শিরোনাম
প্রকাশ : মঙ্গলবার, ২২ ডিসেম্বর, ২০২০ ০০:০০ টা
আপলোড : ২১ ডিসেম্বর, ২০২০ ২৩:০৭

ঢাকায় তিন ইউটার্ন

সড়ক যানজটমুক্ত রাখতে প্রশংসনীয় উদ্যোগ

নানামুখী সমস্যায় ঢাকা মহানগরীর জীবনযাত্রা ক্রমেই আরও বেশি মাত্রায় দুর্ভোগময় হয়ে উঠছে। সবচেয়ে প্রকট ও জটিল সমস্যা হলো যানজট। এ নিয়ে অনেক বছর ধরে অনেক কথা বলা হচ্ছে, নানা রকমের উদ্যোগের কথাও মাঝেমধ্যে শোনা যায়, কিন্তু এর সমস্যার সমাধান হচ্ছে না। গত বছর নাম্বি^ও নামের একটি গ্লোবাল ডেটাবেসের সমীক্ষায় ২০১৯ সালে ঢাকা বিশ্বের সর্বাধিক যানজটের শহর হিসেবে চিহ্নিত হয়। যানজট নিরসনে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন (ডিএনসিসি) এলাকায় তিনটি ইউটার্ন চালু করা হয়েছে। রবিবার ইউটার্নগুলো যান চলাচলের জন্য খুলে দেওয়া হয়। এগুলো হচ্ছে তেজগাঁও বিজি প্রেসের সামনে, নাবিস্কো-কোহিনূর কেমিক্যাল মোড় ও বনানী চেয়ারম্যানবাড়ী এলাকা। এ নিয়ে এখন পর্যন্ত ডিএনসিসিতে মোট ছয়টি ইউটার্ন চালু হলো। এর আগে বিমানবন্দর সড়কে কাওলা ফ্লাইং একাডেমি এলাকা, উত্তরা র‌্যাব-১ কার্যালয়ের সামনের রাস্তা ও উত্তরা আজমপুর বাসস্ট্যান্ড-সংলগ্ন এলাকায় তিনটি ইউটার্ন চালু করা হয়। এ ছাড়া ঢাকা উত্তর সিটিতে আরও চারটি ইউটার্ন নির্মাণের কাজ চলমান রয়েছে। ডিএনসিসি বলছে ইউটার্নগুলো চালুর ফলে সড়কে যানজট আরও কমে যাবে, বাঁচবে যাতায়াতের সময়। আর সব কটি ইউটার্ন চালু হলে নগরবাসীর ভোগান্তি কিছুটা কমে যাবে। উল্লেখ্য, প্রয়াত মেয়র আনিসুল হক সাতরাস্তা মোড় থেকে আবদুল্লাহপুর পর্যন্ত সড়কের ১১টি স্থানে ইউটার্ন নির্মাণের উদ্যোগ নিয়েছিলেন। ২০১৭ সালে নির্মাণের কাজ শুরুও হয়। সংশোধিত প্রকল্পের কাজ ২০২১ সালের জুনের মধ্যে শেষ হওয়ার কথা। ঢাকার যানজট শুধু সড়কগুলোয় যানবাহন চলাচলে বিশৃঙ্খলা ও ট্রাফিক নিয়ন্ত্রণের অব্যবস্থাপনা ও অদক্ষতার ফল নয়। এ মহানগরীতে সড়কের তুলনায় যানবাহনের যে প্রাচুর্য, তা একেবারেই অস্বাভাবিক। সুতরাং রাজপথ-ফুটপাথ দখলের বদভ্যাস নিয়ন্ত্রণে এনে ঢাকার রাস্তাকে যানজটমুক্ত করা আশু প্রয়োজন।


আপনার মন্তব্য