শিরোনাম
প্রকাশ : ১৯ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ০৮:৩০
আপডেট : ১৯ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ১৫:৩১
প্রিন্ট করুন printer

ইয়েমেনের দ্বীপে গোয়েন্দা ঘাঁটি প্রতিষ্ঠা করছে ইসরায়েল ও আরব আমিরাত

অনলাইন ডেস্ক

ইয়েমেনের দ্বীপে গোয়েন্দা ঘাঁটি প্রতিষ্ঠা করছে ইসরায়েল ও আরব আমিরাত

ইসরায়েলের সঙ্গে সম্মিলিতভাবে গুপ্তচর প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলার কাজ করছে সংযুক্ত আরব আমিরাত। দীর্ঘদিন ধরে দুইপক্ষের মধ্যে গোপন সহযোগিতা থাকলেও গত আগস্ট মাসে ইসরায়েল এবং আরব আমিরাতের মধ্যে আনুষ্ঠানিকভাবে সম্পর্ক স্বাভাবিকীকরণের চুক্তি হয়েছে এবং তারপর আগের  গোপন সহযোগিতা এখন প্রকাশ্য রূপ দিয়েছে। 

দুইপক্ষের মধ্যে সম্পর্ক স্বাভাবিক করার পর সর্বপ্রথম ইসরায়েলের যে সরকারি কর্মকর্তা সংযুক্ত আরব আমিরাত সফর করেছেন তিনি হচ্ছেন গুপ্তচর সংস্থা মোসাদের প্রধান ইয়োসি কোহেন। তার ওই সফরে ইসরায়েল ও আরব আমিরাতের মধ্যকার দ্বিপক্ষীয় নিরাপত্তা এবং অভিন্ন স্বার্থ সংশ্লিষ্ট বিষয়ে সহযোগিতার ব্যাপারে আলোচনা হয়।

ইয়োসি কোহেনের সফরের অল্প সময়ের মধ্যেই এ তথ্য পরিষ্কার হয়ে যায় যে আবুধাবি এবং তেল আবিব ইয়েমেনের কৌশলগত সকোত্রা দ্বীপে গোয়েন্দা প্রকল্প গড়ে তোলার কাজে লিপ্ত রয়েছে।

জে ফোরাম নামের একটি ইহুদি প্রভাবিত সংস্থার ওয়েবসাইটে বলা হয়েছে, পুরো মধ্যপ্রাচ্যে বিশেষ করে বাবুল মান্দেব প্রণালীসহ এডেন উপসাগরে নজরদারি চালানোর লক্ষ্য নিয়ে এই গোয়েন্দা প্রকল্প গড়ে তোলা হচ্ছে। বাবুল মান্দেব ও এডেন উপসাগর হচ্ছে আন্তর্জাতিক বাণিজ্যের অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ রুট।

বিডি প্রতিদিন/কালাম


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ১২:৩৮
প্রিন্ট করুন printer

পিটিআই নেতাদের বিরুদ্ধে শ্লীলতাহানি ও নির্যাতনের বিচার চান সাংবাদিক

অনলাইন ডেস্ক

পিটিআই নেতাদের বিরুদ্ধে শ্লীলতাহানি ও নির্যাতনের বিচার চান সাংবাদিক

পাকিস্তানের চারসাদ্দা প্রেসক্লাবের গভর্নিং বডির সদস্য সাইফুল্লাহ জান তেহরিক-ই-ইনসাফের (পিটিআই) নেতাদের বিরুদ্ধে বিচার বিভাগীয় তদন্তের দাবি জানিয়েছেন।  

জানা যায়, পাকিস্তান প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের নেতৃত্বাধীন যাকাত কমিটির চেয়ারম্যান ইফতিখারসহ পিটিআই নেতারা তাকে জোর করে চরসদ্দা বাজারে পিটিআইয়ের কার্যালয়ে নিয়ে যায়।

আজ শুক্রবার (২৬ ফেব্রুয়ারি) সংবাদ সম্মেলনে সাইফুল্লাহ জান জানান, 'নেতারা নগ্ন অবস্থায় তার ভাই ও তাকে নিয়ে একটি ভিডিও তৈরি করেছেন। পরে স্থানীয় জনগণের চাপের পরই তাকে ছেড়ে দেওয়া হয়।'

এই সাংবাদিক আরও বলেন, 'জেলা পুলিশ কর্মকর্তা মোহাম্মদ শোয়েব যদিও সর্দারী থানার পুলিশকে আইন অনুযায়ী মামলা দায়ের করার নির্দেশ দিয়েছেন, কিন্তু পুলিশ দেরি করার কৌশল ব্যবহার করেছে এবং এফআইআরে আইনের সংশ্লিষ্ট ধারা অন্তর্ভুক্ত করেনি। নির্যাতনের কারণে তার পা ভেঙে গেলেও পুলিশ এফআইআরে লিখেছে যে তার শরীরে সামান্য আঘাত লেগেছে।'

অভিযোগ অনুযায়ী, পিটিআইয়ের পাঁচ জনের নাম নথিভুক্ত করা হয়েছে। তবে সাইফুল্লাহ বলেন, 'পুলিশ ইফতিখারের নাম সরিয়ে দিয়েছে, যিনি এই মামলার মূল অভিযুক্ত।'

পেশোয়ার হাইকোর্টের প্রধান বিচারপতিকে বিষয়টি দেখার আহ্বান জানিয়ে ওই সাংবাদিক বলেন, 'পুলিশ অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে কোনো অভিযোগ করেনি এবং স্থানীয় আদালত তাদের জামিন মঞ্জুর করেছে।'

 

বিডি প্রতিদিন / অন্তরা কবির   


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ১২:৩৩
প্রিন্ট করুন printer

ফ্রান্সের অস্ত্র বিক্রির কারণে ইয়েমেন বিপর্যস্ত হয়ে উঠেছে: ইরান

অনলাইন ডেস্ক

ফ্রান্সের অস্ত্র বিক্রির কারণে ইয়েমেন বিপর্যস্ত হয়ে উঠেছে: ইরান

ফ্রান্স এবং তার মিত্র দেশগুলো সৌদি আরবের কাছে অস্ত্র বিক্রি করার কারণে ইয়েমেন এখন বিশ্বের সবচেয়ে মানবিক সংকটাপন্ন ও বিপর্যস্ত একটি জনপদে পরিণত হয়েছে।

জেনেভায় জাতিসংঘের ইরানি মিশনে নিযুক্ত মানবাধিকার বিষয়ক কর্মকর্তা মোহাম্মাদ সাদাতি নেজাদ বৃহস্পতিবার এ কথা বলেছেন। এ কূটনীতিক বলেন, ইয়ামানের এই বিপর্যয়ের জন্য যারা দায়ী তাদের মুখে নীতি-নৈতিকতার কথা মানায় না।

এর আগে গত বুধবার ফ্রান্সের পররাষ্ট্রমন্ত্রী জ্যঁ-ইভস লা দ্রিয়াঁ মানবাধিকার পরিষদে দেয়া বক্তৃতায় মানবাধিকার লঙ্ঘনের ইরানকে অভিযুক্ত করেছেন। ইরানে আটক ফ্রান্সের দ্বৈত নাগরিক ফারিবা আদেলখার মুক্তিও দাবি করেছেন তিনি।

২০১৯ সালে ৬০ বছর বয়সী আদেলখাকে ইরানে গুপ্তচরবৃত্তির দায়ে আটক করা হয়। ফ্রান্সের অভিযোগ নাকচ করে ইরানের কূটনীতিক মোহাম্মদ সাদাতি বলেন, মানবাধিকার ইস্যুতে ফ্রান্স এমন কোনও অবস্থান নেই যে, তারা ইরানের সমালোচনা করতে পারে। আমেরিকা, ব্রিটেন, কানাডা, ফ্রান্স এবং জার্মানি ইয়েমেনকে বিশ্বের সবচেয়ে মানবিক বিপর্যয়ের দেশে পরিণত করেছে। তারা সেখানে রীতিমতো যুদ্ধাপরাধ করেছে।

বিডি প্রতিদিন/কালাম


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ১১:১৫
প্রিন্ট করুন printer

ইন্দোনেশিয়ায় ‘অবৈধ’ স্বর্ণ খনিতে ভয়াবহ ধস

অনলাইন ডেস্ক

ইন্দোনেশিয়ায় ‘অবৈধ’ স্বর্ণ খনিতে  ভয়াবহ ধস

ইন্দোনেশিয়ার সুলাওয়েসী দ্বীপের একটি ‘অবৈধ’ স্বর্ণ খনিতে ভয়াবহ ধসের ঘটনা ঘটেছে। এতে এখন পর্যন্ত ৬ জনের প্রাণহানি ঘটেছে। এই দুর্ঘটনায় মৃতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। ধ্বংস্তুপ থেকে ১৬ জনকে জীবিত উদ্ধার করা হয়েছে। 

দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ায় অবৈধ খনি ধসের ঘটনা প্রায়ই ঘটে। গত বছরও সুমাত্রা দ্বীপে ভারী বৃষ্টিতে পরিত্যক্ত দ্বীপের স্বর্ণখনিতে ভূমিধসে প্রাণহানি হয়েছিল।

গত বুধবার (২৪ ফেব্রুয়ারি) সন্ধ্যায় এই ঘটনা ঘটে। স্থানীয় অনুসন্ধান এবং উদ্ধারবিষয়ক সংস্থার প্রধান অ্যান্ড্রিয়াস হেন্ডরিক জোহানেস জানান, 'বুধবার গভীর রাতে মধ্য সুলাওয়েসী প্রদেশের পরিগি মৌতং জেলায় একটি খনিতে ধস নামে। এতে ২৩ জন আটকা পড়ে বলে অনুমান করা হয়েছিল। উদ্ধারকর্মীরা ১৬ জনকে উদ্ধার করেছে। এদের মধ্যে চারজন নারী ও দুজন পুরুষের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। এখনো সেখানে উদ্ধার অভিযান চলছে।'


বিডি প্রতিদিন / অন্তরা কবির   


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ১১:০৮
প্রিন্ট করুন printer

সীমান্ত নিয়ে ভারত-পাকিস্তানের সিদ্ধান্তের প্রশংসা করল জাতিসংঘ

অনলাইন ডেস্ক

সীমান্ত নিয়ে ভারত-পাকিস্তানের সিদ্ধান্তের প্রশংসা করল জাতিসংঘ

জন্মলগ্ন থেকেই একাধিক যুদ্ধ হয়েছে ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে। এছাড়াও জম্মু ও কাশ্মীরের নিয়ন্ত্রণরেখা বরাবর নিয়মিত গোলাবর্ষণ নিয়মিত গোলাবর্ষণে লিপ্ত থাকত দুই দেশ। আর এই দুই দেশের সংঘর্ষের খেসারত দিতে হচ্ছে সীমান্তবর্তী গ্রামে থাকা সাধারণ মানুষকে। এমন পরিস্থিতিতে বৃহস্পতিবার থেকে নিয়ন্ত্রণরেখায় সংঘর্ষ থামানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে দুই দেশ। আর এই পদক্ষেপকে স্বাগত জানিয়েছে জাতিসংঘ। অভিনন্দন জানিয়েছে আমেরিকাও।

শুক্রবার জাতিসংঘের মহাসচিব অ্যান্তনিও গুতেরেসের মুখপাত্র স্তেপানি দুজারিক বলেন, “নিয়ন্ত্রণরেখা ভারত ও পাকিস্তানের সংঘর্ষবিরতি মেনে চলার সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়েছেন মহাসচিব। সমস্যা সমাধানে একটি যৌথ কাঠামো তৈরি করার সিদ্ধান্ত নিয়েও আশা প্রকাশ করেছেন তিনি। মহাসচিব মনে করছেন, দুই দেশের সেনাবাহিনীর মধ্যে এমন সমঝোতার ফলে ভবিষ্যতে শান্তিবার্তার পথ আরও প্রশস্থ হয়েছে।”

এদিকে, নয়াদিল্লির এই পদক্ষেপের প্রশংসা করেছে আমেরিকাও। এই বিষয়ে হোয়াইট হাউসের মুখপাত্র জেন সাকি বলেন, “সীমান্তে শান্তি ফেরাতে ভারত ও পাকিস্তানের যৌথ বিবৃতিকে স্বাগত জানাচ্ছে আমেরিকা। এর ফলে দক্ষিণ এশিয়ায় শান্তি ও স্থিতাবস্থা বজায় থাকবে। আমরা দুই দেশকেই এই প্রক্রিয়া এগিয়ে নিয়ে যেতে আহ্বান জানাচ্ছি।”

উল্লেখ্য, বৃহস্পতিবার ভারতের প্রতিরক্ষামন্ত্রণালয় এক বিবৃতি জারি করে জানায়, ফেব্রুয়ারির ২৫ তারিখ থেকে নিয়ন্ত্রণরেখায় পাকিস্তানের সঙ্গে নয়া সংঘর্ষবিরতি চুক্তি বলবৎ হয়েছে। দুই দেশের সেনা কর্মকর্তাদের মধ্যে দীর্ঘ আলোচনার পর এই পদক্ষেপে সম্মত হয় নয়াদিল্লি ও ইসলামাবাদ। দুই দেশের ‘ডিরেক্টর জেনারেলস অব মিলিটারি অপারেশনস’ বা ডিজিএমও এক যৌথ বিবৃতিতে জানিয়েছেন, “সীমান্তে শান্তি বজায় রাখার স্বার্থে পারস্পরিক সমস্যা মিটিয়ে নিতে পদক্ষেপ করতে রাজি হয়েছেন দুই দেশের সেনা কর্মকর্তারা। নিয়ন্ত্রণরেখায় সংঘর্ষবিরতি চুক্তি যাতে সঠিকভাবে মেনে চলা হয়, সেই বিষয়ে নজর রাখতে রাজি হয়েছে দুই দেশ। ২৪ ফেব্রুয়ারি মধ্যরাত থেকে বা ২৫ ফেব্রুয়ারি থেকেই এই চুক্তি কার্যকর হবে। কোনও বিষয়ে মতপার্থক্য হলে হটলাইনের মাধ্যমে তা আলোচনা করা হবে। এছাড়া, দুই দেশের সেনাবাহিনীর মধ্যে নিয়মিত বর্ডার ফ্ল্যাগ মিটিংও অনুষ্ঠিত হবে।”

বিডি প্রতিদিন/কালাম


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ১০:৫২
প্রিন্ট করুন printer

অবশেষে নমনীয় আমেরিকা, দক্ষিণ কোরিয়ায় আটকে পড়া ইরানি অর্থ আংশিক ছাড়ে সম্মতি

অনলাইন ডেস্ক

অবশেষে নমনীয় আমেরিকা, দক্ষিণ কোরিয়ায় আটকে পড়া ইরানি অর্থ আংশিক ছাড়ে সম্মতি

দীর্ঘ উত্তেজনার পর ইরানের ব্যাপারে অবশেষে নমনীয় হতে শুরু করল আমেরিকা। দক্ষিণ কোরিয়ায় আটকে পড়া  ইরানের ৭০০ কোটি ডলারের অংশবিশেষ ছাড়ের বিষয়ে সম্মত হয়েছে জো বাইডেন প্রশাসন।

পরমাণু সমঝোতা থেকে বেরিয়ে গিয়ে সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ইরানের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছিলেন তার আওতায় ইরানের এ বিপুল পরিমাণ অর্থ দক্ষিণ কোরিয়ার ব্যাংকগুলোতে আটকা পড়ে।

দক্ষিণ কোরিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের একজন সরকারি কর্মকর্তার বরাত দিয়ে রাষ্ট্র পরিচালিত রেডিও কেবিএস ওয়ার্ল্ড বৃহস্পতিবার এ খবর দিয়েছে। 

২০১৮ সালে ইরানের ওপর নতুন করে নিষেধাজ্ঞা আরোপের আগ পর্যন্ত দক্ষিণ কোরিয়া ছিল ইরানের জ্বালানি তেলের অন্যতম প্রধান ক্রেতা। আমেরিকা নিষেধাজ্ঞা আরোপ করার পর দক্ষিণ কোরিয়া ইরানি তেলের মূল্য পরিশোধ করতে পারেনি। ফলে গত কয়েক বছর ধরে ইরানের বিপুল পরিমাণ অর্থ দক্ষিণ কোরিয়ার ব্যাংকগুলোতে আটকা পড়ে  রয়েছে। 

অর্থ ছাড়ের ব্যাপারে দক্ষিণ কোরিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ওই কর্মকর্তা বলেছেন, সিউল এবং ওয়াশিংটনের মধ্যে বিষয়টি এখনও চূড়ান্ত হয়নি। তিনি বলেন, কোন পদ্ধতিতে ইরানকে অর্থ পরিশোধ করা যায় তা নিয়ে ওয়াশিংটনের সাথে আলোচনা চলছে এবং সম্ভবত প্রথমে ইরানের অর্থ সুইজারল্যান্ডের কাছে পাঠানো হবে। 

এর আগে অন্য খবরে বলা হয়েছিল- দক্ষিণ কোরিয়া এবং আমেরিকা ইরানের অর্থ পাঠানোর বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করছে। তারা দু’পক্ষ ইউরোপের এ দেশটিতে কথিত সুইচ হিউম্যানিটেরিয়ান ট্রেড এগ্রিমেন্টের মাধ্যমে ওই অর্থ পাঠাবে। 

ইরান এবং আমেরিকার মধ্যে কূটনৈতিক সম্পর্ক না থাকার কারণে ইরানে আমেরিকার স্বার্থ দেখাশুনা করে সুইজারল্যান্ড। মার্কিন নিষেধাজ্ঞা সত্ত্বেও ইরানে জরুরি পণ্য পাঠানোর লক্ষ্য নিয়ে গত বছরের ফেব্রুয়ারি মাসে সুইজারল্যান্ড হিউম্যানিটেরিয়ান ট্রেড এগ্রিমেন্ট নামে একটি পদ্ধতি চালু করে। সূত্র: প্রেস টিভি

বিডি প্রতিদিন/কালাম


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর