শিরোনাম
প্রকাশ : ২৫ জানুয়ারি, ২০২১ ১৬:২৬
আপডেট : ২৫ জানুয়ারি, ২০২১ ১৬:৩৫
প্রিন্ট করুন printer

ভারতের প্রজাতন্ত্র দিবসে বাংলাদেশ

হাসান ইবনে হামিদ

ভারতের প্রজাতন্ত্র দিবসে বাংলাদেশ

ভারতের প্রজাতন্ত্র দিবস আগামী ২৬ জানুয়ারি। এই দিনটিকে সামনে রেখে ভারত সরকার ও জনগণ নানামুখী কার্যক্রম হাতে নিলেও আকর্ষণের মূল কেন্দ্রবিন্দু হয়ে ওঠে প্রজাতন্ত্র বা গণতন্ত্র দিবসের কুচকাওয়াজ। 

কোভিড মহামারির কারণে এ বছরের কুচকাওয়াজের সময়সীমা সংক্ষিপ্ত করেছে ভারত সরকার। প্রতি বছর যে পরিমাণ অতিথি ও দর্শক প্রজাতন্ত্র দিবসের কুচকাওয়াজে উপস্থিত থাকেন, এবার তার এক-চতুর্থাংশ রাজপথের অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকবেন বলে জানানো হয়েছে। তবে এবারের আয়োজনে সবচেয়ে বড় আকর্ষণ হিসেবে সেখানে থাকছে বাংলাদেশের নাম। কেননা ভারতের ইতিহাসে তৃতীয়বারের মতো কোনো বিদেশি সামরিক বাহিনীর দলকে মধ্য দিল্লির রাজপথে জাতীয় কুচকাওয়াজে অংশ নিতে আমন্ত্রণ জানিয়েছে ভারত সরকার। 

দৃষ্টিনন্দন এ কুচকাওয়াজে অংশ নিতে বাংলাদেশ সশস্ত্র বাহিনীর সদস্যরা ইতোমধ্যে দিল্লী পৌঁছেছেন। বাংলাদেশের ১২২ জন গর্বিত সেনার দল এই কুচকাওয়াজে অংশ নিচ্ছে। বাংলাদেশ সেনা, নৌ ও বিমান বাহিনীর সমন্বয়ে সশস্ত্র বাহিনীর একটি সমন্বিত কন্টিনজেন্ট এই প্রজাতন্ত্র দিবস প্যারেডে অংশগ্রহণ করবে। এবার বাংলাদেশ সশস্ত্র বাহিনীকে আমন্ত্রণ জানানোর মাঝে এক বিশেষ তাৎপর্য রয়েছে।

সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী ‘মুজিববর্ষ’ এবং ‘স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী’ উপলক্ষে এই আমন্ত্রণ জানানো হয়। ২০২১ সালে মুক্তিযুদ্ধের ৫০ বছর পূর্ণ হচ্ছে, যার মাধ্যমে বাংলাদেশ অত্যাচার ও নিপীড়নের কবল থেকে মুক্ত হয়ে একটি স্বাধীন জাতি হিসেবে আত্মপ্রকাশ করেছিল। আর সেই স্বাধীনতার পেছনে রাষ্ট্র হিসেবে সবচেয়ে বড় অবদান ছিল এই ভারতের। তাই দুটি গুরুত্বপূর্ণ ইতিহাসকে স্মরণ করে প্রজাতন্ত্র দিবসে বাংলাদেশকে আমন্ত্রণ জানানোতে এবারের প্রজাতন্ত্র দিবসের গুরুত্ব ও তাৎপর্য আরও বেড়ে গেছে। 

পঞ্চাশ বছর আগে যে বাহিনী একসঙ্গে লড়াই করেছে, এখন তারা গর্বের সঙ্গে রাজপথে মার্চ করবে। এর থেকে আনন্দের, গর্বের আর দ্বিতীয় কিছু হতে পারে না। ১৯৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বর ঢাকার রেসকোর্স ময়দানে ৯৩ হাজার পাকিস্তানি সেনার আত্মসমর্পণের মধ্যে দিয়ে জন্ম হয়েছিল স্বাধীন রাষ্ট্র বাংলাদেশের। একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধের পুরোটা সময় ভারতের সমর্থন বাঙালিরা পেলেও মুক্তিযুদ্ধে ভারতীয় সেনাবাহিনীর প্রত্যক্ষ অংশগ্রহণ শুরু হয়ে ২১ নভেম্বর। ভারতীয় সশস্ত্রবাহিনী ও মুক্তিবাহিনী একত্রে যৌথ বাহিনী গঠনের মাধ্যমে পাকিস্তানী সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে শুরু করে যুদ্ধ। 

একাত্তরের বিজয় দিবসের ঠিক আগের দু'সপ্তাহ ধরে চলেছিল তীব্র যুদ্ধ - যার একদিকে ছিল পাকিস্তানি সেনা, আর অন্যদিকে ভারতীয় সেনা আর বাংলাদেশের মুক্তিবাহিনী। মার্চে যুদ্ধ শুরু হলেও কূটনৈতিক বাধার কারণে শুরুতেই ভারতীয় বাহিনী বাংলাদেশের যুদ্ধে সরাসরি অংশ নিতে পারেনি। তবে শুরুর দিকে মুক্তিবাহিনীকে ভারতে সার্বিক প্রশিক্ষণ দেয়ার দায়িত্ব পালন করেছে ভারতীয় সশস্ত্র বাহিনী। আবার ভারত সেনাবাহিনীকে বাংলাদেশে যুদ্ধের জন্য আলাদা প্রস্তুতি নিতে হয়েছে। কেননা চীনকে মাথায় রেখেই ভারতীয় সেনাবাহিনী মাউন্টেন ওয়ারফেয়ার, হাই অল্টিচিউড লড়াইয়েরই প্রশিক্ষণ নিতেন, অস্ত্রশস্ত্র বা স্ট্র্যাটেজিও সেভাবেই জোগানো হত। সেখানে বাংলাদেশে নদীনালায় ভরা একটা সমতলভূমি, সেই জলময় পরিবেশে যুদ্ধের জন্য ভারতীয় সেনাবাহিনী কোন প্রস্তুতিই ছিল না, তাই এখানে যুদ্ধের জন্য আলাদা প্রস্তুতি নিতে হয়েছিল তাদেরকে। 

দুই দেশের সশস্ত্র বাহিনীকে আবার একসাথে রাজপথে দেখে মুক্তিযুদ্ধের এক বুদ্ধিদীপ্ত ঘটনার কথা মনে পড়ছে। ১৯৭১ সালে ভারতীয় সশস্ত্র বাহিনী ও মুক্তিবাহিনীর যৌথ আক্রমণের মাত্র দুই সপ্তাহের মাথায় কিভাবে পাকিস্তানের বিপুল সংখ্যক সেনা আত্মসমর্পণ করলো তা অনেকের কাছে এক বড় রহস্য। ভারতীয় সশস্ত্রবাহিনীর কি এমন পলিসি ছিলো যেখানে মাত্র ১৪ দিনের ব্যবধানে ৯৩ হাজার পাকিস্তানি বাহিনী এভাবে পর্যদুস্ত হলো। 

জানা যায়, ভারতীয় সেনাবাহিনী এখানে নতুন এক যুদ্ধ কৌশল প্রয়োগ করেছিল। সামরিক ভাষায় যেটাকে বলা হয় 'বাইপাসিং স্ট্র্যাটেজি' আর তার টার্গেট ছিল ঢাকা। যুদ্ধক্ষেত্রে এই ‘বাইপাসিং স্ট্র্যাটেজি’ এক বিশাল পার্থক্য গড়ে দিয়েছিল পাকিস্তান সেনাবাহিনী ও যৌথবাহিনীর মধ্যে। ভারতের কৌশলটা ছিল, পাকিস্তানি সেনা যেখানেই শক্ত ঘাঁটি গড়ে ভারতের অগ্রযাত্রাকে রুখতে চাইবে, সেটাকে পাশ কাটিয়ে এক রকম সোজা ঢাকার দিকে এগিয়ে যাওয়া। এটাকে বলে 'বাইপাসিং স্ট্র্যাটেজি’। আর এক্ষেত্রে ভারতীয় সেনাবাহিনী খুলনা-চট্টগ্রামের মতো শহরকেও পাশ কাটিয়ে সরাসরি ঢাকাকে টার্গেট করে এগিয়েছে। 

হিলির মতো কয়েকটা শক্ত ঘাঁটিতে পাকিস্তান সেনাবাহিনীর ওপর আক্রমণ চালাতেই হয়েছে। তবে যতোটা সম্ভব নিরাপদে থেকে ভারতীয় সেনাবাহিনী ঢাকার দিকে অগ্রসর হয়েছে। ভারতীয় বাহিনী ঢাকার দিকে আরো সহজে আসতে পেরেছিলো মুক্তিবাহিনীর কারণে। কারণ ভারতীয় সেনা যখন পাকিস্তানী সেনার উপর আক্রমণ করছে তখন পাকিস্তানি ফৌজ তাদের পশ্চাৎবর্তী এলাকাটাকেও নিরাপদ ভাবতে পারছিলো না মুক্তিবাহিনীর জন্যই। সব সময় একটা আশঙ্কা পাকিস্তানী ফৌজের ছিলো যে, তাদের পেছনে কী হচ্ছে, রাস্তা কেটে দিচ্ছে, রসদপত্র আসছে না, সাপ্লাই অ্যামবুশ করে দিচ্ছে - এটা তাদের মনোবল একদম চুরমার করে দিয়েছিল। এর ফলে দেখা গেল ঢাকার যখন পতন হয়েছে, তখন ভারতের পেছনে ফেলে আসা বহু জায়গায় পাকিস্তানি সেনারা তখনও ক্যান্টনমেন্টে আটকে বসে আছে এবং অসহায় আত্মসমর্পণে বাধ্য হচ্ছে। এই 'বাইপাসিং স্ট্র্যাটেজি' দ্রুত পাকিস্তান সেনাবাহিনীকে আত্মসমর্পণে বাধ্য করেছে। অপরদিকে ছিলো বিমানবাহিনীর অনন্য ভূমিকা। 

ইন্ডিয়ান এয়ারলাইন্সের একটা কাঠমান্ডু-দিল্লি ফ্লাইটকে ছিনতাই করে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল রাওয়ালপিন্ডিতে। পাল্টা ব্যবস্থা নিয়ে ভারত তখন পূর্ব ও পশ্চিম পাকিস্তানের ভেতর বিমান চলাচল বন্ধ করে দেয় - অর্থাৎ নিজেদের আকাশসীমা তাদের ব্যবহার করতে দেয় না। ফলে পাকিস্তান ভারি সামরিক সরঞ্জাম, রসদ বা সৈন্যসামন্ত সরাসরি আকাশপথে পূর্বদিকে আনতেই পারেনি, তাদের সে সব পাঠাতে হয়েছিল অনেক ঘুরে শ্রীলঙ্কা হয়ে সমুদ্রপথে! যা ছিল অনেক সময়সাপেক্ষ ও কষ্টসাধ্য। এই বিষয়টিও যৌথবাহিনীর জন্য আশীর্বাদ হয়ে এসেছিল। ফলে আক্রমণের মাত্র দু’সপ্তাহের মাথায় পাকিস্তান সেনাবাহিনী আত্মসমর্পণে বাধ্য হয়। এভাবেই দুই দেশের সশস্ত্রবাহিনী একত্রে লড়াই করে বাংলাদেশের বিজয় পতাকা উড়িয়েছে। পঞ্চাশ বছর আগে যে দুই বাহিনী একত্রে মার্চ করেছিল, এতোবছর পর আবার তারাই একসাথে মার্চ করবে যা দুই দেশের জন্যই অনেক সম্মান ও গৌরবের। তাই ৭২তম প্রজাতন্ত্র দিবসে প্রথমবারের মত বাংলাদেশের সশস্ত্র বাহিনীর অংশগ্রহণ আলাদা তাৎপর্য বহন করছে। 

ভারতীয় সংবিধান কার্যকরী হওয়ার ঘটনাকে স্মরণ করে ১৯৫০ সালের ২৬ জানুয়ারি থেকে ভারতে সাধারণতন্ত্র দিবস বা প্রজাতন্ত্র দিবস হিসেবে এই দিনটি পালিত হয়ে আসছে। যেহেতু এই দিনে ভারতীয় গণপরিষদ সংবিধান কার্যকরের মাধ্যমে ভারতকে একটি গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রে পরিণত করে তাই এই দিনটিকে ভারতের গণতন্ত্র দিবস হিসেবেও উল্লেখ করা হয়। দিনটি ভারতের তিনটি জাতীয় দিবসের অন্যতম। এই দিন সারা ভারতেই নানা অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। প্রজাতন্ত্র দিবস উপলক্ষ্যে নয়া দিল্লীতে কুচকাওয়াজ হয় রাষ্ট্রপতির আবাসস্থল রাষ্ট্রপতি ভবনের নিকটবর্তী রাইসিনা হিল থেকে রাজপথ বরাবর ইন্ডিয়া গেট ছাড়িয়ে। কুচকাওয়াজ আরম্ভ হওয়ার পূর্বে রাষ্ট্রপতি রাজপথের একপ্রান্তে অবস্থিত ইন্ডিয়া গেটে শহিদ সৈন্যদের উদ্দেশ্যে নির্মিত স্মারক অমর জওয়ান জ্যোতি-তে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন। 

স্বাধীনতা আন্দোলন ও তার পরবর্তী যুদ্ধগুলোতে ভারতের সার্বভৌমত্ব রক্ষায় শহীদ সৈন্যদের প্রতি শ্রদ্ধাজ্ঞাপন করে দুই মিনিট নীরবতা পালন করা হয়। ইন্ডিয়া গেটের শহীদ স্তম্ভে বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধে প্রাণ দেয়া ভারতীয় শহীদদের নামও রয়েছে। বাংলাদেশের মুক্তি আন্দোলনের প্রতিটি ধাপে রয়েছে ভারতের অবদান। তাই দিল্লির রাজপথে যখন দুই দেশের সশস্ত্র বাহিনী একসাথে ২৬ জানুয়ারি কুচকাওয়াজে অংশ নেবে তখন পঞ্চাশ বছর আগের স্মৃতি তাড়া করে ফিরবে দু’দেশের নাগরিকদের, বিশেষ করে তাদের যে বীর সৈনিকেরা আজো জীবিত, যাদের অনন্য সাহসিকতায় আজ বাংলাদেশ স্বাধীন।

লেখক: রাজনৈতিক ও আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিশ্লেষক।

বিডি প্রতিদিন/আরাফাত


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর