শিরোনাম
প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ৩ জুন, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ২ জুন, ২০২১ ২৩:১৮

স্ক্রিনশট এবং গোপনীয়তা লঙ্ঘন

জয়নব তাবাসসুম বানু সোনালী

স্ক্রিনশট এবং গোপনীয়তা লঙ্ঘন
Google News

‘আন-স্মার্ট’ ফোনের যুগে মানুষ একে অন্যের সঙ্গে একে অন্যকে নিয়ে কথা বলে, গল্প করে সময় কাটাত, বিনোদন নিত। একজন আরেকজনের কথা উদ্ধৃত করে আরও ১০ জনকে বলত। ১০ কান থেকে সে কথা অতিরঞ্জিত হয়ে এবং আরও বেশ কিছু মনের মাধুরীর সঙ্গে মিলেমিশে পৌঁছাত আরও ১০ কানে। এক প্রজন্মের মানুষের কাছে কানকথাই ছিল বিনোদনের অন্যতম উৎস। বিশ্বায়নের এ যুগে এখনকার স্মার্টফোন প্রজন্ম মুখের চেয়ে আঙুল বেশি ব্যবহার করে। তারা বলে কম, লেখে বেশি। যোগাযোগ করে কম, সমালোচনা করে বেশি। কীভাবে? এই যে স্মার্টফোনের একটা বাটন চাপলেই ছবি তুলে ফেলা যায় পুরো স্ক্রিনের। এ ফিচারকে বলা হয় স্ক্রিনশট। বর্তমান প্রজন্মের ছেলেমেয়েরা এ স্ক্রিনশট নিতে দারুণ পারদর্শী। তারা একটা বাটন চেপে নিমেষেই তুলে ফেলে কোনো একটা প্রাইভেট মেসেজের ছবি আর সেটা ছড়িয়ে দেয় তাদের মাঝে যাদের এ মেসেজ দেখার কথাই নয়। এখন প্রশ্ন হলো, সাময়িক এ আনন্দ যে কতজনের জন্য কতটা দুর্ভোগের কারণ হতে পারে সে কথা কি তারা জানে?

কোনো গোপন মেসেজের স্ক্রিনশট নিয়ে তা ছড়িয়ে দেওয়া মোটেও নিরীহ এবং মজার ব্যাপার নয়। যারা এ কাজটি করে থাকে সাময়িক ক্ষণের জন্য তারা এক প্রকারের অমানবিক আনন্দ পায়। তবে বস্তুত এ গোপনীয়তা লঙ্ঘনকারী এমন কিছু স্ক্রিনশটের কারণে কত সম্পর্কের মধ্যে যে টানাপোড়েন গেল, কত সম্পর্ক ভেঙে গেল নিমেষেই, সে এক অভাবনীয় ঘটনা। মাত্র একটা স্ক্রিনশটই যথেষ্ট সবটা ধ্বংস করে দেওয়ার জন্য। আপনি যখন ইনবক্স বা প্রাইভেট মেসেজের একটা স্ক্রিনশটকে ছড়িয়ে দেন, তা শুধু অন্যের ব্যক্তিগত গোপনীয়তাই হানি করে না, বরং আপনার নিজেরও সম্মান নষ্ট করে দেয়। আমি অবশ্যই চালডাল ডটকম বা গ্রামীণফোনের নৈমিত্তিক হারে পাঠানো মেসেজগুলোর কথা বলছি না। সেসব তো সবার জানা এবং অনেক সময় বিনোদনমূলকও। আমি বলছি সেসব স্ক্রিনশটের কথা যা মানুষের গোপনীয়তার অধিকার লঙ্ঘন করে।

ভেবে দেখুন তো, আপনি যখন একজন ব্যক্তির সঙ্গে মেসেজ বা মেসেঞ্জারে ভাব কিংবা মতামত বিনিময় করেন সে কথাগুলো কি শুধু আপনার এবং তাঁর ভিতরেই সীমাবদ্ধ থাকার কথা নয়? সেগুলো পুরো দুনিয়ার জানার কোনো প্রয়োজন আছে কি? অথবা ভাবুন একটা গ্রুপ চ্যাটের কথা। সেখানে বন্ধুরা মিলে খোলাখুলিভাবে অনেক ব্যাপারেই আলোচনা-সমালোচনা করে। এখন বন্ধুদের এ মেসেজগুলো যদি কেউ স্ক্রিনশট নিয়ে অন্যদের দেখায়, আপনার কি মনে হয় না ‘বন্ধুত্ব’কে আবার সংজ্ঞায়িত করা সময়ের দাবি?

বর্তমান যুগে স্ক্রিনশট হয়ে উঠেছে এক ধরনের ভার্চুয়াল অস্ত্র যা দিয়ে খুব নির্মমভাবে সম্পর্কগুলোকে নষ্ট করা যায়। অনেক সময় শিক্ষার্থীদের কাছে শিক্ষকের অনেক কথা ভালো লাগে না। যেহেতু তারা শিক্ষককে বা সবার সামনে সরাসরি কথাগুলো বলতে পারে না, তারা তাদের ‘বিশ্বস্ত’ কিছু বন্ধুর সঙ্গে শেয়ার করে। করোনাকালীন অন্যতম প্রহসন হলো ভার্চুয়াল বন্ধুমহল যেখানে যাকে বন্ধু বলে মনে হয় সে আদৌ হয়তো সাধারণ শুভাকাক্সক্ষী নয়। কিছু শিক্ষার্থী শিক্ষকের চোখে ভালো সাজার জন্য গোপনীয় এই মেসেজের স্ক্রিনশট তুলে শিক্ষককে পাঠিয়ে দেয়। এতে প্রথম দিকে শিক্ষার্থীদের আদবহীন আচরণ দেখে শিক্ষকের মন ভার হলেও শেষ যাত্রায় তারা এই স্ক্রিনশটের একপক্ষীয় ফাঁদে পা দেন না। এতে যে বা যারা স্ক্রিনশট তুলে পাঠায় তারাই শিক্ষকের চোখে নিজেদের সম্মান হারায়।

আমি নিজে কিছু বেদনাদায়ক ঘটনা প্রত্যক্ষ করেছি যার ঘটনার মূলেই এই স্ক্রিনশট সংস্কৃতি। ফেসবুকে মেয়েদের একটি গ্রুপে একজন ভদ্রমহিলা তাঁর শাশুড়িকে নিয়ে বেশ কিছু আপত্তিকর এবং অসম্মানজনক কথা লিখে পোস্ট করেন। নিশ্চয়ই তিনি মানসিকভাবে হতাশায় ছিলেন, কিন্তু দুঃখ ভাগাভাগি করার মানুষ পাচ্ছিলেন না। তাই মেয়েদের একটি গ্রুপই বেছে নিলেন। সেই গ্রুপেরই আরেকজন ভদ্রমহিলা তাঁর পোস্টটির স্ক্রিনশট তুলে পোস্টদাত্রীর শাশুড়ি এবং স্বামীর কাছে পাঠিয়ে দেন। এর পরের ঘটনা খুবই বেদনাদায়ক। আকাশসমান ভুল বোঝাবুঝি আর ঝগড়াঝাঁটি তাদের সম্পর্ককে একেবারে নষ্ট করে দেয়। তালাকের ঠিক আগমুহূর্তে একমাত্র সন্তানের দিকে তাকিয়ে কোনোভাবে তারা ভাঙা সম্পর্ক জোড়া লাগান।

আরেকটা লজ্জাজনক ঘটনা ঘটে এই স্ক্রিনশট শেয়ার করার কারণে। একজন প্রাক্তন প্রেমিক তাঁর প্রেমিকার ওপর রাগ করে তাদের সব গোপন মেসেজের স্ক্রিনশট তুলে পাঠিয়ে দেয় মেয়েটার নতুন বিবাহিত স্বামীর কাছে। কোনো এককালের গভীর প্রেম ভাঙার ফলে রাগে, অভিমানে, দুঃখে ছেলেটা পরিকল্পনা করে মেয়েটার সুখের ঘরে আগুন দেবে এবং সে দেয়ও। প্রেমিক-প্রেমিকার ভিতরের গভীর প্রেমালাপ যে একটা স্বাভাবিক এবং সাধারণ ঘটনা তা বুঝতে গবেষণাপত্র পাঠ করার প্রয়োজন নেই। তবে যে কোনো কারণে যদি সে সম্পর্ক না টেকে তখন এই আলাপের স্ক্রিনশট ফাঁস করে দেওয়া নিশ্চয়ই একটি কুরুচিসম্পন্ন ও বিকারগ্রস্ত আচরণ। ভালোবাসা কি আমাদের একে অন্যকে সম্মান করতে শেখায় না? প্রেম না টিকলেও ভালোবাসা যদি সত্য হয় তাহলে একে অন্যের সম্মান আর গোপনীয়তা রক্ষা করাই কি কাম্য নয়?

এখন সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্ন হলো, কীভাবে এই স্ক্রিনশট কালচারকে আমরা পরবর্তী প্রজন্মের চর্চা থেকে দূরে রাখতে পারি? দুটো উপায় আছে : একটি, যারা স্ক্রিনশট নিয়ে ছড়ায় সেশন ‘অপরাধীদের’ জন্য, আর দ্বিতীয়টি, যারা এর ফাঁদে পড়ে ফিকটিম হয়ে ওঠে তাদের জন্য। প্রথমেই বলি প্রথম দলভুক্তদের কথা। যে কোনো মানুষেরই অন্যের গোপনীয়তার ব্যাপারে শ্রদ্ধাশীল হতে হবে। লাতিন আমেরিকান লেখক গাব্রিয়েল গার্সিয়া মার্কেজ লিখেছেন, ‘মানুষের তিনটি জীবন থাকে : সর্বজনীন জীবন, ব্যক্তিগত জীবন এবং গোপন জীবন।’ এ তিনটি জীবনকে যে সীমারেখা আলাদা করে সেই সীমারেখা নির্ধারণ করতে জানতে হবে। যা ব্যক্তিগত, তা ব্যক্তিগতই। দুজন বা একটি দলের ভিতরের কথোপকথনের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিবর্গের পরিধি ছাড়ানো উচিত নয়।

যুক্তরাজ্যে কারও অনুমতি ছাড়া কোনো স্ন্যাপচ্যাটের স্ক্রিনশট নেওয়া একটি দন্ডনীয় অপরাধ। এ অবস্থায় মূল লেখক চাইলে অপরাধীকে জেলেও পাঠাতে পারেন। তবে রাষ্ট্রদোহী মেসেজের ব্যাপার ভিন্ন। ব্যক্তিগত গোপনীয়তা রক্ষা করার জন্যই এমন আইন।

এবার আসি দ্বিতীয় দলভুক্ত অর্থাৎ ভিকটিমদের কাছে। তাদের অবশ্যই কোনো ফোরামে, ফেসবুক, মেসেঞ্জার, হোয়াটসঅ্যাপ বা যে কোনো অনলাইন ফোরামে কিছু লেখার আগে ভাবা উচিত। কথায় বলে, ‘ভাবিয়া করিও কাজ’। যখন কিছু লিখিত হয় তখনই তা প্রমাণপত্র হয়ে ওঠে। যে বা যারা স্ক্রিনশট নেয় তারা সেই স্ক্রিনের আগে-পরের কথাগুলোকে বেমালুম খারিজ করে দিয়ে শুধু সেই নির্দিষ্ট স্ক্রিনশট দিয়েই অন্যকে ভিকটিম বানায়। মূল লেখার আগে-পরের লেখা না জানলে পুরো ঘটনাই খুব জটিল হয়ে পড়ে। কোনো একটা বিশেষ মুহূর্তে আপনি হয়তো এমন কাউকে নিয়ে এমন কিছু লিখেছেন যা ওই মুহূর্ত আর সেই সময়ে আপনার মানসিক স্থিতির সাপেক্ষে ঠিক। আপনি হয়তো কাউকেই ছোট করার জন্য লেখেননি। কিন্তু এই লেখার স্ক্রিনশট ছড়িয়ে গেলে আপনার নিজের লেখা শব্দের দংশনেই হয়তো আপনাকে দংশিত হতে হবে। কাজেই সব অনুভূতি গ্রুপ মেসেজ বা লিখে শেয়ার না করাই ভালো। কাছের মানুষের সঙ্গে কথা বলেও হালকা হওয়া যায়, যাকে সিগমুন্ড ফ্রয়েড বলেছেন ‘টকিং কিয়োর’।

এই ভার্চুয়াল রিয়েলিটির যুগে আমরা বিনোদনের সুস্থ এবং সুষ্ঠু উপায় প্রায়শই খুঁজে পাই না। অন্যের জীবনে দুর্ভোগ ঠেলে দিয়ে আমরা আনন্দ আস্বাদনের চেষ্টা করি। অন্যের ক্ষতি ও অন্যকে অসম্মান করার এমন প্রবণতা থেকে যে করেই হোক পরিত্রাণ পেতে হবে। আমরা একটি অনিরপেক্ষ, সুসংগত ও শান্তিময় সমাজ গড়ার চেষ্টা করছি। স্ক্রিনশট কালচারের বিষাক্ত বলয় থেকে নিজেকে মুক্ত করে একে অন্যের প্রতি শ্রদ্ধাপূর্ণ আচরণ করতে না পারলে ভবিষ্যতে আমাদেরই ভীষণ বিপদ হবে। সুতরাং, আসুন পরিশুদ্ধ হই এবং পৃথিবীটাকে আরও সুন্দর করে মিলেমিশে বাসযোগ্য করে তুলি।