শিরোনাম
প্রকাশ : শুক্রবার, ১৪ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৩ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ২৩:১৯

সভা-সমাবেশ কোনো পরিবর্তন আনবে না

মেজর মো. আখতারুজ্জামান (অব.)

সভা-সমাবেশ কোনো পরিবর্তন আনবে না

সভা-সমাবেশ করে কখনই দাবি আদায় হয় না। সভা-সমাবেশ করা হয় শান্তিপূর্ণভাবে শক্তি প্রদর্শন করার জন্য। জনসমাগম করে প্রতিপক্ষের ওপর মনস্তাত্ত্বিক চাপ সৃষ্টি করা হয় যাতে প্রতিপক্ষ সমস্যা সমাধানে এগিয়ে আসে বা কোনো ধরনের অপ্রীতিকর বা অশান্তি সৃষ্টির আগেই দাবি মেনে নেয়। সভা বা সমাবেশ করে দাবিকৃত প্রস্তাব বা প্রস্তাবগুলোর পক্ষে কী পরিমাণ জনমত আছে তা-ই মূলত দৃশ্যমান করা হয়। সভা-সমাবেশ করে কখনই দাবি আদায় করা যায় না। তবে তা দাবি আদায়ের পক্ষে জনমতের প্রতিফলন ঘটায় মাত্র।

সভা বা সমাবেশের দুটি রূপ। একটি অহিংস এবং আরেকটি সহিংস। সাধারণত অহিংস সভা বা সমাবেশের মাধ্যমে কখনই প্রতিপক্ষের কাছ থেকে দাবি আদায় করা সম্ভব হয় না। কারণ শান্তিপূর্ণ সভা-সমাবেশ শুধু জনমত প্রতিফলিত করে, কিন্তু দাবি মেনে নিতে প্রতিপক্ষকে বাধ্য করে না। সাধারণত শান্তিপূর্ণ সভা-সমাবেশ করে প্রতিপক্ষকে তাদের দাবি বা প্রস্তাব মেনে নিতে আহ্বান করা হয় এবং এ আহ্বানের পরপরই সভা বা সমাবেশ মুলতবি করে সবাই ঘরে ফিরে যায়। তাই শান্তিপূর্ণ সভা-সমাবেশ শেষ বা মুলতবি-পরবর্তী সভা-সমাবেশের সম্ভাবনা তৈরি করলেও তাতে দাবি আদায় হয় না এবং প্রস্তাব বা প্রস্তাবগুলো মানতে প্রতিপক্ষকে বাধ্য করতে পারে না। তবে প্রতিপক্ষ যদি উদার গণতান্ত্রিক হয় তাহলে কোনো ব্যাপক জনসভা বা জনসমাগম ঘটলে তার কারণ ও সমাধানকল্পে সভা বা সমাবেশকারী নেতৃত্বের সঙ্গে আলোচনায় বসার সুযোগ সৃষ্টি করে। তবে এ ধরনের নজির খুব কম। জনসমাবেশ কোনো দাবি বা প্রস্তাবের প্রতি ব্যাপক জনমতের প্রতিফলন ঘটলে তার প্রতি ক্ষমতাসীনদের শ্রদ্ধাশীল হওয়া উচিত। কিন্তু প্রতিপক্ষ যদি স্বৈরতন্ত্রে বিশ্বাসী বা অনুসারী হয় তাহলে তারা শান্তিপূর্ণ জনসভা বা জনসমাবেশকে কোনো গুরুত্ব দেয় না এবং উত্থাপিত দাবিগুলোকে তুচ্ছ-তাচ্ছিল্য করে উড়িয়ে দেয়। সে কারণে স্বৈরশাসক বা একনায়ক প্রতিপক্ষের কাছে শান্তিপূর্ণ সভা-সমাবেশ করে কখনই দাবি আদায় হয় না এবং হবেও না। তাই আজ বিশ্বব্যাপী জনসভার প্রয়োজন ও আবেদন কমে গেছে। সভা-সমাবেশে এখন ক্ষমতাসীনদের একচ্ছত্র প্রাধান্য, বিশেষ করে কর্তৃত্ববাদী ক্ষমতাসীনরা যারা তাদের মতবাদকে চূড়ান্ত বলে মনে করে তারা তা জনগণের ওপর চাপিয়ে দেওয়ার সর্বাত্মক প্রচেষ্টা চালায়। তাই ক্ষমতাসীনরা সরকারি অর্থ, সম্পদ ও সুযোগ-সুবিধা ব্যবহার করে পরিকল্পিত ও উদ্দেশ্যপ্রণোদিত জনসমাগম ঘটিয়ে তাদের পক্ষে ব্যাপক জনমতের প্রতিফলন আছে দাবি করে। তা দৃশ্যমান করতে চায়। এ ধরনের জনসমাগম করে কর্তৃত্ববাদীরা তাদের ক্ষমতার উল্লাস প্রকাশ করে রাষ্ট্রীয় ও প্রশাসনিক কর্তৃপক্ষকে তাদের কঠোর নিয়ন্ত্রণে রাখার অপচেষ্টা চালায়; যা কখনোই প্রকৃত জনমত প্রতিফলন করে না। রাষ্ট্রীয় ব্যবস্থা ও প্রশাসন সাধারণত সরকারের বজ্রমুষ্টির মধ্যে আটকানো থাকে এবং এ ধরনের জনসভা বা জনসমাবেশ করে ক্ষমতাসীনরা তাদের বজ্রমুষ্টি আরও শক্ত করার চেষ্টা করে যাতে রাষ্ট্র ও প্রশাসন তাদের নিয়ন্ত্রণের বাইরে না চলে যায়।

অন্যদিকে সহিংস সভা বা সমাবেশ প্রতিপক্ষ বা ক্ষমতাসীনদের টনক নাড়িয়ে দেয়। কারণ তাতে আইনশৃঙ্খলার অবনতি ঘটে, যার ফলে প্রতিপক্ষকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে বাধ্য করা হয় যা হতে পারে পাল্টা সহিংস পদক্ষেপ অথবা পদত্যাগ। সহিংস সভা-সমাবেশের পরিপ্রেক্ষিতে প্রতিপক্ষ সব সময়ই প্রশাসনিক শক্তি ও সম্পদ ব্যবহার করে সহিংস পদক্ষেপ গ্রহণ করে সভা-সমাবেশকারীদের নিবৃত বা দমন করার চেষ্টা করে। সহিংস সভা-সমাবেশ দুটি পক্ষকে সামনাসামনি নিয়ে আসে যার ফলে তাদের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। সংঘর্ষ সব সময় নতুন কিছু সৃষ্টি করে। দুটি ধাতব পদার্থের সংঘর্ষে যেমন বিদ্যুৎ উৎপাদন হয় তেমন দুটি রাজনৈতিক দলের সংঘর্ষে রাষ্ট্রে নতুন শক্তির সৃষ্টি হয়। সৃষ্টি মানেই রূপান্তর, নতুনের মাঝে পুরনোর বিলুপ্তি যা কখনোই সংঘর্ষ ছাড়া হয় না। তবে কোনো কিছু সৃষ্টি করতে হলে সবার আগে সৃষ্টিকারী লাগবে। শুধু সংঘর্ষ হলেই হবে না। সংঘর্ষের পেছনে এক বা একাধিক সৃষ্টিকারী লাগবে যাদের প্রয়োজনে রূপান্তর বা পরিবর্তন বা নতুন সৃষ্টি হবে। না হলে যে কোনো সংঘর্ষ নিছক দুর্ঘটনা বাড়াবে মাত্র কিন্তু দেশ, জাতি বা জনগণের কোনো কাজে আসবে না। কল্পিত রূপান্তর, পরিবর্তন বা সৃষ্টির জন্য প্রাকৃতিক নিয়মের দুটি আমোঘ বিধান হলো হয় সংঘর্ষ না হয় মিলন; তেমনি রাজনৈতিক রূপান্তর বা পরিবর্তন বা সৃষ্টির জন্যও হতে হবে হয় সংঘর্ষ না হয় মিলন। শান্তিপূর্ণ সভা-সমাবেশ করে কোনো রূপান্তর বা পরিবর্তন বা সৃষ্টি যেমন হবে না, তেমন কোনো দাবিও আদায় হবে না এবং প্রতিপক্ষ কোনো প্রস্তাবও মেনে নেবে না।

মিলনের বিকল্প সংঘর্ষ। পৃথিবীর ইতিহাস বলে, সংঘর্ষ ছাড়া সভ্যতার অগ্রগতি হয়নি। বিদ্যুৎ উৎপাদনে যেমন পরস্পরবিরোধী দুটি ধাতব পদার্থের সংঘর্ষের দরকার, নতুন উৎপাদনের জন্য যেমন বস্তুর পরিবর্তন বা রূপান্তর দরকার, নতুন জন্মের প্রয়োজনে যেমন উত্তপ্ত পরিবেশে বেগবান গতিতে অন্যসবকে পেছনে ফেলে ডিম্বের মধ্যে শুক্রের প্রবেশ অনিবার্য তেমন ক্ষমতাসীনদের কাছ থেকে কাক্সিক্ষত দাবি আদায়ে শক্তির প্রয়োগও প্রয়োজনীয়। যখন আলোচনার মাধ্যমে মিলনের পথ রুদ্ধ করে দিয়ে রূপান্তর বা পরিবর্তন বা নতুন সৃষ্টিকে অস্বীকার করা হয়, তখন সংঘর্ষ অনস্বীকার্য হয়ে যায়। যখন দুই পক্ষ সহাবস্থানে বিশ্বাস করে না তখন এক পক্ষের বিলুপ্তি ছাড়া কোনো সমাধান আসে না। পক্ষ কোনো স্থির বা স্থায়ী নয়।

সময়ের ব্যবধানে এবং কালের বিবর্তনে পক্ষ পরিবর্তন হতে থাকে কিন্তু পক্ষ-বিপক্ষের অবস্থান চিরন্তন ও সমীকরণও চিরন্তন। আজ হয়তো এক পক্ষ ক্ষমতাসীন বা প্রচ- ক্ষমতাশালী কিন্তু কালের আবর্তনে হয়তো তারাই তাদের অস্তিত্বের জন্য ভবিষ্যতের ক্ষমতাসীনদের বিরুদ্ধে লড়াই করবে এবং শান্তির শাশ্বত বাণী শুনিয়ে আকুতি জানাবে যেমন করে অন্যরা এখন করছে। ক্ষমতার পালাবদল চলছে-চলবেই। সময় যেমন কারও জন্য অপেক্ষা করে না, ক্ষমতার পালাবদলও কাউকে তোয়াক্কা করে না। ক্ষমতার পালাবদল হবেই হবে। আদিকাল থেকে ক্ষমতার এ পালাবদল চলে আসছে, অনাদিকাল পর্যন্ত তা চলবেই। নদীর পানি যেমন এক জায়গায় স্থির থাকে না, ক্ষমতার পালাবদলও তেমন কোথাও স্থির হয়ে থাকে না। আজ যারা ক্ষমতায় একদিন তাদের ক্ষমতা থেকে বিদায় নিতেই হবে। আবার যারা ক্ষমতার জন্য পথে-প্রান্তরে ঘুরছে তারাও একদিন ক্ষমতাসীন হবে। এটি একটি প্রাকৃতিক নিয়ম যা কখনোই খন্ডিত হয়নি এবং হবেও না। তাই রাজনৈতিক দাবি আদায় করতে হলে হয় প্রতিপক্ষের সঙ্গে মিলিত হতে হবে অথবা সরাসরি সংঘর্ষে যেতে হবে। এ দুটি পথের বাইরে অন্য কোনো পথ কারও সামনেই খোলা নেই। দাবি আদায় করতে হলে এক পক্ষের সামনে যেমন মিলন বা সংঘর্ষ ছাড়া অন্য কোনো পথ নেই তেমন অন্য পক্ষের দাবি অগ্রাহ্য করার জন্য ক্ষমতাসীনদের সামনেও মিলন অথবা সংঘর্ষ ছাড়া অন্য কোনো পথ নেই। দুই পক্ষের সামনেই এখন এ দুটি পথই খোলা।

পৃথিবীর তাবৎ কার্যকলাপ তথা সব রাজনৈতিক কর্মকা-েই মিলন অথবা সংঘর্ষ- এ দুটি পথ নিয়েই সবাই চলে। সৃষ্টি করার জন্য সবচেয়ে উত্তম ও সর্বোৎকৃষ্ট পথ হলো মিলন তথা পরস্পর আলোচনার মাধ্যমে মিলিত হয়ে নতুন প্রজন্মের বা সৃষ্টির জন্ম দেওয়া। এতে সভ্যতা অগ্রগামী হয়, সমাজ ও রাষ্ট্র সমৃৃদ্ধ হয়, মানুষ মানুষের মাধ্যমে ভ্রাতৃত্ব তথা সৌহার্দ্যপূর্ণ শান্তিময় পরিবেশ তৈরি হয় এবং বিবর্তনের মাধ্যমে সব রূপান্তর তথা পরিবর্তন বা নতুন সৃষ্টি যা মানবের বংশ বৃদ্ধি তথা নতুন প্রজন্মের প্রবাহ ও মানবকল্যাণ নিশ্চিত হয়। মিলনে কোনো বিলুপ্তি নেই। মিলনে দুই পক্ষই আলোচনা ও অংশগ্রহণের মাধ্যমে যেমন নতুন প্রজন্মের জন্ম দেয় তেমন রাষ্ট্র, সমাজ তথা বিশ্বপরিবেশেও উভয়েই তাদের অবদান নিশ্চিত করে। মিলনে কোনো ত্যাগ নেই। মিলনে আছে অফুরন্ত ভোগ, অসীম আনন্দ, চরম তৃপ্তি। মিলনে যে সৃষ্টি হয় সেই সৃষ্টিতে উভয়ের অবদান সমান সমান। মিলনে আছে সৃষ্টি সুখের উল্লাস যা উভয়কে সম্মানিত বা মহিমান্বিত করে। সেজন্য আলোচনার মাধ্যমে মিলিত হয়ে রূপান্তর বা পরিবর্তন বা সৃষ্টির পথে এগোনো শ্রেষ্ঠ এবং সবচেয়ে গ্রহণযোগ্য উপায় বলে মানবসভ্যতায় স্বীকৃত। কিন্তু আজকের বিশ্বের তাবৎ শাসক গোষ্ঠী বিশ্বকে তাদের করায়ত্তে রাখার জন্য সংঘর্ষের পথ বেছে নিয়েছে। শাসকগোষ্ঠী তাদের বিরোধী পক্ষের সঙ্গে আলোচনা বা মিলনের পথ খোলা না রেখে উল্টো বিরোধী পক্ষকে সংঘর্ষের দিকে উসকে দেয়। ক্ষমতাসীনদের পক্ষে রাষ্ট্রের সব শক্তি ও সম্পদ থাকার কারণে তারা জনগণের জানমালের নিরাপত্তার ধুয়া তুলে সংঘর্ষের মাধ্যমে প্রতিপক্ষকে বিলুপ্ত করে দিয়ে নতুন সমাজ বা রাষ্ট্রীয় ব্যবস্থার প্রচলন বা তাদের কায়েমি শাসন ধরে রাখতে চায়। শাসক গোষ্ঠী তাদের লক্ষ্যে স্থির এবং যে কোনো মূল্যে জনগণকে তাদের করায়ত্তে রেখে নিজেদের শাসন, শোষণ ও ভোগ অব্যাহত রাখতে চায়। এ অবস্থার পরিবর্তন কোনো অবস্থাতেই আলোচনা বা মিলনের মাধ্যমে সম্ভব নয় এবং হবেও না। সভা বা সমাবেশ করে তো কখনোই হবে না। পরিবর্তন তথা দাবি আদায়ের জন্য সংঘর্ষ বিশ্বব্যাপী অনিবার্য হয়ে দাঁড়িয়েছে এবং বাংলাদেশ তার বাইরে নয়। বিশ্বরাজনীতির মরণ খেলার চালে বাংলাদেশের দুটি রাজনৈতিক ধারার আলোচনার পথ রুদ্ধ। তাই মিলনের আশা দুরাশা। দুটি পক্ষের সহাবস্থান এখন বাস্তবতাবিবর্জিত ও কল্পনাবিলাস। এক ছাদের নিচে দুই পক্ষকে নিয়ে আসা এখন দুঃসাধ্য। ক্ষমতাসীনরা প্রতিপক্ষের বিলুপ্তি নিয়ে কোনো রাখঢাকের ধার ধারছে না।

কাজেই ক্ষমতার প্রতিপক্ষদের গুরুত্বের সঙ্গে ভেবেচিন্তে পদক্ষেপ নিতে না পারলে বিলুপ্ত অথবা রূপান্তর বা পরিবর্তন অনিবার্য। ক্ষমতাসীনরা মিলনের বা আলোচনার সব পথ রুদ্ধ করে দিয়ে নির্বাচনের প্রক্রিয়াকে অকার্যকর করে দিয়ে বিপক্ষকে সংঘর্ষের দিকে ঠেলে দিয়ে তাদের পথের কাঁটা দূর করে দিতে বদ্ধপরিকর। এ অবস্থায় জনসমাবেশ কোনো ফল বয়ে আনবে বলে বিশ্বাসযোগ্য নয়। তাই বলে সংঘর্ষের পথেও হাঁটা যাবে না। সে পথে হাঁটলে বিপদ তথা বিলুপ্তি বা রূপান্তর বা পরিবর্তন আরও ত্বরান্বিত হবে যা ক্ষমতাসীনদের পাতানো ফাঁদে অন্ধের মতো ঝাঁপিয়ে পড়া হবে মাত্র। বর্তমান প্রেক্ষাপটে সভা-সমাবেশ সমাধান নয়, এবং সমাধান নয় সহিংস আন্দোলন বা সহিংস সভা-সমাবেশ। খেয়ালে নিতে হবে যে, বাংলাদেশের ক্ষমতাসীনদের জনপ্রিয়তায় এখন একটি বিরাট প্রশ্ন দেখা দিয়েছে। খোদ রাজধানীতে মাত্র ১৭% মানুষ তাদের অনুগত তাও বিরোধীদের নিয়ে। তাই ভাবতে হবে ক্ষমতাসীনদের বিপক্ষের এই জনগোষ্ঠীকে কীভাবে ঐক্যবদ্ধ করে তাদের দাবি পূরণে ক্ষমতাসীনদের বাধ্য করা যায়। যে পক্ষ জনগণের এই বিশাল অংশকে নিজেদের আস্থায় নিতে পারবে আগামী দিনের বাংলাদেশ অবশ্যই তাদেরই পক্ষে যাবে।

 

                লেখক : সাবেক সংসদ সদস্য।


আপনার মন্তব্য