শিরোনাম
প্রকাশ : শুক্রবার, ২০ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ২৩:৪৭

মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়

মানসম্মত শিক্ষা ও সেবা নিশ্চিত করুন

মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, স্বাস্থ্য শিক্ষার প্রসার ও মানোন্নয়নে দেশের সব বিভাগে পর্যায়ক্রমে মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপনের পরিকল্পনা হাতে নেওয়া হয়েছে। ঢাকার পর চট্টগ্রাম, রাজশাহী ও সিলেটে মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের কার্যক্রম ইতিমধ্যে শুরু হয়েছে। বুধবার গাজীপুর মহানগরের কাশিমপুরের তেঁতুইবাড়িতে শেখ ফজিলাতুন নেছা মুজিব মেমোরিয়াল কেপিজে নার্সিং কলেজে সমাবর্তনে প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্য আশাজাগানিয়া বলে অভিহিত করা যায়। বাংলাদেশ স্বাস্থ্য শিক্ষার ক্ষেত্রে দ্রুত এগিয়ে যাচ্ছে। ইতিমধ্যে সরকারি ও বেসরকারি পর্যায়ে বিপুলসংখ্যক মেডিকেল কলেজ স্থাপিত হয়েছে। প্রতিষ্ঠিত হয়েছে মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়। বিভাগীয় পর্যায়ে মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠিত হলে তা স্বাস্থ্য শিক্ষার পাশাপাশি গণমানুষের চিকিৎসা সুবিধা সম্প্রসারণেও ভূমিকা রাখবে বলে আশা করা যায়। কারণ মেডিকেল কলেজ কিংবা বিশ্ববিদ্যালয় নিছক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান নয়। শিক্ষার্থীদের হাতে-কলমে চিকিৎসাবিদ্যা শিক্ষা দেওয়ার জন্য প্রতিটি মেডিকেল কলেজ কিংবা মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে হাসপাতাল থাকা একটি অপরিহার্য বিষয়। বিভাগীয় পর্যায়ে মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠিত হলে সেখানে মানসম্মত চিকিৎসা সেবার সুযোগ সৃষ্টি হবে। চিকিৎসার জন্য রাজধানীমুখী হওয়ার প্রবণতাও অনেকাংশে হ্রাস পাবে। বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে বিভাগীয় পর্যায়ে মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার প্রয়োজন আছে কিনা তা একটি বড় মাপের প্রশ্ন। তবে সরকার সম্ভবত চিকিৎসা ক্ষেত্রে দেশের অমিত সম্ভাবনাকে বিবেচনায় রেখে একটি সদূরপ্রসারী সিদ্ধান্ত নিয়েছে। দেশে মানসম্মত চিকিৎসার সুযোগ সৃষ্টি হলে এ ক্ষেত্রে বিদেশনির্ভরতা প্রায় শূন্যের পর্যায়ে নামিয়ে আনা সম্ভব হবে। পাশাপাশি সাশ্রয়ী খরচে মানসম্মত চিকিৎসা নিশ্চিত করা গেলে অন্য দেশ থেকে অনেকে চিকিৎসার জন্য বাংলাদেশমুখী হবে। এ সম্ভাবনা কাজে লাগাতে একের পর এক মেডিকেল কলেজ কিংবা মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠাই যথেষ্ট নয়, সেগুলোয় সেবার পরিবেশ নিশ্চিত করা আরও বেশি জরুরি। আমাদের দেশের সরকারি হাসপাতাল এমনকি দেশের একমাত্র মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের সেবার মান নিয়ে বিতর্ক কম নয়। সে বিতর্ক ঝেড়ে ফেলতে এ খাতে একের পর এক উদ্যোগ গ্রহণের পাশাপাশি মানসম্মত সেবার বিষয়টি নিশ্চিত করতে হবে।


আপনার মন্তব্য

close