শনিবার, ৪ ডিসেম্বর, ২০২১ ০০:০০ টা
অনুপ্রেরণীয়

মানবতার ডাক্তার কামরুল ইসলাম

বিনা পারিশ্রমিকে ১ হাজার ২২টি কিডনি প্রতিস্থাপন

সাইফ ইমন

মানবতার ডাক্তার কামরুল ইসলাম

ডাক্তার মানেই অসুস্থ অসহায় মানুষের আস্থার প্রতীক। অনেক মানবিক হৃদয়বান ডাক্তার রয়েছেন আমাদের দেশে। যখন কোনো গরিব অসহায় রোগী এসে বলেন- অমুক ডাক্তার সাহেব খুব যত্ন করে দেখেছেন, ফ্রি ওষুধ দিয়েছেন, আবার সমস্যা হলে ফোন করে জানাতে বলেছেন। তখন আপনা থেকেই তাঁর বা তাঁদের প্রতি শ্রদ্ধা আর ভালোবাসা জাগ্রত হয় হৃদয়ের গভীরে। এমনই একজন মানবিক ডাক্তার অধ্যাপক কামরুল ইসলাম। স্থাপন করেছেন অনন্য দৃষ্টান্ত। এখন পর্যন্ত ১ হাজার ২২টি কিডনি প্রতিস্থাপন করেছেন তিনি এবং পুরোটাই বিনা পারিশ্রমিকে। তাঁর সাফল্যের হার ৯৬%। মানবসেবার মহান ব্রত থেকেই চিকিৎসাকে পেশা হিসেবে বেছে নিয়েছিলেন অধ্যাপক কামরুল ইসলাম। পেছনে ছিল মুক্তিযুদ্ধে শহীদ পিতার অনুপ্রেরণা। সেই পথ ধরে নিজের পেশাকে কাজে লাগিয়ে নিজেকে নিয়োজিত করেছেন মানুষের কল্যাণে। তিনি মনে করেন অর্থ উপার্জন করাই সফলতা নয়, বরং একজন অসুস্থ মানুষকে সুস্থ করে তুলতে পারলেই আসল স্বার্থকতা। ছাত্রজীবন থেকেই ভীষণ মেধাবী ছিলেন ডা. কামরুল ইসলাম। ঢাকা মেডিকেল কলেজ থেকে ইর্ষণীয় রেজাল্ট করে এমবিবিএস পাস করেন তিনি। ইন্টার্নির সময় পাওয়া অর্জিত অর্থ রেখে দিয়েছিলেন এফসিপিএস করার জন্য। তিনি বলেন, ছাত্রাবস্থায় জ্ঞান উপার্জন প্রয়োজন অর্থ উপার্জন নয়।  ডাক্তারিতে উচ্চতর পড়াশোনায় আর গভীরভাবে মনোনিবেশ করেন তিনি। আর সাফল্য এখন আমাদের চোখের সামনে। নিজের পেশার সঙ্গে সম্পূর্ণরূপে সুবিচার করেছেন তিনি। দেশের দরিদ্র কিডনি রোগীদের জন্য নামমাত্র মূল্যে কিডনি প্রতিস্থাপন ও মানসম্মত চিকিৎসাসেবা নিশ্চিতের জন্য তৈরি করেছেন বিশেষায়িত এক প্রতিষ্ঠান। সম্প্রতি ১ হাজার কিডনি প্রতিস্থাপনের মাইলফলক ছুঁয়েছেন তিনি ও তাঁর প্রতিষ্ঠান শ্যামলীর সেন্টার ফর কিডনি ডিজিজেস (সিকেডি) অ্যান্ড ইউরোলজি হাসপাতাল। গরিব রোগীদের কমমূল্যে কিডনি প্রতিস্থাপন ও চিকিৎসার লক্ষ্য নিয়ে ২০১৪ সালে এ প্রতিষ্ঠানটি গড়ে তোলেন কামরুল ইসলাম। চলমান করোনা মহামারীর মধ্যেও সিকেডি হাসপাতাল তার স্বাভাবিক কার্যক্রম চালিয়ে গেছে। মহামারীর দেড় বছরে সফলভাবে প্রতিস্থাপন করা হয়েছে ২৫০টির বেশি কিডনি। কামরুল ইসলাম বলেন, আমি কাউকে জোর করিনি। প্রতিষ্ঠানের সবাই নিজের ইচ্ছাতেই কার্যক্রম চালিয়ে গেছে। অবশ্যই যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি মেনেই।

বর্তমানে এই হাসপাতালে প্রতি সপ্তাহে ৪টি করে কিডনি প্রতিস্থাপন করা হচ্ছে। যা দেশের অন্য যে কোনো হাসপাতালের তুলনায় বেশি। নির্ধারিত ন্যূনতম খরচ বাদে কিডনি প্রতিস্থাপনের জন্য বিশেষজ্ঞ সার্জনের কোনো ফি নেন না অধ্যাপক কামরুল। তিনি হয়ে উঠেছেন বহু অসহায় মানুষের মুখের হাসি। ডা. কামরুল ইসলামের বাবা ছিলেন একজন কৃষিবিদ। নাম আমিনুল ইসলাম। মুক্তিযুদ্ধের সময় তিনি পাকিস্তানি সেনা ও রাজাকারদের হাতে নৃশংসভাবে শহীদ হন। কামরুল ইসলাম বলেন, আমার দাদার বাড়ি ঈশ্বরদী। আমাদের পরিবারের অনেকেই মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করেন। আমি তখন ক্লাস থ্রিতে পড়ি। আমার এক ফুপাতো ভাই শহীদ হয়েছেন। কিন্তু কোথায় শহীদ হয়েছেন তা আমরা জানি না। আমার মা আমাদের নিয়ে তখন নানার বাড়ি একই গ্রামে। আমার বাবার বাসায় মুক্তিযোদ্ধারা আসতেন মিটিং করতে। এ খবর পেয়ে রাজাকাররা আমার বাবাকে বাসায় এসে কষ্ট দিয়ে হত্যা করেন। এক সময় মুক্তিযুদ্ধ শেষ হয় কিন্তু আমাদের যুদ্ধটা শুরু হলো মনে হয়। আমার মা আমাদের সব ভাই-বোনকে মানুষ করেছেন, নিজে পড়াশোনা করেছেন। আমার মা অধ্যাপিকা রহিমা খাতুন। তিনি খুব দৃঢ়চিত্ত মানুষ। আমার বাবা যখন মারা যান তখন আমার ছোট ভাইয়ের বয়স মাত্র ৫ দিন। আমাদের সবাইকে নিয়ে মা জীবনযুদ্ধ চালিয়ে গেছেন। তিনি রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সমাজবিজ্ঞানে প্রথম হয়েছিলেন। তিনি চাইতেন ভালো রেজাল্ট। আমরাও চেষ্টা করতাম সব সময় ভালো রেজাল্ট করতে। আমাদের উদ্দেশ্য জীবনযুদ্ধ জয় করতে হবে। আমার চাচা আমাদের সহযোগিতা করেছেন। তবে সবচেয়ে বেশি সাপোর্ট করেছেন আমার মামারা। ম্যাট্রিক পরীক্ষা আমরা নানি বাড়ি থেকে দিয়েছি। রাজশাহীতে সম্মিলিত মেধাতালিকায় রাজশাহী বিভাগে ১৫তম হয়েছিলাম। আল্লাহ মেধা ভালোই দিয়েছিলেন।

এই মেধার স্বাক্ষর রেখেছেন অধ্যাপক কামরুল ইসলাম তাঁর শিক্ষা জীবনে। ঢাকা কলেজ থেকেও স্ট্যান্ড করেছিলেন সে সময়। ১৯৮২ সালে তখনকার ৮টি মেডিকেল কলেজের সম্মিলিত ভর্তি পরীক্ষায় প্রথম স্থান অধিকার করেন তিনি। ভর্তি হয়েছিলেন ঢাকা মেডিকেল কলেজে। দুর্দান্ত রেজাল্ট করেন ঢাকা মেডিকেল কলেজে। উচ্চশিক্ষা গ্রহণ করেন রয়্যাল কলেজ অব সার্জনস অব এডিনবার্গ থেকে। তিনি বিশ্বাস করেন ছোট ছোট সাফল্যগুলোই বড় সাফল্যের পথে এগিয়ে নিয়ে যায়। মানবিক এই ডাক্তার আরও মনে করেন- পৃথিবী পূর্ণতা অর্জনের জায়গা নয়। সুখ দুই প্রকার। এক প্রকার সুখ রয়েছে ভোগ করার মধ্য দিয়ে। আরেক প্রকার সুখ হলো ত্যাগের মধ্য দিয়ে। ভোগের সুখ ক্ষণস্থায়ী আর ত্যাগের সুখ চিরঞ্জীব। অধ্যাপক ডা. কামরুল ইসলাম বলেন, মানুষকে ভালোবাসতে হবে। আর ভালোবাসা থেকেই ভালো কাজ আসে। তিনি আরও বলেন, সুখের প্রধান সোপান হলো কম চাহিদা। রোগীকে সুস্থ করে তুলতে পারলেই ডাক্তারের স্বার্থকতা। তিনি জানান, এ পর্যন্ত এই হাসপাতালে মোট ১ হাজার ৪টি কিডনি প্রতিস্থাপন করা হয়েছে। কিডনি প্রতিস্থাপন করা সব রোগীর ফলোআপ পরীক্ষা করা হচ্ছে বিনামূল্যে। প্রতি মাসে এখানে অন্তত ৫০০ থেকে ৬০০ রোগী আসেন ফলোআপ পরীক্ষার জন্য। তাদের সবার ফলোআপ বিনামূল্যে করানো হয়। কামরুল ইসলাম সব সময় জোর দেন সিম্বায়োটিক চ্যারিটিতে। তিনি বলেন, আইসিইউতে থাকা একজন মৃত্যুপথযাত্রী পারেন আরও ১৪ জন মানুষকে বাঁচাতে সিম্বায়োটিক চ্যারিটির মাধ্যমে। মানুষের মৃত্যুর পর শরীরের অঙ্গ সংরক্ষণ করে তা জীবিত কোনো মানুষের দেহে স্থানান্তর করতে পারলে বেঁচে যায় জীবন। এ বিষয়ে সবাইকে উৎসাহী হতেও বলেন তিনি। আবার রোগীদের ফলোআপ পরীক্ষার ব্যাপারে উৎসাহিত করতে পরীক্ষা-নিরীক্ষার খরচ ও রিপোর্ট দেখার ফিও নেওয়া হয় না তাঁর হাসপাতালে। এ ছাড়া খরচ কমাতে কিডনি সংরক্ষণের জন্য বিদেশ থেকে আমদানি করা এক ধরনের দামি তরলের বিকল্প তৈরি করেছেন ডা. অধ্যাপক কামরুল ইসলাম। সিকেডি অ্যান্ড ইউরোলজি হাসপাতালে আনুষঙ্গিক পরীক্ষা-নিরীক্ষার খরচও তুলনামূলক কম। কিডনি প্রতিস্থাপনের আগে ডায়ালাইসিস প্রয়োজন হলে সিকেডি হাসপাতালেই তার ব্যবস্থা আছে। আছে ২২ বেডের একটি ডায়ালাইসিস ইউনিট। খরচ দেড় হাজার টাকা। আইসিইউ শয্যার খরচ ৭ থেকে ৯ হাজার টাকার মধ্যে। অনেকেই বলেন, বর্তমান সময়কালে ডা. কামরুল ইসলাম কাজের পরিধির মধ্যে সুশৃঙ্খলতা আনয়ন করতে সক্ষম হয়েছেন।  সিকেডি হাসপাতাল ছাড়াও জাতীয় কিডনি ইনস্টিটিউট এবং হাসপাতালসহ অন্যান্য কর্মস্থলে তিনি দক্ষতার পরিচয় দিয়েছেন তা বিশেষভাবে উল্লেখযোগ্য।  ডাক্তার অধ্যাপক কামরুল ইসলাম চিকিৎসা দেন, রোগীকে মানসিক ভরসাও দেন।

সর্বশেষ খবর