শিরোনাম
প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ১৩ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ টা
আপলোড : ১২ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ২৩:৪৪

কলকাতার কথা ২

একটি ট্রামের শহরের গল্প

মোস্তফা কাজল, কলকাতা থেকে ফিরে

একটি ট্রামের শহরের গল্প

দেড়শ বছর ধরে কলকাতা শহরে টিকে আছে ট্রাম নামের যাত্রী বহনকারী যান। শহরের এক প্রান্ত থেকে অপর প্রান্তে চলছে ব্রিটিশ আমলের এ যানটি। দেখতে অনেকটা ট্রেনের মতো। তবে আকারে ছোট। ১৮৭৩ সাল থেকে কলকাতায় ট্রাম চলে আসছে। কলকাতা ট্রামওয়ে গণপরিবহন ব্যবস্থায় প্রথম সংগঠিত প্রতিষ্ঠান। ট্রামের শহর কলকাতা। ট্রামের সঙ্গে জড়িয়ে আছে নানা ধরনের ইতিহাস। এ যানে আছে রোমান্টিকতা, বিপ্লব, ঐতিহ্য। কলকাতা শহরের টালিগঞ্জ, ধর্মতলা, ডালহৌসী, শিয়ালদহ, নিউমার্কেট, চিতপুর, চৌরঙ্গি, খিদিরপুর, শ্যামবাজারসহ বিভিন্ন রুটে চলে এ বৈদ্যুতিক ট্রাম নামের যানটি। বাঙালি সংস্কৃতির বিস্তারের কারণে কলকাতায় গিয়েও মনে হবে না বিদেশে আছি। তারপরও বিদেশ বলে কথা। এ ভাবনা নিয়ে দেখা হয়েছে বহু কিছু। সবচেয়ে বেশি ভালো লেগেছে ট্রামের ঠং ঠং শব্দে রোমাঞ্চকর অনুভূতি। ট্রাম নামের যানটি কলকাতা শহরের অনেক জায়গায় চলাচল করছে। বাংলাদেশ থেকে আসা পর্যটক ওসমান গণি বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, অনেক শখ ছিল ট্রামে চড়ার। এক দিন ধর্মতলা থেকে ট্রামে উঠি। রুট বা কোনো জায়গার নামই তো জানি না। যেখানেই হোক যাব। পরে শিয়ালদহ গিয়ে নেমে পড়ি। শ্রীলঙ্কার অধিবাসী আরেক পর্যটক শিমান দিয়ান বলেন, টুন টুন শব্দে ঘণ্টি বাজিয়ে একবার ট্রাম থামছে। মিনিটখানেক পর আবার চলছে। ইঞ্জিন ও লৌহ চাকার মাদকতার সুর মনের মাঝে ঘণ্টা বাজায়। মন্থরগতিতে চলছে ট্রাম। একই রাস্তায় চলছে নানা ধরনের যানবাহন। কোনো যানজট ছাড়াই কেমন করে চলছে এ সরলরেখার ট্রাম। সামনে কোনো অনাকাক্সিক্ষত যানবাহনের উপস্থিতিতে থামছে লোহা ও স্টিলের এ বৈদ্যুতিক বাহনটি। ভালো লেগেছে নিয়মকানুন দেখে। দিল্লি, মুম্বাই, চেন্নাই, কানপুর, নাসিক থেকে অনেক আগেই উঠে গেছে ট্রাম নামের যানটি। তবে এখন ভারতে ট্রামের একমাত্র ঠিকানা হয়ে আছে কলকাতা শহর। আর্থিকভাবে লাভজনক না হলেও কেন্দ্রীয় সরকার ট্রামকে টিকিয়ে রাখতে কাজ করছে। কলকাতায় ট্রামকে সম্পূর্ণভাবে ‘কলকাতার অতি নিজস্ব ঐতিহ্য’ রূপে আখ্যায়িত করা হয়। কলকাতার মতো ব্যস্ত শহরে ট্রাম তার চরিত্রগত স্বস্তির গতির মাধ্যমে দূষণমুক্ত একটি যান্ত্রিক বাহন ও সস্তা সেবা প্রদান করছে। কলকাতা ভারতের একমাত্র শহর এবং বিশ্বেরও সেই কয়েকটি শহরের মধ্যে একটি যেখানে এখনো ট্রামের প্রচলন রয়েছে। ১৮৮২ এবং ১৮৮৪ সালে খুব অল্প সময়ের জন্য খিদিরপুর এবং চৌরঙ্গী এলাকায় বাষ্পচালিত ট্রাম চলে। এক সময় এ লাইনগুলোতে ঘোড়া চালিত ট্রামই চলত। ১৯০২ সালে কলকাতা ট্রামওয়েতে বিদ্যুতায়ন সম্পূর্ণ হয়। একই বছরে খিদিরপুর এলাকায় প্রথমবারের মতো বিদ্যুৎচালিত ট্রাম চলাচল শুরু করে। বিদ্যুৎ সংযোজন সম্পূর্ণ হলে কলকাতার ট্রামওয়েতে এক অস্বাভাবিক উন্নতি ঘটে। ভারতের স্বাধীনতার পর কোম্পানি এবং পশ্চিম বাংলা সরকারের মধ্যে ব্যবস্থাপনা ও মালিকানা নিয়ে আলাপ-আলোচনা শুরু হয়। ১৯৬৭ সালের অ্যাক্ট-এর মাধ্যমে সরকার কলকাতা ট্রামওয়ে কোম্পানিকে জাতীয়করণ করে।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর