শিরোনাম
প্রকাশ : সোমবার, ১৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ২২:৪৮

চিকিৎসা প্রতারণা

সরকারকে কঠোর হতে হবে

চিকিৎসা প্রতারণা

দেশে ব্যাঙের ছাতার মতো বেসরকারি হাসপাতাল ও ক্লিনিক গড়ে উঠেছে। পাশাপাশি চলছে ডায়াগনস্টিক সেন্টারের মচ্ছব। সাইনবোর্ড-সর্বস্ব এসব প্রতিষ্ঠানে নিয়মনীতির কোনো বালাই নেই। হাতুড়ে টেকনিশিয়ান দ্বারাই চালানো হয় রোগ নির্ণয়ের যাবতীয় পরীক্ষা। মনগড়া রিপোর্ট তৈরি করে তারা ঠকিয়ে চলেছে নিরীহ মানুষকে। একই রোগ পরীক্ষায় একেকটি ডায়াগনস্টিক সেন্টার থেকে একেকরকম রিপোর্ট পাওয়ার নজিরও বিস্তর। পুরুষদের পরীক্ষা রিপোর্টে তুলে ধরা হয় মেয়েলি রোগের হালফিল বিবরণ। মেয়েদের রিপোর্টে কখনো কখনো পুরুষদের বিবরণ দেওয়া হয়। বিলের ক্ষেত্রেও আছে সীমাহীন নিয়ন্ত্রণহীনতা। একই পরীক্ষা-নিরীক্ষা একেক ডায়াগনস্টিক সেন্টারে একেকরকম বিল আদায় করার বিষয়টি ওপেন সিক্রেট। ডায়াগনস্টিক টেস্টের ক্ষেত্রে কোনো মানদ- নিশ্চিত হচ্ছে না। নিশ্চিত হচ্ছে না জবাবদিহি। একশ্রেণির ডাক্তারের সহায়তায় ডায়াগনস্টিক সেন্টার মালিকদের টেস্টবাণিজ্য চলছে বেপরোয়াভাবে। বেশির ভাগ ডায়াগনস্টিক সেন্টারে সরকারি অনুমোদনপ্রাপ্ত সার্টিফিকেটধারী দক্ষ টেকনিশিয়ান নেই। ডায়াগনস্টিক প্রতারণার শিকার মানুষজন বারবার অভিযোগ তুলেও প্রতিকার পাচ্ছেন না। অভিযোগ উঠেছে, কমিশনের লোভে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালসহ বেশির ভাগ সরকারি হাসপাতালের প্যাথলজিক্যাল বিভাগকে স্বয়ংসম্পূর্ণ হতে দেওয়া হয় না। সবচেয়ে দামি আধুনিক যন্ত্রপাতি স্থাপন করা হলেও এবং এগুলোর তত্ত্বাবধানে দক্ষ টেকনেশিয়ানরা কাজ করলেও অজ্ঞাত কারণে দ্রুততম সময়েই সেগুলো অকেজো হয়ে পড়ে। চিকিৎসকদের এক বড় অংশ রোগ নির্ণয় ও তার নিরাময় নয় কমিশন লাভের জন্য বিনা কারণেও নানা পরীক্ষার জন্য রোগীদের ডায়াগনস্টিক সেন্টারে পাঠান। সাধারণ জ্বর বা পেটব্যথা নিয়ে কোনো রোগী হাজির হলেও কয়েক হালি টেস্ট, বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের পরামর্শ, প্রয়োজনে-অপ্রয়োজনে অপারেশন করাসহ জীবন বাঁচানোর পরিবর্তে উল্টো রোগীকে পাঠিয়ে দেওয়া হচ্ছে লাইফ সাপোর্টে। টেস্টের নামে মাত্রাতিরিক্ত অর্থ আদায় এখন অতি সাধারণ বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে। চিকিৎসা ক্ষেত্রে যে সীমাহীন প্রতারণা চলছে তা বন্ধে বেসরকারি হাসপাতাল, ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারগুলোর ওপর কঠোর নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠা জরুরি হয়ে উঠেছে। এ বিষয়ে সরকারের সংশ্লিষ্ট বিভাগগুলোর সক্রিয়তা প্রত্যাশিত।


আপনার মন্তব্য