শিরোনাম
প্রকাশ : শনিবার, ২৬ জুন, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ২৬ জুন, ২০২১ ০০:০৭

সর্বোচ্চ মৃত্যুহার বরিশালে, সর্বনিম্ন পাহাড়ে

চট্টগ্রামে গর্ভের সন্তানসহ নারী চিকিৎসকের মৃত্যু, ২৪ ঘণ্টায় শনাক্ত ৫৯৬৯, মৃত্যু ১০৮

শামীম আহমেদ

সর্বোচ্চ মৃত্যুহার বরিশালে, সর্বনিম্ন পাহাড়ে
Google News

দেশে এখন পর্যন্ত সর্বাধিক করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছে ঢাকা বিভাগে। তবে শনাক্ত বিবেচনায় সর্বোচ্চ মৃত্যুর হার বরিশাল বিভাগে। ঢাকায় মৃত্যুর হার দেশের সব বিভাগের মধ্যে সর্বনিম্ন। অন্যদিকে জেলাভিত্তিক পরিসংখ্যানে অপ্রতুল চিকিৎসা সুবিধার পরও দেশের মধ্যে সর্বনিম্ন মৃত্যুহার পার্বত্য জেলা খাগড়াছড়িতে। এরপরই আছে ঢাকা ও রাজশাহী জেলা। পার্বত্য জেলা রাঙামাটি, বান্দরবান ও কক্সবাজারেও মৃত্যুর হার দেশের অন্য জেলাগুলো থেকে কম। স্বাস্থ্য অধিদফতরের তথ্য বিশ্লেষণে এমন চিত্র পাওয়া গেছে। এদিকে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা সংক্রমণে দেশে আরও ১০৮ জনের মৃত্যু হয়েছে। ৬১ দিন পর আবারও শতক ছাড়াল এক দিনে মৃতের সংখ্যা। এ ছাড়া গত ৬৭ দিনের মধ্যে এটাই সর্বোচ্চ মৃত্যু। এর চেয়ে বেশি ১১২ জনের মৃত্যুর খবর এসেছিল গত ১৯ এপ্রিল। মৃত্যু থেকে রেহাই পাচ্ছে না শিশু-বৃদ্ধ কেউই। করোনায় আক্রান্ত হয়ে চট্টগ্রামের একটি বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় গর্ভের সন্তানসহ এক নারী চিকিৎসকের মৃত্যু হয়েছে গতকাল ভোরে। ডা. দিনার জেবিন নামের ওই চিকিৎসক চট্টগ্রাম মা ও শিশু হাসপাতাল মেডিকেল কলেজে প্রভাষক হিসেব কর্মরত ছিলেন। তাঁর দুই বছর তিন মাস বয়সী একটি শিশু সন্তান আছে। দুই সপ্তাহ আগে তার করোনা শনাক্ত হয় বলে চট্টগ্রাম থেকে আমাদের সংবাদকর্মী রেজা মুজাম্মেল জানিয়েছেন। এর আগে চট্টগ্রামে করোনায় আক্রান্ত আরও ১৯ জন চিকিৎসক মারা যান।

মৃত্যুর সংখ্যা বিবেচনায় এখন পর্যন্ত সর্বোচ্চ ৭ হাজার ৪৭২ জন (৫৩.৪৬ শতাংশ) মারা গেছেন ঢাকা বিভাগে। এ ছাড়া ২ হাজার ৬৫০ জন (১৮.৯৬ শতাংশ) চট্টগ্রাম, ১ হাজার ১১৪ জন (৭.৯৭ শতাংশ) খুলনা, ৯৫২ জন (৬.৮১ শতাংশ) রাজশাহী, ৫৬৫ জন (৪.০৪ শতাংশ) রংপুর, ৫১৪ জন (৩.৬৮ শতাংশ) সিলেট, ৪১৩ জন (২.৯৬ শতাংশ) বরিশাল ও ২৯৬ জন (২.১২ শতাংশ) ময়মনসিংহ বিভাগে মারা গেছেন। সংখ্যার বিচারে সর্বোচ্চ মৃত্যু ঢাকা বিভাগে হলেও প্রতি ১০০ জন শনাক্ত রোগীর বিপরীতে এই বিভাগে মৃত্যু হয়েছে ১.২৭ জনের, যা অন্য সব বিভাগের চেয়ে কম। অন্যদিকে বরিশাল বিভাগে প্রতি ১০০ রোগীর বিপরীতে মারা গেছেন ২.৪৫ জন, যা দেশের মধ্যে সর্বোচ্চ। অন্য বিভাগগুলোয় মৃত্যুর হার যথাক্রমে রংপুরে ২.৩৭ শতাংশ, ময়মনসিংহে ২.৩৫ শতাংশ, চট্টগ্রামে ২.৩৪ শতাংশ, খুলনায় ২.২৩ শতাংশ, সিলেট ২.১১ শতাংশ ও রাজশাহী বিভাগে ১.৮৬ শতাংশ। জেলাভিত্তিক তথ্য বিশ্লেষণে দেখা গেছে, শনাক্ত রোগীর বিপরীতে দেশের মধ্যে সবচেয়ে বেশি মৃত্যুহার চট্টগ্রাম বিভাগেরই তিনটি জেলায়। এর মধ্যে সর্বোচ্চ চাঁদপুরে ৫.৪৬ শতাংশ, কুমিল্লায় ৫.০৪ শতাংশ ও ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ৪.০৯ শতাংশ, যা দেশের গড় মৃত্যুহারের (১.৫৯ শতাংশ) দ্বিগুণের বেশি। আবার চট্টগ্রাম বিভাগেরই পাঁচ জেলায় মৃত্যুহার দেশের প্রায় ৯০ ভাগ জেলার চেয়ে কম। এর মধ্যে খাগড়াছড়িতে মৃত্যুহার ১.০৪ শতাংশ, যা দেশের মধ্যে সর্বনিম্ন। এ ছাড়া কক্সবাজারে ১.২০ শতাংশ, রাঙামাটিতে ১.২৩ শতাংশ, বান্দরবানে ১.২৫ শতাংশ ও চট্টগ্রাম জেলায় মৃত্যুহার ১.৩৮ শতাংশ। এর বাইরে মৃত্যুহার কম ঢাকা জেলায় ১.০৭ শতাংশ ও রাজশাহী জেলায় ১.১০ শতাংশ।

গত ২৪ ঘণ্টায় নমুনা পরীক্ষায় করোনা শনাক্তের হারও বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২১.২২ শতাংশে, যা ৬৯ দিনের মধ্যে সর্বোচ্চ। এই সময়ে ২৭ হাজার ৬৫৩টি নমুনা পরীক্ষায় ৫ হাজার ৮৬৯ জনের দেহে সংক্রমণ শনাক্ত হয়েছে। এ নিয়ে গতকাল পর্যন্ত দেশে মোট শনাক্ত রোগীর সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৮ লাখ ৭৮ হাজার ৮০৪ জন। এর মধ্যে মারা গেছেন ১৩ হাজার ৯৭৬ জন। সুস্থ হয়েছেন ৭ লাখ ৯৭ হাজার ৫৫৯ জন। এদিকে নমুনা পরীক্ষায় শনাক্তের হার ৫০ শতাংশ ছাড়িয়ে গেছে খুলনা বিভাগে। হু হু করে সংক্রমণ বাড়ছে রংপুর বিভাগেও। গত ২৪ ঘণ্টার নমুনা পরীক্ষায় শনাক্তের হার ছিল যথাক্রমে খুলনা বিভাগে ৫০.৩৮ শতাংশ, রংপুর বিভাগে ৪১.৭৪ শতাংশ, সিলেট বিভাগে ২৪.৭৬ শতাংশ, বরিশাল বিভাগে ২২.৯৬ শতাংশ, চট্টগ্রাম বিভাগে ২০.৫৮ শতাংশ, রাজশাহী বিভাগে ১৯.৮৩ শতাংশ, ময়মনসিংহ বিভাগে ১৭.১৫ শতাংশ ও ঢাকা বিভাগে ১৫.৩৫ শতাংশ। গত ২৪ ঘণ্টায় সর্বোচ্চ ২৭ জনের মৃত্যু হয়েছে খুলনা বিভাগে। এ ছাড়া ২৫ জন ঢাকা, ২৩ জন চট্টগ্রাম, ১৬ জন রাজশাহী, ১০ জন রংপুর, ৪ জন ময়মনসিংহ ও ৩ জন সিলেট বিভাগে মারা গেছে। এর বাইরে দেশের হাসপাতালগুলোয় ও বাড়িতে করোনার উপসর্গ নিয়ে প্রতিদিন অনেক মানুষের মৃত্যু হচ্ছে।

আমাদের নিজস্ব প্রতিবেদক ও প্রতিনিধিদের পাঠানো আরও খবর- নেত্রকোনা : দুর্গাপুর উপজেলার বিরিশিরি এলাকায় করোনা লক্ষণ নিয়ে স্বামীর মৃত্যুর ৭ দিনের মধ্যেই করোনা লক্ষণেই মারা গেছেন রোজি বিশ্বাস টুলু (৬৩)। বৃহস্পতিবার মধ্যরাতে মৃত্যু হয় তার। এদিকে নমুনা পরীক্ষায় বৃহস্পতিবার দুপুরে রোজির পুত্র ও পুত্রবধূর শরীরে করোনা পজিটিভ পাওয়া গেছে বলে নিশ্চিত করেছেন উপজেলা সরকারি হাসপাতালের আবাসিক  মেডিকেল অফিসার ডা. তানজিরুল ইসলাম। গত সাত দিনে উপজেলায় করোনার লক্ষণ নিয়ে চারজনের মৃত্যু হয়েছে। সাতক্ষীরা : গত ২৪ ঘণ্টায় সাতক্ষীরা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে করোনায় আক্রান্ত হয়ে ১ জন ও করোনার উপসর্গ নিয়ে ৬ জনসহ মোট ৭ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ ছাড়া ১৮৬ জনের নমুনা পরীক্ষায় ৫৩ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। চুয়াডাঙ্গা : গত ২৪ ঘণ্টায় চুয়াডাঙ্গা জেলায় ১১৬ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। শনাক্তের হার ৫০ শতাংশ। এ সময় করোনায় ১ জন এবং উপসর্গ নিয়ে ৬ জন মারা গেছেন।

খুলনা : গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে শনাক্ত হয়েছেন ১ হাজার ৩২২ জন, যা এখন পর্যন্ত এক দিনে সর্বোচ্চ শনাক্ত। গত ২৪ ঘণ্টায় খুলনা বিভাগে করোনায় আক্রান্ত হয়ে আরও ২৭ জনের মৃত্যু হয়েছে। চাঁপাইনবাবগঞ্জ : গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আক্রান্ত হয়ে বিভিন্ন হাসপাতালে চাঁপাইনবাবগঞ্জে ৫ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ ছাড়া ৪৯২ জনের নমুনা পরীক্ষায় ৬৩ জনের শরীরে করোনা শনাক্ত হয়েছে। এ ছাড়া চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ মো. মঈনুদ্দীন মন্ডল করোনায় আক্রান্ত হয়ে গতকাল ঢাকার একটি হাসপাতালে মারা গেছেন। গোপালগঞ্জ : গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা সংক্রমণে ৪ জনের মৃত্যু হয়েছে। একই সময়ে ২২৯ জনের করোনা পরীক্ষায় ৬১ জনের পজিটিভ পাওয়া গেছে।