শিরোনাম
প্রকাশ : শনিবার, ১৮ জানুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৮ জানুয়ারি, ২০২০ ০০:০০

মুজিববর্ষ : একটি প্রস্তাব

মেজর মো. আখতারুজ্জামান (অব.)

মুজিববর্ষ : একটি প্রস্তাব

প্রস্তাবটি আমার জন্য খুব জটিল, স্পর্শকাতর এবং আমার বিপক্ষে প্রচুর বিতর্ক সৃষ্টি হতে পারে। এমনকি আমার রাজনৈতিক আনুগত্য নিয়েও প্রশ্ন উঠতে পারে। তার পরও একজন অতিক্ষুদ্র মুক্তিযাদ্ধা ও শহীদ জিয়ার একজন অধম সৈনিক হিসেবে সময়ের এই নতুন বাঁকে প্রস্তাবটি করার দুঃসাহস দেখালাম। প্রস্তাবটি আলোচনা করার আগে বাংলা বর্ষপঞ্জির একটি সংক্ষিপ্ত ইতিহাস উইকিপিডিয়ার আলোকে তুলে ধরার চেষ্টা করছি-

‘বঙ্গাব্দ, বাংলা সন বা বাংলা বর্ষপঞ্জি হলো বঙ্গদেশের একটি ঐতিহ্যমন্ডিত সৌরপঞ্জিকাভিত্তিক বর্ষপঞ্জি। সূর্যোদয়ের সঙ্গে সঙ্গে সৌরদিন গণনা শুরু হয়। পৃথিবী সূর্যের চারদিকে একবার ঘুরে আসতে মোট ৩৬৫ দিন কয়েক ঘণ্টা সময়ের প্রয়োজন হয়। এ সময়টাই এক সৌরবছর। গ্রেগরীয় সালের মতো বঙ্গাব্দেও মোট ১২ মাস। এগুলো হলো- বৈশাখ, জ্যৈষ্ঠ, আষাঢ়, শ্রাবণ, ভাদ্র, আশ্বিন, কার্তিক, অগ্রহায়ণ, পৌষ, মাঘ, ফাল্গুন ও চৈত্র। আকাশে রাশিমন্ডলীতে সূর্যের অবস্থানের ভিত্তিতে বঙ্গাব্দের মাসের হিসাব হয়। যেমন যে সময় সূর্য মেষ রাশিতে থাকে সে মাসের নাম বৈশাখ।’

‘বাংলাদেশ ও পূর্ব ভারতের পশ্চিমবঙ্গ, আসাম ও ত্রিপুরা অঞ্চলে এ বর্ষপঞ্জি ব্যবহৃত হয়। বঙ্গাব্দ শুরু হয় পয়লা বৈশাখ বা বৈশাখ মাসের প্রথম দিনে। বঙ্গাব্দ সব সময়ই গ্রেগরীয় বর্ষপঞ্জির চেয়ে ৫৯৩ বছর কম। সংশোধিত বাংলা পঞ্জিকা বাংলাদেশে আনুষ্ঠানিকভাবে ১৯৮৭ সালে গৃহীত হয়। কিন্তু ভারতের পশ্চিমবঙ্গ ও ত্রিপুরা রাজ্যে পুরাতন পদ্ধতি ব্যবহৃত হয়।’ বঙ্গাব্দের সূচনা সম্পর্কে দুটি মত চালু আছে। প্রথম মত অনুযায়ী প্রাচীন বঙ্গদেশের (গৌড়) রাজা শশাঙ্ক (রাজত্বকাল আনুমানিক ৫৯০-৬২৫ খ্রিস্টাব্দ) বঙ্গাব্দ চালু করেছিলেন। সপ্তম শতাব্দীর প্রারম্ভে শশাঙ্ক বঙ্গদেশের রাজচক্রবর্তী রাজা ছিলেন। আধুনিক বঙ্গ, বিহার এলাকা তাঁর সাম্রাজ্যের অন্তর্ভুক্ত ছিল। অনুমান করা হয়, জুলীয় বর্ষপঞ্জির বৃহস্পতিবার ১৮ মার্চ, ৫৯৪ ও গ্রেগরীয় বর্ষপঞ্জির শনিবার ২০ মার্চ, ৫৯৪ বঙ্গাব্দের সূচনা হয়েছিল।

দ্বিতীয় মতানুসারে, মোগল শাসনামলে হিজরি পঞ্জিকা অনুসারেই সব কাজকর্ম পরিচালিত হতো। মূল হিজরি পঞ্জিকা চান্দ্রমাসের ওপর নির্ভরশীল। চান্দ্রবছর সৌরবছরের চেয়ে ১০/১১ দিন কম হয়। অর্থাৎ সৌরবছর ৩৬৫ দিন, আর চান্দ্রবছর ৩৫৪ দিন। এ কারণে চান্দ্রবছরে ঋতুগুলো ঠিক থাকে না। আর বঙ্গদেশে চাষাবাদ ও এ-জাতীয় অনেক কাজ ঋতুনির্ভর। এজন্য মোগল সম্রাট আকবরের সময় প্রচলিত হিজরি চান্দ্র পঞ্জিকাকে সৌর পঞ্জিকায় রূপান্তরিত করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। সম্রাট আকবর ইরান থেকে আগত বিশিষ্ট জ্যোতির্বিজ্ঞানী আমির ফতেহ উল্লাহ সিরাজিকে হিজরি চান্দ্র বর্ষপঞ্জিকে সৌর বর্ষপঞ্জিতে রূপান্তরিত করার দায়িত্ব দেন। ফতেহ উল্লাহ সিরাজির সুপারিশে পারস্যে প্রচলিত ফারসি বর্ষপঞ্জির অনুকরণে [২] ৯৯২ হিজরি মোতাবেক ১৫৮৪ খ্রিস্টাব্দে সম্রাট আকবর হিজরি সৌর বর্ষপঞ্জির প্রচলন করেন। তবে তিনি ২৯ বছর আগে তাঁর সিংহাসন আরোহণের বছর থেকে এ পঞ্জিকা প্রচলনের নির্দেশ দেন। এজন্য ৯৬৩ হিজরি সালে বঙ্গাব্দ গণনা শুরু হয়। ৯৬৩ হিজরি সালের মহররম মাস ছিল বাংলা বৈশাখ মাস, এজন্য বৈশাখ মাসকেই বঙ্গাব্দ বা বাংলা বর্ষপঞ্জির প্রথম মাস এবং ১ বৈশাখকে নববর্ষ ধরা হয়।’

বাংলা পঞ্জিকা সম্পর্কে শামসুজ্জামান খান বলেন, ‘একে বাংলা সন বা সাল বলা হয়। এ সন ও সাল হলো যথাক্রমে আরবি ও ফারসি শব্দ। এটা নির্দেশ করছে এগুলো মুসলিম রাজা বা সুলতান কর্তৃক বাংলায় পরিচিত করানো হয়।’

অন্যদিকে নীতীশ সেনগুপ্ত বলেন, এর ঐতিহ্যগত নামটি হলো বঙ্গাব্দ। আকবরের সময় এ বর্ষপঞ্জিকে বলা হতো তারিখ-ই-ইলাহি। বর্ষপঞ্জির তারিখ-ই-ইলাহি ভার্সনে প্রতিটি দিন এবং মাসের আলাদা আলাদা নাম ছিল, আর এখন যে মাসের নামগুলো দেখা যাচ্ছে তারিখ-ই-ইলাহিতে এ রকম মাসের নামের বদলে অন্য মাসের নাম ছিল। বাংলাপিডিয়া অনুসারে, আকবরের পৌত্র শাহজাহান রবিবার দিয়ে শুরু হওয়া সাত দিনের সপ্তাহের প্রচলনের জন্য এই তারিখ-ই-ইলাহি বর্ষপঞ্জির সংস্কার করেন। আর সেই সঙ্গে কোনো এক অজানা সময়ে সেই সময় বর্তমান থাকা শকাব্দে (ভারতীয় জাতীয় বর্ষপঞ্জি) থাকা মাসের নামের সঙ্গে মিলিয়ে তারিখ-ই-ইলাহির মাসের নামকরণ হয়। আজ বাংলায় যে বর্ষপঞ্জিটি ব্যবহৃত হয়, সেই বর্ষপঞ্জিটিই তার ভিত্তি স্থাপন করে।

মুঘল আমলে হিজরি বর্ষপঞ্জি অনুসারে বাঙালিদের থেকে খাজনা আদায় করা হতো। সেই বর্ষপঞ্জিটি ছিল একটি চান্দ্র বর্ষপঞ্জি, আর তাই সৌর কৃষিচক্রের সঙ্গে সেই বর্ষপঞ্জিটির কোনো সমন্বয় ছিল না কোনো কোনো উৎস অনুযায়ী, খাজনা দানের সময় যে উৎসবের আয়োজন হতো সেই রীতি মুঘল সম্রাট আকবরেরই তৈরি, আর তখন থেকেই বাংলা সনকে বঙ্গাব্দ বলা হতো। আকবর তাঁর রাজজ্যোতিষী ফতেহ উল্লাহ সিরাজিকে চান্দ্র ইসলামিক বর্ষপঞ্জি ও সৌর হিন্দু বর্ষপঞ্জিকে সমন্বিত করে একটি বর্ষপঞ্জি তৈরি করতে বলেন। আকবরের দেওয়া আজ্ঞা পালন করে ফতেহ উল্লাহ সিরাজি যে বর্ষপঞ্জি তৈরি করে দেন তা ফসলি সন (কৃষিবর্ষপঞ্জি) নামে পরিচিত ছিল। কোনো কোনো ইতিহাসবিদের মতে, এখান থেকেই বাংলা বর্ষপঞ্জির সূচনা হয়। শামসুজ্জামান খানের মতে, সম্ভবত মোগল গভর্নর নবাব মুর্শিদকুলি খাঁ সর্বপ্রথম পুণ্যাহর রীতি (খাজনা আদায় করার জন্য একটি উৎসবের দিন) চালু করেন। আর এটা করার সময়ই তিনি আকবরের বার্ষিক খাজনা আদায়ের নীতি গ্রহণ করেন।

সনাতন বাংলা বর্ষপঞ্জি

‘৫৫০ খ্রিস্টাব্দের দিকে বরাহমিহির “পঞ্চসিদ্ধান্তিকা” নামক একটি গ্রন্থ রচনা করেছিলেন। গ্রন্থটি পাঁচ খন্ডে সমাপ্ত। এ গ্রন্থটিকে জ্যোতির্বিজ্ঞান ও জ্যোতিষশাস্ত্রের সংক্ষিপ্তসার বলে অভিহিত করা হয়। পঞ্চসিদ্ধান্তিকার পাঁচটি খন্ডের নাম, এ সিদ্ধান্তগুলো হলোÑ সূর্য সিদ্ধান্ত, বলিষ্ঠ সিদ্ধান্ত, পৌলিশ সিদ্ধান্ত, রোমক সিদ্ধান্ত ও ব্রহ্ম সিদ্ধান্ত। প্রাচীন দিন, মাস, বছর গণনার ক্ষেত্রে “সূর্যসিদ্ধান্ত” একটি বিশেষ স্থান অধিকার করে আছে। বরাহমিহিরের পরে ব্রহ্মগুপ্ত নামক অন্য একজন জ্যোতির্বিজ্ঞানী (জন্ম ৫৯৮) একটি সিদ্ধান্ত রচনা করেছিলেন। এ গ্রন্থটির নাম ব্রহ্মস্ফুট সিদ্ধান্ত।’

এ গ্রন্থটি খলিফা আল মনসুরের আদেশে সিন্দহিন্দ নামে আরবি ভাষায় অনূদিত হয়েছিল। জ্যোতির্বিজ্ঞানীদের মতে, সৌরমাস নির্ধারিত হয় সূর্যের গতিপথের ওপর ভিত্তি করে। সূর্যের ভিন্ন অবস্থান নির্ণয় করা হয় আকাশের অন্যান্য নক্ষত্রের বিচারে। প্রাচীনকালের জ্যোতির্বিজ্ঞানীরা সূর্যের বার্ষিক অবস্থান অনুসারে আকাশকে ১২টি ভাগে ভাগ করেছিলেন। এর একটি ভাগকে তাঁরা নাম দিয়েছিলেন- রাশি। আর ১২টি রাশির সমন্বয়ে যে পূর্ণ আবর্তন চক্র সম্পন্ন হয় তার নাম দেওয়া হয়েছে রাশিচক্র। এ রাশিগুলোর নাম হলো- মেষ, বৃষ, মিথুন, কর্কট, সিংহ, কন্যা, তুলা, বৃশ্চিক, ধনু, মকর, কুম্ভ ও মীন । সূর্যের বার্ষিক অবস্থানের বিচারে, সূর্য কোনো না কোনো রাশির ভিতরে অবস্থান করে। এ বিচারে সূর্য পরিক্রমা অনুসারে সূর্য যখন একটি রাশি থেকে অন্য রাশিতে যায় তখন তাকে সংক্রান্তি বলা হয়। এ বিচারে এক বছরে ১২টি সংক্রান্তি পাওয়া যায়। একেকটি সংক্রান্তিকে একেকটি মাসের শেষ দিন হিসেবে গণ্য করা হয়।

‘বাংলা বর্ষপঞ্জি ১৫৮৪ খ্রিস্টাব্দে সম্রাট আকবর প্রবর্তন করেন। এ নতুন বর্ষপঞ্জিটি প্রথমে তারিখ-ই-ইলাহি নামে পরিচিত ছিল; ১৫৮৪ খ্রিস্টাব্দের ১০ বা ১১ মার্চ এটি বঙ্গাব্দ নামে প্রচলিত হয়। নতুন এ সালটি আকবরের রাজত্বের ২৯তম বর্ষে প্রবর্তিত হলেও তা গণনা করা হয় ১৫৫৬ খ্রিস্টাব্দের ৫ নভেম্বর থেকে, কারণ এদিন আকবর দ্বিতীয় পানিপথের যুদ্ধে হিমুকে পরাজিত করে সিংহাসনে আরোহণ করেন। আকবরের সময়ে মাসের প্রতিদিনের জন্য একটি করে স্বতন্ত্র নাম ছিল, কিন্তু এতগুলো নাম মনে রাখা ছিল একটি কষ্টসাধ্য ব্যাপার; তাই সম্রাট শাহজাহান তাঁর ফসলি সনে সেগুলোকে সাপ্তাহিক পদ্ধতিতে রূপান্তরিত করেন। সম্ভবত একজন পর্তুগিজ পন্ডিতের সহায়তায় তিনি সাত দিনের সমন্বয়ে এ সপ্তাহ-পদ্ধতি চালু করেন। ইউরোপে ব্যবহৃত রোমান নামকরণ পদ্ধতির সঙ্গে সপ্তাহের দিনগুলোর লক্ষণীয় মিল রয়েছে- যেমন : Sun (Sunday-এর সঙ্গে রবির; Moon (Monday)-এর সঙ্গে সোমের; Mars (Tuesday, or Tiwes Daeg, the day of Tiw, Mars, the god of war)-এর সঙ্গে মঙ্গলের; Mercury (Wednesday)-এর সঙ্গে বুধের; Jupiter (Thursday)-এর সঙ্গে বৃহস্পতির; Venus (Friday)-এর সঙ্গে শুক্রর এবং Saturn (Saturday)-এর সঙ্গে শনির। পাশ্চাত্য বর্ষপঞ্জির মতোই বাংলা সপ্তাহও তখন রবিবারে শুরু হতো। দিনের নামের মতো একসময় মাসগুলোর নামও পরিবর্তন করা হয়। প্রথম দিকে মাসগুলো ফারওয়ারদিন, উর্দিবাহিশ, খোরদাদ, তির, মুরদাদ, শাহারিবার, মেহের, আবান, আজার, দে, বাহমান ও ইসফান্দ নামে পরিচিত ছিল। পরবর্তীকালে মাসগুলোর নাম কীভাবে বৈশাখ, জ্যৈষ্ঠ ইত্যাদি হয় তা জানা না গেলেও এটা সন্দেহাতীত যে, এ নামগুলোর ভিত্তি ছিল বিভিন্ন তারকা। অনুমান করা হয়, শক রাজবংশের স্মরণার্থে ৭৮ খ্রিস্টাব্দে প্রবর্তিত শকাব্দ থেকে এ নামগুলো এসেছে। যে তারকাম-লীর নামানুসারে বাংলা মাসগুলোর নামকরণ হয় সেগুলোÑ বিশাখা থেকে বৈশাখ, জ্যেষ্ঠা থেকে জ্যৈষ্ঠ, আষাঢ়া থেকে আষাঢ়, শ্রবণা থেকে শ্রাবণ, ভাদ্রপদ থেকে ভাদ্র, অশ্বিনী থেকে আশ্বিন, কৃত্তিকা থেকে কার্তিক, অগ্রাইহনী থেকে অগ্রহায়ণ, পুষ্যা থেকে পৌষ, মঘা থেকে মাঘ, ফলগুনী থেকে ফাল্গুন ও চিত্রা থেকে চৈত্র। অগ্রহায়ণ মাসের নামের আরেকটি ব্যাখ্যা : অগ্র = প্রথম, হায়ন = বর্ষ বা ধান্য; আগে এ মাস থেকে বর্ষগণনা শুরু হতো বা এই সময়ে প্রধান ফসল ধান কাটা হতো; তাই এ মাসের নাম হয় অগ্রহায়ণ।

তারিখ-ই-ইলাহির উদ্দেশ্য ছিল আকবরের বিজয়কে মহিমান্বিত করে রাখা এবং একটি অধিকতর পদ্ধতিগত উপায়ে রাজস্ব আদায়ে সহায়তা করা। এর আগে মুঘল সম্রাটগণ রাজস্ব আদায়ের ক্ষেত্রে হিজরি বর্ষপঞ্জি ব্যবহার করতেন। আবুল ফজল আকবরনামা গ্রন্থে বলেছেন, হিজরি বর্ষপঞ্জির ব্যবহার ছিল কৃষক শ্রেণির জন্য একটি ক্লেশকর ব্যাপার, কারণ চান্দ্র ও সৌর বর্ষের মধ্যে ১০/১১ দিনের ব্যবধান এবং এ কারণে ৩১ চান্দ্রবর্ষ ৩০ সৌরবর্ষের সমান ছিল। সে সময় চান্দ্রবর্ষ অনুযায়ী রাজস্ব আদায় করা হতো, কিন্তু ফসল সংগ্রহ করা হতো সৌরবর্ষ অনুযায়ী। আকবর তাঁর রাজত্বের শুরু থেকেই দিন-তারিখ গণনার একটি বিজ্ঞানভিত্তিক, কর্মোপযোগী ও গ্রহণযোগ্য পদ্ধতি চালুর জন্য বর্ষপঞ্জি সংস্কারের প্রয়োজন অনুভব করেন। এ উদ্দেশ্যে তিনি বিশিষ্ট বিজ্ঞানী ও জ্যোতির্বিদ আমির ফতেহ উল্লাহ সিরাজিকে প্রচলিত বর্ষপঞ্জিতে প্রয়োজনীয় পরিবর্তন সাধনের দায়িত্ব অর্পণ করেন। তাঁর প্রচেষ্টায় ৯৬৩ হিজরির মহররম মাসের শুরু থেকে বাংলা বর্ষের ৯৬৩ অব্দের সূত্রপাত হয়। যেহেতু ৯৬৩ হিজরির মহররম মাস বাংলা বৈশাখ মাসের সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ ছিল, সেহেতু চৈত্র মাসের পরিবর্তে বৈশাখ মাসকেই বাংলা বর্ষের প্রথম মাস করা হয়; চৈত্র ছিল শক বর্ষপঞ্জির প্রথম মাস, যা সে সময় বঙ্গে ব্যবহৃত হতো।

তারিখ-ই-ইলাহি প্রবর্তন থেকে অতিক্রান্ত ৪৪৫ বছরের মধ্যে হিজরি ও বাংলা বর্ষপঞ্জির মধ্যে ১৪ বছরের পার্থক্য সৃষ্টি হয়েছে। এর কারণ হিজরি বর্ষ হচ্ছে চন্দ্রনির্ভর আর বাংলা বর্ষ সূর্যনির্ভর এবং সৌরবর্ষ থেকে চান্দ্রবর্ষ ১০/১১ দিন কম। তবে বাংলা বর্ষ ও গ্রেগরিয়ান বর্ষের মধ্যে এ পার্থক্য নগণ্য, কারণ উভয়ই সৌরবর্ষভিত্তিক। তারিখ-ই-ইলাহি প্রবর্তনের সময় গ্রেগরিয়ান ও হিজরি বর্ষের মধ্যে পার্থক্য ছিল ১৫৫৬-৯৬৩ = ৫৯৩ বছর, যা বর্তমানেও কার্যকর; অর্থাৎ বাংলা সনের সঙ্গে ৫৯৩ যোগ করলে খ্রিস্টীয় সন পাওয়া যায়।

বাংলা বর্ষপঞ্জি বা বঙ্গাব্দ বাঙালির নিজস্ব সন হলেও বৈশ্বিক যোগাযোগ অক্ষুণœ রাখার স্বার্থে বাংলাদেশের প্রায় সব ক্ষেত্রেই খ্রিস্টীয় সন অনুসৃত হয়। ৩৬৫ দিনে সৌরবর্ষ গণনা করা হলেও প্রকৃতপক্ষে সূর্যকে প্রদক্ষিণ করতে যেহেতু পৃথিবীর ৩৬৫ দিন ৫ ঘণ্টা ৪৮ মিনিট ৪৭ সেকেন্ড সময় লাগে, সেহেতু খ্রিস্টীয় সালের ফেব্রুয়ারি মাসে প্রতি চার বছরে অতিরিক্ত এক দিন বাড়ানো হয়; একে অধিবর্ষ বা অতিবর্ষ (লিপ ইয়ার) বলে। খ্রিস্টীয় সালের মতো এ অধিবর্ষের অস্তিত্ব আগে বঙ্গাব্দেও ছিল। এর ফলে খ্রিস্টীয় সালের সঙ্গে বঙ্গাব্দের দিন-তারিখের হিসাবে গরমিলের কারণে জনসাধারণের পক্ষে উভয় সাল গণনায় সমস্যা হতো। এ সমস্যা দূর করার জন্য ১৯৬৬ খ্রিস্টাব্দের ১৭ ফেব্রুয়ারি বাংলা একাডেমির তত্ত্বাবধানে মুহম্মদ শহীদুল্লাহর নেতৃত্বে একটি বঙ্গাব্দ সংস্কার কমিটি গঠিত হয়। ওই কমিটি চার বছর পরপর চৈত্র মাস ৩০ দিনের পরিবর্তে ৩১ দিনে গণনা করার পরামর্শ দেয়। এভাবে বঙ্গাব্দ বিশ্বের আধুনিক ও বিজ্ঞানসম্মত সালগুলোর সমমর্যাদা লাভ করে।’

সময়ের ব্যবধানে প্রেক্ষাপট পরিবর্তন হয়ে গেছে। বিশ্বের মানচিত্রে বাংলাদেশ একটি নতুন সৃষ্টি ও অস্তিত্ব। এ সৃষ্টির পেছনে ঐতিহাসিকভাবে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের দান সর্বাধিক, যাঁর জন্য জাতির পিতা হিসেবে তিনি স্বীকৃত। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানই বাংলাদেশের জন্মদাতা। তাই প্রস্তাব করছি যে, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মদিন ১৭ মার্চকে চৈত্র মাসের ১ তারিখ ধরে চৈত্র মাসকে প্রথম মাস তথা নববর্ষ হিসেবে মুজিববর্ষ ঘোষণা করা হোক। এমনিতেই ১৭ মার্চ হলো চৈত্র মাসের ৩ তারিখ। এখন থেকে চৈত্র মাস মাত্র তিন দিন এগিয়ে আসবে এবং চৈত্র মাস বর্ষপঞ্জির শেষ মাসকে শেষ মাস হতে পরিবর্তন করে প্রথম মাস হবে এবং ক্রমান্বয়ে বাকি মাসগুলো একই ধারাবাহিকতায় থাকবে। আরেকটি বিকল্প হতে পারে তা হলো- বৈশাখ মাসের ১ তারিখ ১৭ মার্চ থেকে গণনা করে মুজিববর্ষ শুরু হতে পারে। মুজিববর্ষ শুরু করা কঠিন বা জটিল কোনো বিষয় নয় এবং রাজনৈতিক বিরোধিতা ছাড়া অন্য কোনো বিরোধিতার সুযোগও এখানে নেই। আকবর যদি নববর্ষ চালু করতে পারেন তাহলে বর্তমান ক্ষমতাসীন সরকার যেহেতু বঙ্গবন্ধুর অনুসারী সেহেতু না পারার কোনো কারণ আছে বলে মনে হয় না। দরকার শুধু সদিচ্ছা ও সাহস। আমরা যারা বিএনপির সঙ্গে জড়িত তারা তো সরকারের সব কিছুতে বিরোধিতা করেই যাচ্ছি এবং যত দিন পর্যন্ত এ সরকার ক্ষমতায় থাকবে তত দিন দলগতভাবে বিরোধিতা করেই যাব। তবে মুজিববর্ষের এ প্রস্তাব বাস্তবায়নে আমি ব্যক্তিগতভাবে সমর্থন ও সহযোগিতা করব।

লেখক : সাবেক সংসদ সদস্য।


আপনার মন্তব্য