শিরোনাম
প্রকাশ : শুক্রবার, ৬ ডিসেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ৫ ডিসেম্বর, ২০১৯ ২৩:৩৮

সংবাদ সম্মেলনে ভিপি নূর

রাষ্ট্রীয় পৃষ্ঠপোষকতায় ফোনালাপ ফাঁস

বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক

রাষ্ট্রীয় পৃষ্ঠপোষকতায় ফোনালাপ ফাঁস

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ-ডাকসুর ভিপি নুরুল হক নূর অভিযোগ করেছেন, তাকে এবং তার সংগঠনকে হেয় করতে রাষ্ট্রীয় পৃষ্ঠপোষকতায় ফোনালাপ ফাঁসের ঘটনা ঘটানো হয়েছে।  বৃহস্পতিবার দুপুরে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মধুর ক্যান্টিনে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ অভিযোগ করেন ভিপি নূর। এ সময় ‘ভুল সংবাদ উপস্থাপন করায়’ অন্তত তিনটি গণমাধ্যমকে ২৪ ঘণ্টার মধ্যে ক্ষমা চাওয়ার আহ্বান জানান তিনি।  সংবাদ সম্মেলনে ভিপি নূর বলেন, (ফোনালাপ ফাঁসের পর) বুধবার মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ নামের ছাত্রলীগেরই একটি সংগঠন আমার পদত্যাগ দাবি করে আমার কক্ষে তালা লাগায়, যার আহ্বায়ক আওয়ামীপন্থি নীলদলের শিক্ষক ড. আ ক ম জামাল উদ্দিন। একই সঙ্গে ছাত্রলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আল নাহিয়ান খান জয়ও আমার পদত্যাগ দাবি করে। ঘটনাগুলো বিশ্লেষণ করে আমি মনে করি, এই ঘটনাগুলো পরিকল্পিতভাবে আমাকে এবং আমার সংগঠনকে হেয় করতে রাষ্ট্রীয় পৃষ্ঠপোষকতায় ঘটানো হয়েছে। আমরা এই ঘটনায় তীব্র প্রতিবাদ জানাচ্ছি।

এ সময় লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, গত ৩ ডিসেম্বর দুটি গণমাধ্যমে আমার কথোপকথনের একটি অডিও ক্লিপের খন্ডিতাংশ বিকৃতভাবে প্রচার করে ভুলভাবে ব্যাখ্যা দেওয়া হয়েছে। যা আমার সম্মানহানি ও জনমনে বিভ্রান্তির সৃষ্টি করেছে। অডিওটির প্রথম অংশের কথোপকথন ছিল আমার খালা ও আমার পরিচিত এক ভাইয়ের সঙ্গে। যেখানে আমার খালার কনস্ট্রাকশন ফার্মের ১৩ কোটি টাকার একটি কাজের ব্যাংক গ্যারান্টি নিয়ে ভাইয়ের সঙ্গে আলোচনা করেছিলাম। যা একান্তই ব্যক্তিগত ও পারিবারিক ব্যবসা সংক্রান্ত বিষয়।

তিনি বলেন, চ্যানেল দুটিতে কথোপকথনটির বিভিন্ন খন্ডিতাংশ বিকৃতভাবে প্রচার করে এবং আমি জনৈক প্রকল্প কর্মকর্তার কাছে ১৩ কোটি টাকার ঠিকাদারি কাজের তদবির করি, এই মর্মে খবর প্রচার করে। কিন্তু প্রকৃত সত্য হচ্ছে সেখানে আমি কোনো প্রকল্প কর্মকর্তার সঙ্গে কোনো কথা বলা কিংবা কোনো তদবির করিনি।

ভিপি বলেন, অডিও ক্লিপটির দ্বিতীয় অংশে অন্য ব্যক্তির সঙ্গে কথোপকথন নিয়ে বলা হয়েছে আমি প্রবাসী কোনো এক ব্যক্তির কাছে আর্থিক সহযোগিতা চেয়েছি। এমনকি টেক্সাস প্রবাসী বিএনপি নেতার কাছে আর্থিক সহযোগিতা চেয়েছি বলেও প্রচার করা হয়। কিন্তু প্রকৃত ঘটনাটি ছিল, জনৈক প্রবাসী ব্যক্তি ফোন করে আমাকে সহযোগিতার কথা বললেও আমি তা নাকচ করে দেই। পুরো ফোনালাপ শুনলে এর সত্যতা নিশ্চিত হওয়া যাবে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

ভিপি বলেন, ব্যক্তিগত ফোনালাপ ফাঁস করে গণমাধ্যমে প্রচার সংবিধান ও রাষ্ট্রীয় আইনবিরোধী। তাছাড়া, এভাবে তথ্য বিকৃত করে সংবাদ পরিবেশন ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে স্পষ্ট অপরাধ।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর
close