শিরোনাম
প্রকাশ : ৮ ডিসেম্বর, ২০১৯ ১১:৪১
আপডেট : ৮ ডিসেম্বর, ২০১৯ ১২:০৪
প্রিন্ট করুন printer

খবর আল জাজিরা'র

নোবেল পুরস্কার অনুষ্ঠান বয়কটের সিদ্ধান্ত কসোভো'র

অনলাইন ডেস্ক

নোবেল পুরস্কার অনুষ্ঠান বয়কটের সিদ্ধান্ত কসোভো'র
ফাইল ছবি

নোবেল পুরস্কারের অনুষ্ঠান বয়কট করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে কসোভো। অস্ট্রিয়ার লেখক পিটার হ্যান্ডককে নোবেল সাহিত্য পুরস্কার দেওয়ায় এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছে দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী এই তথ্য জানিয়েছেন।

সাবেক যুগোস্লোভিয়ায় ১৯৯০ এর দশকের যুদ্ধে সার্বিয়াকে সমর্থন করে বই লেখায় লেখক পিটার হ্যান্ডককের কড়া সমালোচনা করে আসছে কসোভো। এছাড়া বসনিয়া এবং হার্জেগোভিনিয়াও তার সমালোচনা করছে।

গত অক্টোবরে সুইডিশ অ্যাকাডেমি লেখক পিটার হ্যান্ডককে নোবেল পুরস্কার দেওয়ার কথা ঘোষণা করে। সুইডেনে আগামী মঙ্গলবার নোবেল পুরস্কারের অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হবে।


বিডি-প্রতিদিন/ সিফাত আব্দুল্লাহ


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৬ জানুয়ারি, ২০২১ ১৭:২৭
প্রিন্ট করুন printer

ইসরায়েলের সাহায্যে আঞ্চলিক প্রভাব বিস্তারই লক্ষ্য আমিরাতের

অনলাইন ডেস্ক

ইসরায়েলের সাহায্যে আঞ্চলিক প্রভাব বিস্তারই লক্ষ্য আমিরাতের

সংযুক্ত আরব আমিরাতের রাজধানী আবুধাবিতে আনুষ্ঠানিকভাবে দূতাবাস উদ্বোধন করেছে ইসরায়েল। গত বছরের সেপ্টেম্বর থেকে ডিসেম্বরের মধ্যে চারটি আরব দেশ অর্থাৎ সংযুক্ত আরব আমিরাত, সুদান, বাহরাইন ও মরক্কো ইসরায়েলের সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্ক স্থাপনের ব্যাপারে সমঝোতা পত্রে সই করেছিল। সংযুক্ত আরব আমিরাতই প্রথম দেশ যে কিনা গত ১৫ সেপ্টেম্বর ইসরায়েলের সাথে সম্পর্ক স্বাভাবিক করার বিষয়ে চুক্তিতে সই করেছিল।

সেপ্টেম্বরে সম্পর্ক স্থাপনের পর থেকেই আমিরাত ও ইসরায়েলের মধ্যে সরাসরি বিমান চলাচল শুরু হয় এবং দু'পক্ষের বাণিজ্যিক প্রতিনিধিদের সফর বিনিময় অব্যাহত রয়েছে। এছাড়া এ পর্যন্ত ইসরায়েলের হাজার হাজার পর্যটক সংযুক্ত আরব আমিরাত সফর করেছে। ইসরায়েল আবুধাবিতে দূতাবাস স্থাপন করা ছাড়াও দুবাইতে কনস্যুলেট স্থাপনের চেষ্টা করছে।

পর্যবেক্ষকরা বলছেন, সর্বাত্মক সম্পর্ক ও সহযোগিতা বিস্তারের এই পদক্ষেপ থেকে বোঝা যায় সংযুক্ত আরব আমিরাত ইসরায়েলের সঙ্গে সম্পর্ক প্রতিষ্ঠার বিষয়টিকে তাদের পররাষ্ট্রনীতিতে অগ্রাধিকার দিয়েছে এবং পর্যায়ক্রমে তারা সম্পর্ক আরও গভীর করার দিকে এগিয়ে যাচ্ছে। যদিও সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের প্রচেষ্টার কারণে ইসরায়েলের সাথে আরব দেশগুলোর সম্পর্ক প্রতিষ্ঠার কাজ শুরু হয়েছে কিন্তু সুদান ও মরক্কোর তুলনায় মানামা ও আবুধাবি সরকারের এ ব্যাপারে অতি উৎসাহের পেছনে বিভিন্ন কারণ রয়েছে।

যদিও ইয়েমেনের বিরুদ্ধে যুদ্ধে সৌদি আরবের প্রধান শরীক হচ্ছে সংযুক্ত আরব আমিরাত কিন্তু মধ্যপ্রাচ্যে প্রভাব বিস্তারের জন্য রিয়াদের প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বিতে পরিণত হয়েছে আবুধাবি। প্রকৃতপক্ষে আমিরাত দখলদার ইসরায়েলের সঙ্গে সম্পর্ক স্বাভাবিক করার মাধ্যমে একদিকে সৌদি আরবের ওপর তাদের নির্ভরতা থেকে বেরিয়ে আসার চেষ্টা করছে অন্যদিকে পশ্চিম এশিয়ার বিভিন্ন ইস্যুতে ইসরায়েলের সমর্থন নিয়ে এ অঞ্চলে নিজের অবস্থান শক্তিশালী করার চেষ্টা করছে আবুধাবি।

আমিরাত এমন সময়ে দখলদার ইসরায়েলের সঙ্গে সর্বাত্মক সহযোগিতা বিস্তারের চেষ্টা করছে যখন দখলদার ইসরায়েল গত দুই বছর ধরে চরম অভ্যন্তরীণ সংকটে জর্জরিত। ৩১ সপ্তাহের বেশি সময় ধরে ইসরায়েলের নাগরিকরা প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহুর পদত্যাগের দাবিতে বিরতিহীনভাবে বিক্ষোভ মিছিল করে আসছে।

আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হচ্ছে আমেরিকার বাইডেন প্রশাসন ক্ষমতা গ্রহণের শুরু থেকেই সংযুক্ত আরব আমিরাত আবুধাবিতে ইসরায়েলি দূতাবাস স্থাপন অন্যদিকে তেল আবিবে আবুধাবির দূতাবাস স্থাপনের পদক্ষেপ নিয়েছে যা খুবই তাৎপর্যপূর্ণ। বলা যায় এই পদক্ষেপের মাধ্যমে আমিরাত প্রেসিডেন্ট বাইডেনের সুনজর কাড়ার চেষ্টা করছেন এবং তারা যুক্তরাষ্ট্রকে এ বার্তা দিতে চায় যে ট্রাম্প ক্ষমতায় না থাকলেও আবুধাবি চিন্তিত নয়।

এদিকে ইসরায়েলের সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্ক স্থাপনের পর তুরস্কে বসবাসকারী আমিরাতের রাজনৈতিক কর্মী হামাদ আলে শামস বলেছেন, আমিরাতে ইসরায়েলের সঙ্গে সম্পর্ক স্থাপনে যারাই বিরোধিতা করবে তাদেরকে ১০ বছরের কারাদণ্ড এবং জরিমানার ব্যবস্থা করা হয়েছে যাতে কেউ প্রতিবাদ করতে না পারে।

বিডি-প্রতিদিন/বাজিত হোসেন


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৬ জানুয়ারি, ২০২১ ১৭:০০
প্রিন্ট করুন printer

লালকেল্লায় উড়ছে কৃষকদের পতাকা!

অনলাইন ডেস্ক

লালকেল্লায় উড়ছে কৃষকদের পতাকা!

ভারতের রাজধানী দিল্লিতে ঢুকতে গিয়ে পুলিশের সাথে ব্যাপক সংঘর্ষ হয়েছে কৃষি সংস্কারের বিরুদ্ধে আন্দোলনরত কৃষকদের। নতুন আইনের বিরুদ্ধে হাজার হাজার কৃষক ট্রাক্টর চালিয়ে শহরে প্রবেশের চেষ্টা করেন।

কয়েকটি জায়গায় কৃষকরা পুলিশের ব্যারিকেড ভেঙে ফেলে এবং তাদের জন্য নির্ধারিত রুটে না গিয়ে অন্য দিকে এগিয়ে যায়। ভারতের ইতিহাস অন্যতম দীর্ঘ এই কৃষক আন্দোলন চলছে প্রায় দুই মাস ধরে।

এদিকে কৃষকদের মিছিল লালকেল্লায় পৌঁছে গেছে। শুধু পৌঁছে গেল তাই নয়, লালকেল্লায় পৌঁছে কৃষক আন্দোলনের পতাকা উড়িয়ে দিলেন তারা। সংঘর্ষ, কাঁদানে গ্যাস, লাঠিচার্জ। কিছু দিয়েই পুলিশ নিয়ন্ত্রণে আনতে পারল না প্রতিবাদী কৃষকদের। 

মঙ্গলবার সকাল থেকেই তিন সীমানায় সব ব্যারিকেড ভেঙে চুরমার। পুলিশের ঘোষিত পথে গেল না হাজার হাজার ট্রাক্টর। পথ পাল্টে লালকেল্লায় গিয়ে কৃষকদের মধ্যে থেকে আওয়াজ উঠল ‘অকুপাই দিল্লি’।

পুলিশের ঘোষণা ছিল, মঙ্গলবার সকাল ১২টার দিকে কৃষকদের মিছিল নির্দিষ্ট তিনটি রুটে গিয়ে আবার উৎসস্থলে ফিরে আসবে। কিন্তু বাস্তবে ঘটল উল্টো। সকাল ৮টা থেকে লাগামছাড়া গতিতে দিল্লির দিকে ধেয়ে আসতে থাকে মিছিল। পুলিশের বাধা কেউ মানেননি। আর তাই নিয়ে উত্তপ্ত হয়েছে দিল্লির নয়ডা মোড়, আইটিও মোড়, এসবিটি এলাকা।

একাধিক ফুটেজে দেখা গেছে, কৃষকদের ছত্রভঙ্গ করতে কাঁদানে গ্যাস নিক্ষেপ করেছে পুলিশ। পুলিশ লাঠিচার্জ করেও পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনার চেষ্টা করে। কিন্তু তাতে লাভ হয়নি।

বিডি-প্রতিদিন/বাজিত হোসেন


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৬ জানুয়ারি, ২০২১ ১৬:৪৩
প্রিন্ট করুন printer

ভারতের প্রজাতন্ত্র দিবসে সরকারি দফতরে উড়লো উল্টো পতাকা!

অনলাইন ডেস্ক

ভারতের প্রজাতন্ত্র দিবসে সরকারি দফতরে উড়লো উল্টো পতাকা!

ভারতে প্রজাতন্ত্র দিবসের সকালে উল্টো করে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করা হয়েছে। আর এই ছবি ধরা পড়লো পশ্চিমবঙ্গের বাঁকুড়া শহরের প্রাণকেন্দ্র হিসেবে পরিচিত মাচানতলায়। দীর্ঘক্ষণ এভাবে পতাকা উড়লেও হুঁশ ফেরেনি ওই পতাকা উত্তোলনকারী বাঁকুড়া দক্ষিণ বনবিভাগের কার্যালয়ে।

একটি সরকারি দফতরের জাতীয় পতাকার এই অবমানায় শহর জুড়ে তীব্র চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে। পরে বিষয়টি সংবাদ মাধ্যমের প্রতিনিধিদের নজরে আসায় বনদফতরের কর্মী-কর্মকর্তারা দ্রুত জাতীয় পতাকা সোজা করে ফের উত্তোলন করেন। যদিও তারা এ বিষয়ে কেউ সংবাদমাধ্যমের সামনে মুখ খুলতে চাননি।

তবে একটি সরকারি দফতরে এই ধরনের দায়িত্ব জ্ঞানহীন কাজ নিয়ে প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে।

বিডি-প্রতিদিন/বাজিত হোসেন


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৬ জানুয়ারি, ২০২১ ১৬:৩৬
প্রিন্ট করুন printer

ভারতে নানা আয়োজনে প্রজাতন্ত্র দিবস উদযাপিত

কলকাতা প্রতিনিধি:

ভারতে নানা আয়োজনে প্রজাতন্ত্র দিবস উদযাপিত

যথাযথ মর্যাদায় ২৬ জানুয়ারী ভারত জুড়ে উদযাপন করা হল ৭২ তম প্রজাতন্ত্র দিবস। মঙ্গলবার দেশটির রাজধানী দিল্লির বিজয়চকে সেনাবাহিনীর কুচকাওয়াজের অভিবাদন গ্রহণ করেন ভারতের রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ। কুচকাওয়াজ অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন উপরাষ্ট্রপতি এম. ভেঙ্কাইয়া নাইডু, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি থেকে শুরু করে কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভার সদস্যরা, বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের শীর্ষ নেতারা, দেশটির তিন সেনাবাহিনীর প্রধান। 

তবে এবারের অনুষ্ঠানে প্রধান অথিতি হিসেবে ব্রিটিশ প্রধান বরিস জনসন আমন্ত্রিত থাকলেও নিজের দেশে করোনার নতুন স্ট্রেন’এর প্রকোপ দেখা দেয়ায় দিল্লি সফর বাতিল করেন তিনি। যদিও এক ভিডিও শুভেচ্ছা বার্তায় জনসন এদিন বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি আপনার আমন্ত্রণে সাড়া দিয়ে আমি এই অনুষ্ঠানে যোগ দিতে চেয়েছিলাম। এদিকে আমাদের একসাথে কোভিডের বিরুদ্ধে লড়াই করতে হচ্ছে তাই বাধ্য হয়ে লন্ডনে থেকে যেতে হল আমাকে। মানবিকতার স্বার্থে দুই দেশই মহামারী মুক্ত করতে সহায়তা করবে।’ তিনি আরও বলেন ‘ভারতের একটি অসাধারণ সংবিধান আছে যা তাকে বিশ্বের বৃহত্তম সার্বভৌম গণতন্ত্র হিসাবে প্রতিষ্ঠিত করেছিল।’ 

চলতি বছরই ভারতে আশার ইচ্ছা প্রকাশ করে তিনি বলেন আমাদের বন্ধুত্বকে জোরদার করতে এই বছরের শেষের দিকে ভারত সফরে যেতে পারি।’ 

এদিন সকাল পৌণে দশটা নাগাদ ভারতীয় রাষ্ট্রপতির জাতীয় পতাকা (তিরঙ্গা) উত্তোলনের মধ্যে দিয়ে সাধারণতন্ত্র দিবসের অনুষ্ঠান শুরু হয়। প্রজাতন্ত্র দিবসের আকর্ষণের কেন্দ্র ছিল সেনাবাহিনীর কুচকাওয়াজ। এরই সঙ্গে যোগ হয়েছিল সেনা ও আধাসামরিক বাহিনীর জওয়ানদের কসরত। এর পাশাপাশি দেশের সাংস্কৃতিক বৈচিত্রও এই কুচকাওয়াজে ফুটে উঠেছিল। বিভিন্ন রাজ্য ও কেন্দ্রের বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের তরফ থেকে সুসজ্জিত ট্যাবলো বের করা হয়। 

তবে করোনা পরিস্থিতির কথা মাথায় রেখে এছর অনুষ্ঠানের সময়সীমা অনেকটাই কমিয়ে আনা হয়। এমনকি বিজয়চক থেকে রেড ফোর্ট ময়দান পর্যন্ত-প্রায় ৮ কিলোমিটার দীর্ঘ যাত্রাপথও প্রায় অর্ধেক করে দেওয়া হয়েছিল। প্রতিবছর পায় ১ লাখ দর্শক হাজির থাকে এই অনুষ্ঠানে, কিন্তু সেখানেও কাটছাঁট করে মাত্র ২৫ হাজার দর্শকাসনের ব্যবস্থা করা হয়েছিল। প্রধানত এদিনই প্রকাশ্যে সামরিক শক্তি প্রদর্শন করে দেশটির সেনাবাহিনী। 

সেকথা মাথায় রেখেই যুদ্ধবিমান রাফাল থেকে তেজস, ট্যাঙ্ক, চপার, ক্ষেপণাস্ত্র- প্রজাতন্ত্র দিবসে নিজেদের সামরিক শক্তি প্রদর্শন করে ভারত। এদিন দিল্লির আকাশে রাফাল যুদ্ধবিমানকে উড়তে দেখা যায়। একলব্য ফর্মেশনে একটি রাফাল, দুইটি জাগুয়ার এবং সেইসাথে ছিল ২টি মিগ-২৯। প্রতি ঘন্টায় যার গতিবেগ ছিল ঘন্টায় ৭৮৯ কিলোমিটার। এগুলির নেতৃত্বে ছিলেন ১৭ নম্বর স্কোয়াড্রনের ফ্লাইট কমান্ডার গ্রæপ ক্যাপ্টেন রোহিত কাটারিয়া। প্রজাতন্ত্র দিবসের সময় জঙ্গি হামলার আশঙ্কায় দিল্লি সহ আশপাশের এলাকা নিরাপত্তায় মুড়ে ফেলা হয়েছিল।

সারা দেশের পাশাপাশি পশ্চিমবঙ্গ, অসম, ত্রিপুরা, গুজরাট, বিহার, অন্ধ্রপ্রদেশ সহ প্রতিটি রাজ্যেই যথাযথ মর্যাদায় প্রজাতন্ত্র দিবস পালন করা হয়। কড়া নিরাপত্তার মধ্যে প্রজাতন্ত্র দিবস পালন করা হল কাশ্মীরের নিয়ন্ত্রণ রেখায়। এলওসি (লাইন অব কন্ট্রোল) এর বেশ কিছু ফরওয়ার্ড পোস্টে পতাকা উত্তোলন করে সেনাবাহিনীর সদস্যরা। উত্তর কাশ্মীরের বান্দিপুরায় প্রজাতন্ত্র দিবসের অনুষ্ঠানে সামিল হতে দেখা যায় সাধরণ মানুষকেও। দেশের জাতীয় পতাকা উত্তোলনের সাথে জাতীয় সঙ্গীতেও গলা মেলান তারা। 

মাটি থেকে ১৭ হাজার ফুট উচ্চতায় লাদাখেও উদযাপিত হল ৭২ তম প্রজাতন্ত্র দিবস। মাইনাস ২৫ ডিগ্রী তাপমাত্রায় ইন্দো-তিব্বত সীমান্ত পুলিশ (আইটিবিপি)-এর জওয়ানরা লাদাখে প্রজাতন্ত্র দিবস উদযাপন করে। 


বিডি প্রতিদিন/হিমেল


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৬ জানুয়ারি, ২০২১ ১৬:১৩
প্রিন্ট করুন printer

ইরানের আমন্ত্রণে তেহরান সফরে তালেবান প্রতিনিধিদল

অনলাইন ডেস্ক

ইরানের আমন্ত্রণে তেহরান সফরে তালেবান প্রতিনিধিদল

আফগানিস্তানের তালেবানের একটি রাজনৈতিক প্রতিনিধিদল তেহরান সফরে এসেছে বলে খবর দিয়েছেন ইরানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র সাঈদ খাতিবজাদে। মোল্লা আব্দুলগনি বারাদার প্রতিনিধিদলটির নেতৃত্বে রয়েছেন।

খাতিবজাদে জানান, ইরানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের আমন্ত্রণে এবং আগে থেকে সমন্বয়ের মাধ্যমে এ সফর অনুষ্ঠিত হচ্ছে।

তালেবান প্রতিনিধিদলটি আজ মঙ্গলবার সকালে তেহরানে পৌঁছেছে জানিয়ে ইরানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র বলেন, বিমানবন্দরে তার মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা প্রতিনিধিদলটিকে স্বাগত জানিয়েছেন।

খাতিবজাদে বলেন, তালেবান প্রতিনিধিদলটি এ সফরে ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোহাম্মাদ জাওয়াদ জারিফ ও আফগানিস্তান বিষয়ক ইরানের বিশেষ প্রতিনিধি মোহাম্মাদ ইব্রাহিম তাহেরিয়ানের সঙ্গে সাক্ষাৎ করবে। এসব সাক্ষাতে আফগানিস্তানের চলমান শান্তি প্রক্রিয়াসহ সংশ্লিষ্ট অন্যান্য বিষয়ে আলোচনা হবে।

বিডি প্রতিদিন/আরাফাত


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

এই বিভাগের আরও খবর