Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : বুধবার, ১৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ২৩:৩৯

ধর্মতত্ত্ব

হে আল্লাহ অহংকারমুক্ত জীবন দান করুন

মাওলানা সেলিম হোসাইন আজাদী

হে আল্লাহ অহংকারমুক্ত জীবন দান করুন

মুমিন কখনো হতাশ হয় না। ভেঙে পড়ে না। দুমড়ে যায় না। থেমে থাকে না। হৃদয়ের গভীরে তারা বিশ্বাস ধারণ করে, সব দরজা যখন বন্ধ হয়ে যায়, তখনো মাওলার দুয়ার খোলা থাকে। সব সম্ভাবনা যখন মরে যায়, প্রভুর সম্ভাবনা তখনো জিন্দা থাকে। এ বিশ্বাসই মুমিনের জীবনসমুদ্রের একমাত্র তরী। বিশ্বাসের তরী বেয়েই হেসে-খেলে জীবন কাটিয়ে দেয় বিশ্বাসী বান্দা।

সূরা মরিয়মের শুরুতে আল্লাহতায়ালা একজন বিশ্বাসী বান্দার বিশ্বাস ও প্রার্থনা কেমন হওয়া উচিত সে সম্পর্কে উদাহরণহসহ বলে দিয়েছেন। আল্লাহ বলছেন, ‘বান্দা জাকারিয়ার প্রতি তোমার প্রতিপালকের অনুগ্রহের মজার  ঘটনাটি শোনো।’ জাকারিয়া (আ.)-এর ঘটনা বলার তিনটি কারণ- ১. কারও মনোযোগ আকর্ষণের জন্য আমরা এভাবে বলি, ‘এক ছিল রাজা’, তখন শ্রোতা নড়েচড়ে বসে। সজাগ হয়। ২. কোনো শিক্ষণীয় ঘটনা যখন বাস্তব উদাহরণ দিয়ে বলা হয়, তখন শ্রোতার মনে দাগ কাটে। অনেক দিন মনে থাকে। ৩. জাকারিয়া (আ.)-এর ঘটনাটি আল্লাহর খুবই ভালো লেগেছে। মানুষ যেন জাকারিয়া (আ.)-এর মতো বিশ্বাস নিয়ে আল্লাহকে ডাকতে পারে, তাই আল্লাহ জাকারিয়া (আ.)-কে শিরোনাম করে মানুষের দৃষ্টি আকর্ষণ করছেন।

ওপরের আয়াতে আরেকটি বিষয় লক্ষণীয়। আল্লাহ বলছেন, ‘তোমার প্রভু তার বান্দা জাকারিয়াকে অনুগ্রহ করেছেন।’ অর্থাৎ জাকারিয়া যেমন বান্দা তেমন তুমিও একজন বান্দা। জাকারিয়াকে যে প্রভু অনুগ্রহ করেছেন, রহমত দিয়েছেন, তিনি অন্য কেউ নয়, তোমারই প্রভু। তাই তুমিও জাকারিয়ার মতো বিশ্বাসী হও। হƒদয়ের গভীর থেকে প্রভুকে ডাকো। জাকারিয়া যেমন তার প্রভুর প্রতি বিশ্বাসী ছিল, শুধু প্রভুর কাছেই প্রার্থনা করেছে, তুমিও তার মতোই বিশ্বাসের চর্চা কর। প্রভু ছাড়া আর কারও কাছে প্রার্থনা কোরো না।

আরেকটু গভীরভাবে বিশ্লেষণ করলে দেখা যায়, জাকারিয়া (আ.) ছিলেন ‘ইয়্যাকানাবুুদু ওয়া ইয়্যাকা নাসতায়িন’ আয়াতের বাস্তব প্রতিচ্ছবি। পাঁচওয়াক্ত নামাজে কম করে হলে সতেরবার আমরা বলি, ‘হে আল্লাহ! আমরা কেবল তোমারই ইবাদত করি, তোমারই কাছে সাহায্য চাই।’ জাকারিয়া (আ.)ও একমাত্র আল্লাহরই ইবাদত করেছেন এবং তাঁরই কাছে সাহায্য চেয়েছেন। আমাদেরও আল্লাহ ছাড়া আর কারও ইবাদত করা যাবে না, তিনি ছাড়া আর কারও কাছে সাহায্যও চাওয়া যাবে না। মূলত এটিই একজন বিশ্বাসী বান্দার বিশ্বাসী জীবনের একমাত্র সূত্র। এ সূত্রে যারা জীবনের ছক কষবে তারাই সফল হবে। অসংখ্য সফল মানুষের মধ্যে আল্লাহর বান্দা ও নবী জাকারিয়া (আ.)ও তেমনই একজন।

দ্বিতীয় আয়াতে আল্লাহ বলছেন, ‘যখন সে তার প্রভুকে ডেকেছে কাকুতিমিনতিসহ।’ জাকারিয়া (আ.)-এর এ দিকটিই আল্লাহর খুব মনে ধরেছে। অন্যভাবে বলা যায়, জাকারিয়া (আ.)-এর দোয়ার ভঙ্গি এত চমৎকার ছিল যে, অক্ষরের তুলিতে কোরআনে এঁকে দিয়েছেন মহান শিল্পী আল্লাহ। যুগ যুগ ধরে যারা আল্লাহকে ডাকবে তারা যেন জাকারিয়া (আ.)-এর মতোই কাকুতিমিনতি করে ডাকে, তাই আল্লাহ কোরআনে জাকারিয়া (আ.)-এর বলার ঢংটাও বলে দিয়েছেন নিখুঁতভাবে।

আরবি খফিয়ান শব্দের অর্থ হচ্ছে  ভয়। অর্থাৎ জাকারিয়া (আ.) এ ভয় পাচ্ছিলেন, না জানি আমার কোনো গুনাহের কারণে আল্লাহ দোয়া ফিরিয়ে দেন। গভীরভাবে খেয়াল করুন, জাকারিয়া (আ.) একজন নবী ছিলেন। তাঁর গুনাহ হওয়া প্রায় অসম্ভব। তিনি চাইলে সওয়াবের অহংকারে তাকওয়ার বড়াই করে আল্লাহকে বলতে পারতেন, আমি তোমার নবী, নেক বান্দা, আমার দোয়া কবুল কর। কিন্তু না, তিনি এই ভয় পাচ্ছিলেন, প্রভু না জানি আমার দোয়া ফিরিয়ে দেন। এই যে বিনয়, অহংমুক্ত দোয়া আল্লাহ বান্দার কাছে এটাই চান।

ইমাম গাজ্জালি বলেন, শয়তান অনেক সময় নেক সুরতেও ধোঁকা দেয়। মুত্তাকিদের মনে কুমন্ত্রণা দিয়ে বলে, তুমি এত এত ইবাদত কর, তুমি দোয়া করলে তো আল্লাহ কবুল করবেনই। শয়তানের এমন ধোঁকায় অনেক মুত্তাকিই নিজের সর্বস্ব হারিয়ে ফেলে। তাই আল্লাহ বলছেন, দোয়া করলে অবশ্যই জাকারিয়ার মতো কর। সে এত পরহেজগার হওয়া সত্ত্বেও ভয় নিয়ে দোয়া করেছে। আমলের বড়াই নয়, শুধু প্রভুর করুণার ভিখারি হয়েছে। তোমরা রহমতের ভিখারি হয়ে আমার কাছে চাও।

এভাবে দোয়া করার ফলে জাকারিয়া (আ.) আল্লাহর কাছে যা চেয়েছেন তা-ই পেয়েছেন, সুরাটির সামনের আয়াতগুলোতে সে কথা আরও বিস্তারিত বলা হয়েছে। সুরা মরিয়মের এ তিনটি আয়াত থেকে আমরা যা শিখলাম তা হলো-  ১. আল্লাহ জাকারিয়া (আ.)-এর দোয়া কবুল করেছেন। তিনি আমার-আপনার দোয়াও কবুল করবেন। কারণ, তিনিই একমাত্র প্রার্থনা কবুলকারী, অন্য কেউ নন। ২. জাকারিয়া (আ.) যেমন নেক আমলের বড়াই করেননি তেমনি আমাদেরও আমলের বড়াই করা চলবে না। এ কথায় প্রভুকে ডাকতে হবে, প্রভুর কাছে চাইতে হবে ভিখারির মতো, অহংকারীর মতো নয়। হে আল্লাহ! আমাদের আপনি অহংকারমুক্ত জীবন ধারণ করার তাওফিক দিন।

লেখক : বিশিষ্ট মুফাসসিরে  কোরআন ও গণমাধ্যম ব্যক্তিত্ব।

চেয়ারম্যান : বাংলাদেশ মুফাসসির সোসাইটি।

www.selimazadi.com


আপনার মন্তব্য