শিরোনাম
প্রকাশ : সোমবার, ৩১ মে, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ৩০ মে, ২০২১ ২৩:০০

কতটা নিরাপদে- নিরাপদ মাতৃত্ব

অধ্যাপক ডা. রওশন আরা বেগম

কতটা নিরাপদে- নিরাপদ মাতৃত্ব
Google News

নিরাপদ মাতৃত্ব একজন মায়ের  অধিকার। তিনি এ অধিকারবলে তাঁর নিজের জীবন সুস্থ রাখার এবং একটি সুস্থ সন্তান পাওয়ার অধিকার রাখেন।  ১৯৮৭ সালে পৃথিবীজুড়ে যখন মাতৃস্বাস্থ্য নিয়ে কথা উঠল তখনই Safe Motherhood initiative ঠিক করল উন্নয়নশীল দেশগুলোয় মা এবং স্বাস্থ্যকর্র্মীদের সচেতনতা বাড়ানোর জন্য একটি দিন নির্দিষ্ট করে তা পালনের। বাংলাদেশেও এ দিনটি ঠিক করা হয়েছে ২৮ মে। বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থাও এ নিরাপদ মাতৃত্ব রক্ষা করার জন্য চারটি সুপারিশমালা দিয়েছে- ১. প্রসব-পূর্ববর্তী সেবা ২. নিরাপদ প্রসবব্যবস্থা ৩. জরুরি ভিত্তিতে ব্যবস্থা গ্রহণ ৪. জন্মনিয়ন্ত্রণের ব্যবস্থা করা। সেই সঙ্গে এ Safe Motherhood ছয়টি Pillar অথবা খুঁটির ওপর কাজ করার কথা বলেছে- ১. জন্মনিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থা ২. প্রসব-পূর্ববর্তী সেবা ৩. প্রসবকালীন সেবা ৪. প্রসব-পরবর্তী সেবা ৫. গর্ভপাত-পরবর্তী সেবা ও ৬. যৌনবাহিত রোগ/এইচআইভি রোগ প্রতিরোধের ব্যবস্থা গ্রহণ। এসব ঘোষণার পরও সারা পৃথিবীতে প্রতিদিন প্রায় ৮০০ মা জীবন দিচ্ছেন প্রসবকালীন এবং প্রসবের সময়/প্রসব -পরবর্তী জটিলতার কারণে।

বাংলাদেশে প্রতিদিন ১৪ জন মা এসব জটিলতায় জীবন দিচ্ছেন। আমরা যদি বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থার চারটি পিলারের কথা ধরি তাহলে দেখি প্রথম পিলারটি ANC অর্থাৎ প্রসব-পূর্ববর্তী পরিচর্যার কথা। নিরাপদ মাতৃত্ব সেবা দেওয়ার এটি একটি প্রথম শর্ত। কারণ যখনই একজন নারী গর্ভবতী হবেন তখনই তাঁকে ঝুঁকিপূর্ণ বলে বিবেচনা করতে হবে এবং তাঁকে প্রসব-পূর্ববর্তী সেবার মধ্যে কমপক্ষে আটবার চিকিৎসক অথবা স্বাস্থ্যকর্মীর মাধ্যমে সেবা নিতে হবে স্বাস্থ্য কেন্দ্রে এসে। বাংলাদেশে মাত্র একবার এ সেবা নেন ৮২ শতাংশ মা, সর্বোচ্চ চারবার আসেন ৪৭ শতাংশ মা এবং দেখা যায় এর মধ্যে মানসম্পন্ন সেবা পান মাত্র ১৮ শতাংশ। মানসম্পন্ন সেবা বলতে আমরা বুঝি ১. কমপক্ষে চারবার তাঁকে প্রসব-পূর্ববর্তী (ANC) সেবা নিতে হবে প্রসবঝুঁকি এড়ানোর জন্য ২. কমপক্ষে একবার তাঁকে চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে ৩. তাঁর ওজন ও রক্তের চাপ মাপতে হবে ৪. তাঁর রক্তের শর্করা (Blood Sugar) ও প্রস্রাবের পরীক্ষা ৫. এবং তাঁকে প্রসবকালীন ঝুঁকিগুলো সম্পর্কে অবহিত করতে হবে।

বাংলাদেশে এখনো ৫০ শতাংশ মা বাড়িতে ডেলিভারি করান, বাকি ৫০ শতাংশ প্রাতিষ্ঠানিক ডেলিভারি অর্থাৎ সরকারি-বেসরকারি হাসপাতালে হয়। এর মধ্যে ৩২ শতাংশ প্রসব সরকারি হাসপাতাল, ১৪ শতাংশ প্রাইভেট হাসপাতাল ও ক্লিনিকে আর ৪ শতাংশ হয় দাতা সংস্থাদের ক্লিনিকে।

এরই মধ্যে প্রসবকালীন, প্রসবের সময় এবং প্রসব-পরবর্তী সময়ের জটিলতায় মাতৃমৃত্যু প্রতি ১ লাখ মায়ের মধ্যে ১৬৫ জন। মাতৃমৃত্যুর প্রধান দুটি কারণ অতিরিক্ত ক্ষরণ ও খিঁচুনি এবং এ দুটি কারণই প্রতিরোধযোগ্য।

বর্তমানে প্রতি বছর ৩২ লাখ মা সন্তান জন্ম দেন, তার মধ্যে স্বাভাবিক প্রসব হয় প্রায় ২১ লাখ ৪২ হাজার (৬৯%) এবং সিজারিয়ান হয় ৯ লাখ ৫২ হাজার (৩২%)। আমাদের সামনে সব পরিসংখ্যানই বলে দেয় আমাদের অবশ্যই মানসম্পন্ন প্রসব-পূর্ববর্তী সেবা দিতে হবে (Quality ANC), ২৪/৭ দিন প্রাতিষ্ঠানিক প্রসবের জন্য ব্যবস্থা নিতে হবে এবং পরীক্ষিত সেবাসমূহ নিশ্চিত করতে হবে (Ensure Evidence based Care-EEC).

সবকিছুই করা সম্ভব। সেজন্য আমাদের অবশ্যই নিরাপদে মাতৃত্ব সেবার প্রতি জরুরি ভিত্তিতে ব্যবস্থা নিতে হবে। বাংলাদেশের স্বাস্থ্যের অবকাঠামো পৃথিবীর যে কোনো দেশের চেয়েই বিজ্ঞানসম্মত এবং উন্নত। তার পরও আমাদের এ অবস্থা কেন? বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী আমাদের সেবা প্রদানের মানবসম্পদ হওয়া উচিত প্রতি ১০ হাজারে ৪৫ জন সেখানে আমাদের প্রতি ১০ হাজারে কাজ করছেন আটজন মাত্র। তাহলে প্রথমেই হচ্ছে সেবাদানের জন্য সবচেয়ে জরুরি মানবসম্পদ। প্রসবসেবার জন্য অন্যতম মানবসম্পদ মিডওয়াইফ। মিডওয়াইফ তৈরি করতে হবে। তারাই মূলত প্রসবকালীন এ যাত্রায় সেবা দান করবেন। এ ছাড়া প্রসবের সময় তাদের জন্য প্রতিষ্ঠানকে অর্থাৎ চিকিৎসা কেন্দ্রগুলোয় মাতৃবান্ধব প্রসবঘর তৈরি রাখতে হবে। সেখানে তাদের সঙ্গে তাদের একজন সঙ্গী রাখা হবে যিনি তাকে সাহস দেবেন, তার ব্যথা সম্পর্কে বোঝাবেন। স্বাস্থ্যকর্মীদের দায়িত্ব হবে মর্যাদা ও মানসম্পন্ন সেবা দেওয়া। এর পরই আসে ২৪/৭ অর্থাৎ সপ্তাহের সাত দিনই ২৪ ঘণ্টা প্রসূতি মা সেবা কেন্দ্রে সেবা পাবেন সেই প্রস্তুতি রাখা। বর্তমান প্রসবঘরটি মাতৃবান্ধব করার জন্য স্বাস্থ্য পরিদফতর, স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় পেশাজীবীদের সঙ্গে সমন্বয় করে কাজ করা হচ্ছে। প্রতিটি প্রসবঘরে রক্তক্ষরণ ও খিঁচুনি বন্ধের জন্য জরুরি ওষুধ রাখার ব্যবস্থা করেছে এবং স্বাস্থ্যকর্মীদের প্রশিক্ষণ দেওয়া হচ্ছে। স্বাভাবিক প্রসবের জন্য স্কুয়াটিং চেয়ার, বেঞ্চসহ সব ধরনের ব্যবস্থা রাখা হবে এবং হচ্ছে।

প্রাতিষ্ঠানিক ডেলিভারি বাড়ানোর জন্য যে ৫০ শতাংশ বাড়িতে হচ্ছে তাদের আহ্বান করতে হবে। বর্তমানে মাতৃমৃত্যুর প্রধান যে দুটি কারণ রক্তক্ষরণ ও খিঁচুনি, এ দুটিই কিন্তু বাড়িতে প্রসবের জন্য হচ্ছে। বাড়িতে জরুরি ভিত্তিতে রক্তক্ষরণ বন্ধের জন্য দুটি বড়ি তাদের দিয়ে দেওয়া হয় নিকটস্থ স্বাস্থ্য কেন্দ্র থেকে, যার মূল্য খুবই কম। প্রসবের পরপর মিসোপ্রস্টল নামে এ দুটো বড়ি জিবের নিচে দিয়ে দিলে প্রাথমিক রক্তক্ষরণ অনেকটাই কমে যায়। খিঁচুনি বন্ধ করার জন্য দুটি ইনজেকশন মাংসপেশিতে দিয়ে দিলে পরবর্তী খিঁচুনির জটিলতাও অনেকটা কমে যায়। সব প্রচেষ্টা সফলে আমাদের কাজ করতে হবে। আজকের এই নিরাপদ মাতৃত্ব দিবসে মায়ের অধিকারের প্রতি আমাদের শ্রদ্ধাশীল হতে হবে। পরিবার, সমাজ, পেশাগত সফলে সবাইকে একসঙ্গে ফিরে তাকাতে, ঘুরে দাঁড়াতে হবে। আমরা আমাদের আর একজন মাকেও সন্তান জন্ম দেওয়ার সময় কোনো জটিলতায় মৃত্যুর অভিশাপে যেতে দেব না- এই হোক নিরাপদ  মাতৃত্ব দিবসের অঙ্গীকার।

লেখক : সাবেক বিভাগীয় প্রধান (প্রসূতি ও স্ত্রী রোগ বিভাগ) হলি ফ্যামিলি রেড ক্রিসেন্ট মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল সাবেক সভাপতি, ওজিএসবি।