তক্ষেপ করে বাকি অংশটুকু ভারতের দখলে নিয়ে নেয়। তারপরও জাতিসংঘের মধ্যস্থতায় কাশ্মীরে গণভোট করার জন্য লিয়াকত-নেহেরু চুক্তি হয়। কিন্তু পাকিস্তান কখনই তার দখলকৃত অংশে গণভোট করতে রাজি হয়নি। এর পেছনে কলকাঠি নাড়িয়েছে পাকিস্তানের সেনাবাহিনী। পরিণতিতে স্বাধীনতার মাত্র ১১ বছরের মধ্যে পাকিস্তানে সামরিক শাসন কায়েম হয় এবং কাশ্মীর দখলের অভিলাসে হোক বা সেনাবাহিনীর একচেটিয়া স্বার্থ চরিতার্থ করার জন্য হোক, পাকিস্তানের বার্ষিক বাজেটের এক-চতুর্থাংশ প্রত্যক্ষভাবে এবং পরোক্ষভাবে সেনাবাহিনীর জন্য বরাদ্দ দেওয়া হয়। বর্তমানে ‘পাকিস্তানের ফৌজি ফাউন্ডেশন’ সবচেয়ে বড় ব্যবসায়ী সংস্থা। অন্যদিকে জনগণের কল্যাণে রাষ্ট্রের উন্নয়নে বাজেট বরাদ্দ কমে গেল এবং পাকিস্তানে টাউস সাইজের সেনাবাহিনী তৈরি হলো। যারা গোটা দেশকে গিলে ফেলে পাকিস্তানি জনগণকে বঞ্চিত করল। বলা হয়ে থাকে, পাকিস্তান সেনাবাহিনী যুদ্ধে অন্য কোনো দেশের সামান্য অংশ দখল করতে না পারলেও নিজের দেশ দখল করেছে ৪ বার অর্থাৎ ১৯৫৮ সালে জে. আইয়ুব খান, ১৯৬৯ সালে জে. ইয়াহিয়া খান, ১৯৭৭ সালে জে. জিয়াউল হক ও ২০০১ সালে জে. পারভেজ মোশাররফ। ভবিষ্যৎ ভবিতব্যই জানেন। আমার প্রশ্ন কেন প্রতিবেশীর বিরুদ্ধে এমন হুঙ্কার, কেন এই অসম প্রতিযোগিতা, যেখানে এই উপমহাদেশের তিনটি দেশই এক সময় ভারতবর্ষ ছিল। পাকিস্তানের উচিত ছিল বাস্তববাদী হওয়া। আগে জনগণের ভাগ্য পরিবর্তনের মাধ্যমে জনগণের জীবনমান উন্নয়ন। যুদ্ধ কোনো দিন কোনো সমস্যার সমাধান করতে পারে না। জনগণের ট্যাক্সের টাকা জনগণের জন্য খরচ না করে, দেশের উন্নয়নের জন্য খরচ না করে বিশাল সেনাবাহিনী, হাজার বছর ঘাস খেয়ে হলেও আণবিক বোমার অধিকারী হতে হবে (ভুট্টোর কা-জ্ঞানহীন ভূমিকা আজকের  পাকিস্তানের এই চরম দুরবস্থার জন্য দায়ী)। আশা করব ইমরান খান বাস্তববাদী হবেন, সেনাবাহিনীর হাতের পুতুল হবেন না এবং ভারতের সঙ্গে সৎ প্রতিবেশী সুলভ সম্পর্ক গড়ে তুলে জনগণের ভাগ্যের পরিবর্তন করবেন। বাংলাদেশ, ভারত ও পাকিস্তান এই তিন দেশেরই পরস্পর পরস্পরকে প্রয়োজন। তবে এইক্ষেত্রে পাকিস্তানকে ১৯৭১ সালে ৩০ লাখ বাঙালিকে হত্যার জন্য, ২ লাখ মা  বোনের ইজ্জত হরণের জন্য এবং ১৯৭৫ সালে বঙ্গবন্ধু হত্যার পেছনে ইন্ধন দেওয়ার জন্য নিঃশর্ত ক্ষমা চাইতে হবে। আর ইন্দিরা গান্ধী-ভুট্টোর চুক্তি অনুযায়ী যে ১৯৫ জন পাকিস্তানি সেনা কর্মকর্তা বাংলাদেশে গণহত্যার জন্য দায়ী, তাদের বিচারের জন্য বাংলাদেশের কাছে হস্তান্তর করতে হবে। তাদের মধ্যে কেউ মারা গিয়ে থাকলে তাদের মরণোত্তর বিচার করতে হবে। বঙ্গবন্ধুর খুনি রশীদ, ডালিম ও সুবেদার মোসলেমকে বাংলাদেশের কাছে হস্তান্তর করতে হবে। আমি ব্যক্তিগতভাবে পাকিস্তানের কাছে ক্ষতিপূরণ চাই না। বরঞ্চ আমরা তাদের সাহায্য করতে পারব ইনশা আল্লাহ।

সব কিছু বদলানো গেলেও প্রতিবেশী বদলানো যায় না। প্রতিবেশী থাকলে সুবিধা যেমন থাকে তেমন সমস্যাও থাকে। বাংলাদেশের সঙ্গে ভারতের সমস্যা কম নয়। স্থলসীমান্ত সমস্যা, সমুদ্রসীমা সমস্যা, পানি বণ্টন সমস্যা অনেক সমস্যাই ছিল। কিন্তু বাংলাদেশ সংঘাতের বদলে সমঝোতার পথ ধরে ভারতের সঙ্গে সব সমস্যার শান্তিপূর্ণ সমাধানের পথ বের করতে সক্ষম হয়েছে। প্রতিবেশী মিয়ানমারের সঙ্গেও একই পথে মীমাংসায় পৌঁছেছে। পাকিস্তানকেও ভারতের সঙ্গে বিরোধে জড়ানোর বদলে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক গড়ার পথ বেছে নিতে হবে। পাকিস্তানের নতুন প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানকে সঠিক পথে চলতে হবে। 

            লেখক : মুক্তিযুদ্ধকালীন অধিনায়ক (কাপাসিয়া)।


আপনার মন্তব্য