Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : শনিবার, ১৯ অক্টোবর, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৮ অক্টোবর, ২০১৯ ২১:৪২

যাদব পায়েং একাই বানালেন আস্ত এক বন

শনিবারের সকাল ডেস্ক

যাদব পায়েং  একাই বানালেন আস্ত এক বন

আসামের যাদব পায়েং। জোরহাটের বালিগাঁও জগন্নাথ বড়ুয়া আর্য বিদ্যালয় থেকে দশম শ্রেণির পরীক্ষা দিয়ে জন্মস্থানে ফিরছিলেন। ব্রহ্মপুত্রের তীর জেগে উঠেছে চর। মাত্র ১০ বছরে বদলে গেছে সব। সবুজ বন নেই। প্রখর রোদে হাঁটতে হাঁটতে থমকে গেলেন তিনি। ধুক করে উঠল বুকটা। অরুণা সাপোরি দ্বীপে ধু-ধু মরুভূমির মতো তীরে মরে পড়ে আছে কয়েক হাজার সাপ। এদের ঘরবাড়ি জ্বালিয়ে দিয়েছিল ভূমিদস্যুরা। বন কেটে কাঠ নিল তারা। এখন চারপাশে বালুচর যেন উত্তপ্ত উনুন। ভূমিক্ষয়ের কারণে ১৯৬৫ সালে পায়েংয়ের পরিবার অরুণা সাপোরি ছেড়ে নদীর অন্য তীরে ১২ কিমি দূরের মাজুলিতে বসবাস শুরু করে। ভূমিক্ষয়ে ব্রহ্মপুত্র নদ গ্রামের পর গ্রাম গিলে ফেলতে শুরু করেছিল। গ্রামের মানুষ গরু, মহিষ, শুয়োর পালত। যাদব পায়েংয়ের বাবা এ খামার চালাতেন। বাবা মারা গেলেন হুট করেই। ১৩ ভাইবোনের সংসারের হাল ধরতে হলো কিশোর যাদবকে। কিন্তু তার জীবনের গতিপথ পরিবর্তন হলো ১৯৭৮ সালে। হাজার হাজার মৃত সাপের সেই দৃশ্য তার ভিতরটা পুড়িয়ে দিল। তিনি ছুটে গেলেন বন বিভাগের অফিসে। অফিসের লোকজন বললেন, পারলে নিজে গিয়ে গাছ লাগাও। গ্রামের লোকজন তাকে বলল, ওই মরুভূমিতে গাছ লাগালেই কি আর না লাগালেই কি! গাছ জন্মায় না ও মরুতে।

যাদবের বুক ভাঙল সবার কথায়। কিন্তু একজন তাকে কাছে ডেকে নিলেন। বৃদ্ধ এক গ্রামবাসী যাদবকে গ্রাম থেকে একটু দূরে ডেকে নিলেন। অনেকটা লুকিয়ে লুকিয়ে কিশোর যাদবের হাতে ৫০টি বীজ ও ২৫টি বাঁশগাছের চারা দিয়েছিলেন সেই বৃদ্ধ। যাদবের মাথায় হাত দিয়ে বলেছিলেন, ‘গাছ লাগাও বাবা, শুধু সাপ কেন আমরা সবাই বাঁচব। একটা কথা মাথায় রেখো, যেখানে গাছ, সেখানেই পাখি। যেখানে পাখি, সেখানে ডিম। যেখানে ডিম, সেখানে সাপ। আবার যেখানে গাছ, সেখানে চারা। যেখানে চারা, সেখানে জঙ্গল। যেখানে জঙ্গল, সেখানে বৃষ্টি। যেখানে বৃষ্টি, সেখানে চাষাবাদ। তোমাদের গরু-মহিষের জন্য ঘাস।’ সেই বৃদ্ধের জাদুমন্ত্র যাদবকে অন্য এক মানুষে পরিণত করেছিল। সত্যিই বদলে গেল অজ পাড়াগাঁয়ের এক কিশোর। বৃদ্ধের কাছ থেকে জেনে নিলেন গাছ লাগানোর আদর্শ সময়। এপ্রিল থেকে জুন। ১৯৭৯ সালে যাদব পায়েং গাছ লাগানোর পাগলামিতে নামলেন। মরুর বুকে বন বানানোর স্বপ্নটা বুকে নিয়ে চারা গাছে রোজ জল ঢালতেন। এপ্রিল মাসটা কোনোমতে গেল। গ্রামের লোকেরা তার পাগলামি দেখতে এলো। অরুণা সাপোরি দ্বীপে তত দিনে একাই বিভিন্ন গাছ ও বাঁশের কয়েক শ চারা লাগিয়ে ফেলেছেন যাদব। এক বছর ঘুরে সংগ্রহ করেছিলেন হাজার হাজার বীজ। পুরো দ্বীপের আনাচে কানাচে ছড়িয়ে দিয়েছিলেন সেই বীজ।

বর্ষার জন্য অপেক্ষা তার। সে বছর কী মনে করে আকাশ ভেঙে বৃষ্টি নামল অন্য বছরের তুলনায় বেশ আগেভাগে। যাদব পায়েংয়ের লাগানো চারাগাছ বৃষ্টির পানি পেয়ে হৃষ্টপুষ্ট হলো। শিকড় দিয়ে আঁকড়ে ধরল দ্বীপের মাটি। বৃহ্মপুত্র নদের থাবায় তীর ভাঙার যুদ্ধে জিতে গেল যাদবের গাছেরা। বিজয়ের আনন্দে আত্মহারা যাদবের খোঁজ কেউ রাখে না। সবাই যখন যার যার মতো ব্যস্ত, যাদব তখন ব্যস্ত সবার ভবিষ্যতের মঙ্গল কামনায়। পরের বছরও হাজার হাজার বীজ ছিটালেন, চারা লাগালেন দ্বীপজুড়ে। যাদবের আদরে, লালনে গাছেরা হাত ধরাধরি করে দ্বীপ দখল করে নিল। মরুর দ্বীপ ঢেকে গেল সবুজে। সেই দখলদারিত্ব ৪০ বছরে যখন পৌঁছল গোটা ভারতবাসী বিস্ময়ে হতবাক হয়ে গেল। শুধু কি ভারতবাসী? না, পুরো বিশ্বের মানুষ ক্লাস টেন পড়ুয়া সেই কিশোরের চোখে দেখা স্বপ্নের বাস্তব রূপ দেখল। ১ হাজার ৩৬০ একর জমিজুড়ে গাছ লাগিয়ে একাই বন তৈরি করলেন যাদব! কে কবে এমন শুনেছে? যেই চরে হাজার হাজার মৃত সাপ রোদে পুড়ে কাঠ হয়ে পড়েছিল, সেই বন আজ হাজার হাজার পাখি, বন্য জীবজন্তুতে ঠাসা!

যাদব পায়েংয়ের লাগানো বাঁশ, বহেড়া, সেগুন, গাম্ভারি, কাস্টার্ড আপেল, তারা ফল, গুলমোহর, ডেভিলস ট্রি, তেঁতুল, তুত, কাঁঠাল, কুল, জাম, কলা গাছ, এলিফ্যান্ট গ্রাস পারলে আকাশের মেঘ ছুঁয়ে নেয়। যাদবের তৈরি এই বনে রয়েছে রয়েল বেঙ্গল টাইগার, গন্ডার, শতাধিক হরিণ, বুনো শুয়োর, কয়েক শ শকুন, শতাধিক প্রজাতির পাখি। আর বাস করে হাজার হাজার সাপ।

পাগলাটে সেই কিশোরকে আজ গ্রামবাসী তাদের প্রাণের মানুষ করে টেনে নিয়েছে। তারা তাকে স্থানীয় ভাষায় ডাকে মোলাই। মানে জঙ্গল। হ্যাঁ তাই তো! বিশ্ববাসী তার নাম দিল ফরেস্টম্যান।

৩৯ বছর বয়সে যাদব বিয়ে করেন বিনীতাকে। তাদের তিন সন্তানÑ মুনমুনি, সঞ্জীব ও সঞ্জয়। জীবনের প্রয়োজনে তার হাতে তৈরি বন থেকে অনেকটাই দূরে বাসা নিতে হয়েছে তাকে। কিন্তু বন যে তাকে ডাকে। এখনো রাত ৩টায় ওঠেন যাদব পায়েং। শুরু হয় ম্যারাথন দৌড়। তারপর এক ঘণ্টা সাইকেল চালিয়ে  পৌঁছেন কার্তিক সাপোরিতে। সেখান থেকে নিজেই ডিঙি নৌকা বেয়ে ৫ কিলোমিটার গিয়ে নামেন দ্বীপে। তার খামার রয়েছে আগের গ্রামে। সেখানেই যান বন পেরিয়ে। যে জঙ্গলে আশ্রয় নেয় ১১৫টি হাতির একটি দল। যে জঙ্গলে থাকা বাঘেরা গত ৪০ বছরে যাদব মোলাই পায়েংয়ের খামারের ৮৫টি গরু, ৯৫টি মোষ, ১০টি শুয়োর খেয়েছে। সে বনেই ছুটে যান তিনি। বাঘেরা যে তার খামারের গরু খেয়ে ফেলল, এ নিয়ে তার অনুভূতি জানতে চেয়েছিল এলাকার লোকজন। যাদব পায়েং মজা করে বললেন, ‘বাঘেরা তো পশুপালন ব্যাপারটা বোঝে না। ওদের দোষ দিয়ে লাভ কী!’ যাদব পায়েংয়ের কথা তার গ্রামবাসীর মুখে মুখে ছিল। তিনি আড়ালেই রয়ে যেতেন, যদি না জিতু কলিতা নামে স্থানীয় এক ওয়াইল্ডলাইফ ফটোগ্রাফার ছবি তুলতে গিয়ে তার দেখা পেতেন। ২০১০ সালে ভার্নাকুলার ডেইলি নামে এক পত্রিকায় তিনি যাদবের কথা লেখেন।

মানুষের নজরে আসে এই অবিশ্বাস্য কীর্তি।

২০১২ সালে যাদবের এই অসামান্য ও একক অবদানের জন্য জওহরলাল নেহরু ইউনিভার্সিটি ‘আর্থ-ডে’র দিন তাকে ‘ফরেস্টম্যান অব ইন্ডিয়া’ শিরোপা দেয়। ওই বছরই ভারতের তৎকালীন  প্রেসিডেন্ট এ পি জে আবদুল কালাম মুম্বাইয়ে যাদব পায়েংকে আর্থিকভাবে পুরস্কৃত করেন।

একই বছরে ফ্রান্সে অনুষ্ঠিত ইন্টারন্যাশনাল ফোরাম ফর সাসটেইনেবল ডেভেলপমেন্টের এক কনফারেন্সে বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে আসা ৯০০ বিশেষজ্ঞের মধ্যে যাদব পায়েংও ছিলেন। ২০১৫ সালে যাদব পেয়েছেন পদ্মশ্রী পুরস্কার।

শেষ করার আগে একটি ঘটনা। যাদব পায়েংয়ের বনে বন্য পশুপ্রাণীর আবাস- এ ঘটনা প্রথম শুনেছিল স্থানীয় প্রশাসন। বন অধিদফতরের কর্মকর্তারা হেসেই উড়িয়ে দিয়েছিলেন। যাদব পায়েং গিয়ে বললেন, ‘আমার বনে বিলুপ্তপ্রায় গন্ডারদের মেরে ফেলছে চোরা শিকারিরা।’ বন অধিদফতরের কর্মকর্তারা বললেন, ‘তোমার লাগানো গাছের বন! সেখানে বিলুপ্তপ্রায় প্রজাতির গন্ডারও থাকে!’ তাদের তাচ্ছিল্যে ফিরে আসতে হয়েছিল যাদবকে। পরে গ্রামবাসীর পীড়াপীড়িতে সেখানে লোক পাঠান বন অধিদফতরের কর্তারা। ২০১২ সালের আগস্টে চোরা শিকারিরা একটি গন্ডার মারার পর বন দফতরের বিশ্বাস হয়েছিল যাদবের তৈরি জঙ্গলে সত্যিই গন্ডার থাকে। সেই গন্ডারটির কথা মনে হতেই ছলছল করে যাদবের চোখ। বলেছিলেন, ‘জানেন, আমার  ছোট ছেলে আর আমি কয়েক দিন খেতে পারিনি, যখন দেখেছিলাম চোরা শিকারিরা গন্ডারটির লেজ আর নখ কেটে নিয়ে গেছে। কিন্তু কী করব, একটি বিশাল অরণ্যকে সুরক্ষা দেওয়া আমার একার পক্ষে সম্ভব নয়।’ এর পর থেকে চোরা শিকারিদের হাতে প্রাণ হারানোর ঝুঁকি নিয়ে একাই পাহারা দিতেন এই বিশাল বন।


আপনার মন্তব্য